মঙ্গলে নদীর অস্তিত্বের আরও বড় প্রমাণ মিলল, দাবি নাসার

নাসার মঙ্গলযান কিউরিওসিটি যে ছবি পাঠিয়েছে, তা বিশ্লেষণ করে মঙ্গলে জলের উৎস নিয়ে একরকম নিশ্চিত মার্কিন মহাকাশ সংস্থা।

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Oct 10, 2019 10:08 AM IST
মঙ্গলে নদীর অস্তিত্বের আরও বড় প্রমাণ মিলল, দাবি নাসার
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Oct 10, 2019 10:08 AM IST

পথ দেখিয়েছিল ইসরোর মঙ্গলযান। মঙ্গলে জলের অস্তিত্ব নিয়ে আরও অকাট্য প্রমাণ মিলল। লালগ্রহে এক মরুদ্যানের খোঁজ দিয়েছে নাসার কিউরিওসিটি। ৩৫০ কোটি বছর আগে এখানে জলাশয় ছিল বলেই নিশ্চিত নাসা।

কয়েকশো কোটি বছর আগে জলের বিশাল জলাশয় ছিল লাল গ্রহে। একটা না, বেশ কয়েকটা। নাসার মঙ্গলযান কিউরিওসিটি যে ছবি পাঠিয়েছে, তা বিশ্লেষণ করে মঙ্গলে জলের উৎস নিয়ে একরকম নিশ্চিত মার্কিন মহাকাশ সংস্থা। তাদের দাবি, মঙ্গলে সাড়ে ৩০০ কোটি বছর আগে জলাশয়ের অস্তিত্ব ছিল। ১৫০ কিলোমিটার দীর্ঘ জলাশয়ের প্রমাণ মিলেছে।

চলতি মাসেই মঙ্গলে প্রাণের খোঁজে বিশেষ পরীক্ষা শুরু করছে নাসা। তার আগে জলের হদিশ মেলায় স্বাভাবিক কারণেই উল্লসিত বিজ্ঞানীরা -মঙ্গলের পিঠে এক থেকে দেড় ফুট পর্যন্ত খোঁড়া হবে

-লালগ্রহে অনুজীবের অস্তিত্ব ছিল কিনা, খোঁজা হবে

আর সেই কারণেই মঙ্গলে জলের অস্তিত্ব সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়াটা নাসার কাছে ভীষণ গুরত্বপূর্ণ। মঙ্গলের যে অংশে মরুদ্যানের হদিশ মিলেছে, সেখানেও পৌঁছতে অভিনব পরিকল্পনা বিজ্ঞানীদের। দক্ষিণ আমেরিকার আটাকামা মরুভূমিকে ট্রায়ালের জন্য বাছা হয়েছে । কারণ, আটাকামা মরুভূমি অনেকটাই মঙ্গলের রুক্ষসুক্ষ পিঠের মতো।

Loading...

বেশ কয়েক বছর আগে মঙ্গলে নেমেছিল মিস কৌতুহল। অর্থাৎ নাসার মঙ্গলযান কিউরিওসিটি। ২০২০ সালে কিউরিওসিটির কাজ শেষ হবে। মঙ্গলে নামবে কিউরিওসিটি বিগ সিস্টার। তার আগেই খেল দেখাল কিউরিওসিটি।

First published: 10:08:07 AM Oct 10, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर