দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

দেশের কোথাও বিরোধিতা হয়নি, নতুন শিক্ষানীতি নিয়ে দাবি প্রধানমন্ত্রীর

দেশের কোথাও বিরোধিতা হয়নি, নতুন শিক্ষানীতি নিয়ে দাবি প্রধানমন্ত্রীর
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ PHOTO- File/PTI

প্রধানমন্ত্রীর মতে, নতুন এই শিক্ষানীতি ভারতীয় মূল্যবোধ অক্ষুণ্ণ রেখেই ছাত্রছাত্রীদের বিশ্ব নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে সাহায্য করবে৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: মাতৃভাষায় দ্রুত শিখতে পারে শিশুরা৷ নতুন শিক্ষানীতিতে সে বিষয়েই জোর দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ পাশাপাশি তাঁর দাবি, নয়া শিক্ষানীতি নিয়ে দেশের কোথাওই সেভাবে বিরোধিতা হচ্ছে না৷ নতুন শিক্ষানীতি পক্ষপাত দুষ্ট নয় বলেও দাবি করেন প্রধানমন্ত্রী৷ তিনি আরও বলেন, একবিংশ শতাব্দীর ভারতের ভিত গড়ে দেবে নতুন শিক্ষানীতি৷

প্রত্যাশিত ভাবেই এ দিন নতুন শিক্ষানীতির প্রশংসায় পঞ্চমুখ হলেন প্রধানমন্ত্রী৷ নতুন শিক্ষানীতি নিয়ে একটি ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে এ দিন এই দাবি করেছেন তিনি৷

নরেন্দ্র মোদি বলেন, 'মাতৃভাষায় শিশুরা যে দ্রুত শিখতে পারে এ বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই৷ এই কারণেই নয়া শিক্ষানীতিতে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিশুদের মাতৃভাষায় পড়ানো বাধ্যতামূলক করা হয়েছে৷' একই সঙ্গে তিনি বলেন, 'নয়া শিক্ষানীতি ঘোষণা হওয়ার পর দেশের কোনও প্রান্তেই সেভাবে বিক্ষোভ হয়নি, পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ ওঠেনি৷ যা আমাকে আরও স্বস্তি দিয়েছে৷' প্রধানমন্ত্রীর দাবি, দীর্ঘ চার বছর আলোচনার পর এই শিক্ষানীতি চূড়ান্ত করা হয়েছে৷

প্রধানমন্ত্রীর মতে, নতুন এই শিক্ষানীতি ভারতীয় মূল্যবোধ অক্ষুণ্ণ রেখেই ছাত্রছাত্রীদের বিশ্ব নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে সাহায্য করবে৷ তিনি বলেন, 'সাম্প্রতিককালে দেশের শিক্ষাব্যবস্থায় সেভাবে কোনও বদল ঘটানো হয়নি৷ যার ফলে কৌতূহল, কল্পনাকে খতিয়ে দেখার পর্যাপ্ত সুযোগও দেওয়া হয়নি৷ সবাইকেই এক ধাঁচে ফেলে দেওয়া হয়েছে৷ কৌতূহল, দক্ষতার এবং চাহিদাকে সঠিক ভাবে চিহ্নিত করা প্রয়োজন৷ আমাদের যুবসমাজের দক্ষতা, বিশ্লেষণমূলক চিন্তাভাবনাকে আরও উন্নত করার চেষ্টা করতে হবে৷ শিক্ষার প্রতি আমাদের উদ্দেশ্য, দর্শন এবং ইচ্ছাশক্তি প্রবল হলেই সেটা সম্ভব৷'

নতুন শিক্ষানীতির বিভিন্ন প্রস্তাবগুলিকে কীভাবে বাস্তবায়িত করা যায়, তার রূপরেখা তৈরি করার জন্য সংশ্লিষ্ট সবপক্ষের কাছে এ দিন আবেদন করেন প্রধানমন্ত্রী৷

Published by: Debamoy Ghosh
First published: August 7, 2020, 2:20 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर