‘শ্রী রাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্ট’-এ প্রথম অনুদান মোদি সরকারের

‘শ্রী রাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্ট’-এ প্রথম অনুদান মোদি সরকারের
ফাইল ছবি

ট্রাস্টের চেয়ারম্যান পদে থাকবেন বর্ষীয়ান আইনজীবী কে কে পরাসরন।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: বুধবার সংসদে প্রধানমন্ত্রী অযোধ্যায় রামমন্দির নিয়ে স্বাধীন ট্রাস্ট তৈরির কথা ঘোষণার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই গঠিত হয়ে যায় ১৫ সদস্যের ট্রাস্ট। সেই ট্রাস্টে প্রথম অর্থ সাহায্য করল নরেন্দ্র মোদি সরকার। কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে ট্রাস্টে ১ টাকা অনুদান দেওয়া হয়। রামমন্দির গঠন প্রসঙ্গে মোদি বলেছিলেন, এদেশের লক্ষ লক্ষ মানুষের মতো, এই বিষয়টি আমারও হৃদয়ের কাছাকাছি। এবং এই প্রসঙ্গে কথা বলাকে আমার কাছে বড় প্রাপ্তি।

ট্রাস্টের চেয়ারম্যান পদে থাকবেন বর্ষীয়ান আইনজীবী কে কে পরাসরন। আর আহ্বায়ক সদস্য হবেন অযোধ্যার জেলাশাসক অনুজ কুমার ঝা। অন্য সাত স্থায়ী সদস্য হলেন, জগৎগুরু শঙ্করাচার্য, জ্যোতিষ্পিতাধিশ্বর বাসুদেবানন্দ সরস্বতী মহারাজ (এলাহাবাদ), জগৎগুরু প্রসন্নতীর্থ মহারাজ (উদুপি), পরমানন্দজি মহারাজা (হরিদ্বার), স্বামী গোবিন্দগিরিজি মহানরাজ (পুনে), বিমলেন্দ্র মোহন প্রতাপ মিশ্র (অযোধ্যা), ড. অনিল মিশ্র (হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক) (অযোধ্যা), চিকিৎসক কমলেশ্বর চাউপল (পটনা) এবং মহান্ত ধীনেন্দ্র দাস নির্মোহী আখড়া।

২০১৯ সালের নভেম্বরে এক ঐতিহাসিক রায়ে শীর্ষ আদালত অযোধ্যায় বিতর্কিত জমিতে রামমন্দির গঠনের পক্ষে রায় দেয়। পাশপাশি এই মন্দিরের ট্রাস্ট গঠনেরও নিদের্শ দেওয়া হয়। এরপর দিল্লি ভোটের ঠিক দু’দিন আগে মোদির রাম-ঘোষণা। সরকারের সিদ্ধান্ত, ট্রাস্টের নাম হবে ‘শ্রী রাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্ট’।এই ট্রাস্ট অযোধ্যায় রামমন্দির তৈরি ও সেই সংক্রান্ত সব বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ৷ মোদি সরকারের সিদ্ধান্ত, রাম মন্দির গড়তে অধিগৃহীত ৬৭ একর জমি ট্রাস্টের হাতে তুলে দেওয়া হবে। মসজিদ গড়তে অযোধ্যাতেই ৫ একর জমি দেওয়া হবে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডকে।

অযোধ্যায় কেমন হবে রাম মন্দির ?

জানা গিয়েছে, দোতলা মন্দির চওড়ায় হবে ২৬৮ ফুট প্রথম। তার মধ্যে প্রথমতলার উচ্চতা ১৮ ফুট। দ্বিতীয়তলার উচ্চতা ১৫ দশমিক ৯ ফুট। থাকবে ২৪টি দরজা। গর্ভগৃহের উপর মূল চূড়ার উচ্চতা ৬৫.৩ ফুট। সব মিলিয়ে মন্দিরটি লম্বায় হবে ১২৮ ফুট। ট্রাস্ট গঠনের পর বুধবার টুইটারে মোদিকে অভিনন্দন জানান অমিত শাহ। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লেখেন, "শ্রীরাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্টে ১৫ জন ট্রাস্টি থাকবেন। ১৫ জন ট্রাস্টির মধ্যে সবসময়েই একজন হবেন দলিত সম্প্রদায়ের। এই সিদ্ধান্ত সামাজিক সৌহার্দ্যকে মজবুত করবে। প্রধানমন্ত্রীকে অনেক অভিনন্দন ।"

এদিকে, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণাকে সমর্থন জানান পাটনার প্রসিদ্ধ মহাবীর মন্দিরের প্রধান আচার্য কিশোর কুনাল। তিনি জানিয়েছেন, অয্যোধ্যার রামমন্দির নির্মাণের ট্রাস্টে তিনি ১০ কোটি টাকা দেবেন। যে টাকা বহু বছর ধরে জমা করেছে মহাবীর মন্দির কর্তৃপক্ষ।

First published: February 6, 2020, 9:14 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर