Muzaffarpur Shelter Home Case: শেল্টার হোমে পাওয়া হাড়গোড় কোনও মেয়ের নয়, অন্য কারও! বলল সিবিআই

Muzaffarpur Shelter Home Case: শেল্টার হোমে পাওয়া হাড়গোড় কোনও মেয়ের নয়, অন্য কারও! বলল সিবিআই
News18 Creative

তা হলে উদ্ধার হওয়া হাড়গোড়গুলি কিসের? বেনুগোপাল জানিয়েছেন, ওই জায়গা থেকে উদ্ধার হওয়া হাড়গোড়গুলি পরীক্ষা করা হয়েছে৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: বিহারের শেল্টার হোমে মহিলাদের যৌন নির্যাতন ও শারীরিক অত্যাচারের মামলা তাত্‍পর্যপূর্ণ মোড় নিল! বুধবার এই মামলায় সুপ্রিম কোর্টে সিবিআই জানাল, মুজফ্ফরপুরের হোমে মাটির তলায় পাওয়া হাড়গোড়গুলি কোনও মহিলার নয়৷ হারিয়ে যাওয়া ৩৫ জন মহিলাই জীবিত রয়েছে৷

সিবিআই-এর তরফে অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেনুগোপাল সুপ্রিম কোর্টে জানালেন, ওই শেল্টার হোমে খুনের অভিযোগের তদন্ত করছে সিবিআই৷ কিন্তু ওই হোমে সব বাসিন্দাদের জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে৷ কোনও খুন হয়নি৷ সিবিআই-এর দাবি, কেউ খুন হননি ওই শেল্টার হোমে৷

তা হলে উদ্ধার হওয়া হাড়গোড়গুলি কিসের? বেনুগোপাল জানিয়েছেন, ওই জায়গা থেকে উদ্ধার হওয়া হাড়গোড়গুলি পরীক্ষা করা হয়েছে৷ তাঁর কথায়, 'হাড়গোড়গুলি ফরেন্সিক ল্যাবে পাঠানো হয়েছিল৷ পরীক্ষায় দেখা গিয়েছে, কোনও নাবালিকা বা মহিলার হাড় নয়৷ কিছু হাড়গোড় একজন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষের, পেটের নীচের দিক থেকে৷ আরেকটি হল এক প্রাপ্তবয়স্ক মহিলার৷ কোনও নাবালিকার হাড়গোড় নেই৷'

২০১৮ সালের নভেম্বর মাসে টাটা ইনস্টিটিউট অব সোশ্যাল সায়েন্সেস-এর অডিটে মুজফ্‌ফরপুর-সহ বিহারের বেশ কয়েকটি হোমে আবাসিকদের মারধর ও যৌন নির্যাতনের ঘটনা সামনে আসে। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে ওই ঘটনাগুলি নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে সিবিআই। মুজফ্‌ফরপুরের ঘটনায় হোমের মালিক ও প্রভাবশালী হিসেবে পরিচিত ব্রজেশ ঠাকুর-সহ ২১ জনের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই চার্জশিট পেশ করেছে সিবিআই।

NIMHANSএ ওই হোমে উদ্ধার হওয়া নাবালিকাদের কাউন্সেলিং করা হয়েছে৷ তারাও জানিয়েছে, কাউকে খুন করা হয়নি৷ যদিও টাটা ইনস্টিটিউট অব সোশ্যাল সায়েন্সেস-এর অডিটে পাওয়া গিয়েছিল, কিছু নাবালিকা ও মহিলাকে ধর্ষণও করা হয়েছে হোমে৷

First published: January 8, 2020, 3:32 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर