Modi on Yaas management: ইয়াস তৎপরতায় নবীনের প্রশংসায় পঞ্চমুখ মোদি, মমতায় 'স্পিকটি নট', এক যাত্রায় পৃথক ফল?

নবীন পট্টনায়কের উৎফুল্ল প্রশংসা মোদির মুখে। মমতার কাজ নিয়ে নীরবতা।

Modi on Yaas management অর্থপ্রদানে যেমন বৈষম্যের অভিযোগ, পিঠচাপড়ানিও যেন কিছুটা একপেশেই।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: ইয়াসের ধাক্কায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বাংলা-ওড়িশা দুই রাজ্যই। কিন্তু ত্রাণের অর্থপ্রদানে যেমন বৈষম্যের অভিযোগ, পিঠচাপড়ানিও যেন কিছুটা একপেশেই। শনিবার সাত সকালে ট্যুইট করে ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়কের ইয়াস মোকাবিলার পদক্ষেপের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হলেন। বাংলার জন্য রইল নীরবতাই। মোদি তাঁর ট্যুইটে লিখেছেন, ভুবনেশ্বরের রিভিউ মিটিং খুবই ইতিবাচক হয়েছে। আমরা দুর্যোগ মোকাবিলার কাজ সর্বশক্তি দিয়ে করে যাব একযোগে। ইতিমধ্যেই প্রশংসনীয় উদ্যোগ নিয়েছে ওড়িশা।

    উল্লেখ্য বাংলা নিয়ে একটি শব্দ তো মোদি খরচ করেনইনি বরং মমতা বন্দ্যোপধ্যায়ে সমোলচনায় মুখর হয়েছেন তাঁর মন্ত্রীসভা। বুধবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজের প্রশাসনিক বৈঠক থাকায় মোদির সঙ্গে বৈঠকে যোগ দিতে পারেননি। তাঁকে শুধু ক্ষয়ক্ষতির রিপোর্ট ধরিয়ে দেন। এতেই চটেছেন মোদি ঘনিষ্ঠ কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তাঁর আচরণকে ঔদ্ধত্যের দোষে দুষ্ট বলেছেন।

    অন্য দিকে নবীন পট্টনায়ক আগের দিন বলেন, কোভিড পরিস্থিতিতে তাঁর কেন্দ্রীয় অর্থসাহায্য দরকার নেই। যদিও ওড়িশায় ত্রাণ ও পুনর্বাসনের জন্য় ৫০০ কোটি টাকার ত্রাণ দেওয়া হয়েছে তাঁকে। এদিকে বাংলার ও ঝাড়খণ্ডকে ভাগ করে দেওয়া হয়েছে ৫০০ কোটি টাকা। আর্থিক সাহায্য দিলেও মমতা রিভিউ মিটিংয়ে না ঢোকায় কূপিত অমিত শাহ, রাজনাথ সিংরা।

    কিন্তু কেন ওই মিটিংয়ে যোগ দিলেন না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়? শুক্রবার সাগরের বৈঠক শেষের পরে মমতা বন্দোপাধ্যায়কে জানানো হয়, আপনি আপনার হেলিকপ্টার নির্দিষ্ট সময়ের ২০ মিনিট পরে রওনা হবেন। অপেক্ষা করে সেই মতোই রওনা দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কলাইকুণ্ডার আকাশে তাঁকে ১৫ মিনিট চক্কর কাটতে হয়। তারপর তাঁর হেলিকপ্টার নামে। নামার পর উনি বসে থাকেন এয়ারবেসে। তাঁকে বলা হয় রিভিউ মিটিং চলছে, অপেক্ষা করতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী বলেন আমার সঙ্গে তো ওঁর মিটিং হওয়ার কথা আছে। পিএমও আধিকারিকরা বলেন, এখন প্রধানমন্ত্রী রিভিউ মিটিং করছেন। এর পর তাঁর সঙ্গে মিটিং হবে।

    অন্য দিকে আবহাওয়া খারাপ হতে থাকে। দীঘায় বৈঠকের সময় এগিয়ে আসে। তখন সি এম, সি এস'কে নিয়ে চলে যান পি এমের কাছে। সেখানে গিয়ে ১৪ পাতার রিপোর্ট ক্যাটালগ জমা দেন। সৌজন্য বিনিময় করেন। ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ বলেন। দিঘায় মিটিং পূর্ব নির্ধারিত আছে, তাই প্রধানমন্ত্রীর অনুমতি নিয়েই তিনি ফিরে আসেন।

    Published by:Arka Deb
    First published: