উত্তরপ্রদেশে মুসলিমরাই সরকারি প্রকল্পের সবচেয়ে বেশি লাভবান, বললেন যোগী আদিত্যনাথ

উত্তরপ্রদেশে মুসলিমরাই সরকারি প্রকল্পের সবচেয়ে বেশি লাভবান, বললেন যোগী আদিত্যনাথ
যোগী আদিত্যনাথ

যোগী আদিত্যনাথের দাবি, তাঁর সরকার উন্নয়নমূলক স্কিমে কোনও ভেদাভেদ করে না৷ কিন্তু পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে, রাজ্যে মোট যত মুসলিম বাস করেন, সরকারি সুবিধার বেশির ভাগই তাঁরা ভোগ করেন৷

  • Share this:

#লখনৌ: অন্যান্য সরকারের আমলের চেয়ে বর্তমান সরকারের আমলেই উত্তরপ্রদেশে সরকারি উন্নয়নমূলক প্রকল্প সবচেয়ে বেশি ভোগ করেন মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ৷ Network18 গ্রুপের ইডিটর ইন চিফ রাহুল যোশীকে একটি এক্সক্লুসিভ সাক্ষাত্‍কারে জানালেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ৷

Loading...

যোগী আদিত্যনাথের দাবি, তাঁর সরকার উন্নয়নমূলক স্কিমে কোনও ভেদাভেদ করে না৷ কিন্তু পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে, রাজ্যে মোট যত মুসলিম বাস করেন, সরকারি সুবিধার বেশির ভাগই তাঁরা ভোগ করেন৷ উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, 'দেখুন, গরিব গরিবই৷ সরকারি প্রকল্প সকলের কাছে সমান ভাবে পৌঁছনো উচিত৷ আমাদের উদ্দেশ্যই হল, প্রত্যেককে সঙ্গে নিয়ে উন্নয়ন৷ ২০১৪ সালেই মোদিজি বলে দিয়েছিলেন, সবকা সাথ, সবকা বিকাশ৷ ওটা কোনও স্লোগান ছিল না, একেবারেই বাস্তব কথা৷ তৃণমূল স্তরে উন্নয়ন পৌঁছে দিতে পেরে আমরা গর্বিত৷'

মুসলিম যত বাস করেন উত্তরপ্রদেশে, সরকারি স্কিমের বেশির ভাগটাই তাঁদের কাছে পৌঁছয়৷ যোগী আদিত্যনাথের কথায়, 'পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে, দ্বিগুণ৷ গরিব মুসলিমদের সরকারি স্কিম প্রয়োজন, আমরা দিই৷ আমরা একটি মানদণ্ড নির্ণয় করেছি, সেই মানদণ্ডের মধ্যে যাঁরাই থাকবেন, তাঁরাই সরকারি স্কিম বেশি করে পাবেন৷ কোনও ভেদাভেদ নেই৷ আমাদের কাছে রাজ্যবাসীর স্বার্থ আগে৷'

উত্তরপ্রদেশে যোগী আদিত্যনাথের সরকারের আমলে মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষরা বঞ্চিত হচ্ছেন বলে বিরোধীরা বারবার অভিযোগ করেন৷ সেই পরিপ্রেক্ষিতে News18-কে তিনি বললেন, 'আমাদের সঙ্গে সবার সম্পর্ক সমান৷ হিন্দু হোক বা মুসলিম৷ জাতি ও ধর্মের ভিত্তিতে আমরা সমাজকে ভাগ করি না৷' ২০১৯ লোকসভা ভোটের আগে যোগী আদিত্যনাথের কিছু মন্তব্যে বিতর্ক তৈরি হয়৷ কেরলের মুসলিম লিগকে তিনি বলেছিলেন 'গ্রিন ভাইরাস', সেই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, 'পরিস্থিতিতে হয়তো কিছু মন্তব্য করে ফেলেছি৷ কিন্তু আমরা সাম্প্রদায়িকতা, গুণ্ডামিকে কখনওই প্রশ্রয় দিই না৷ ভবিষ্যতেও দেব না৷'

First published: 09:29:25 AM Sep 19, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर