Mitron থেকে MX Takatak, চিনা অ্যাপকে মাত দিয়ে বাজার কাঁপাচ্ছে দেশি অ্যাপ

Mitron থেকে MX Takatak, চিনা অ্যাপকে মাত দিয়ে বাজার কাঁপাচ্ছে দেশি অ্যাপ
PUBG, Tik-Tok থেকে শুরু করে একাধিক অ্যাপ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় হতাশ হয়ে যায় দেশের নেটিজেনদের একাংশ। তবে এই সুযোগে বাজারে বাড়াতে শুরু করে দেশের অ্যাপগুলি। Mitron, Moj, FAUG থেকে শুরু করে নানা অ্যাপ চিনা অ্যাপগুলির বিকল্প হয়ে দাঁড়ায়

PUBG, Tik-Tok থেকে শুরু করে একাধিক অ্যাপ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় হতাশ হয়ে যায় দেশের নেটিজেনদের একাংশ। তবে এই সুযোগে বাজারে বাড়াতে শুরু করে দেশের অ্যাপগুলি। Mitron, Moj, FAUG থেকে শুরু করে নানা অ্যাপ চিনা অ্যাপগুলির বিকল্প হয়ে দাঁড়ায়

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: লাদাখে ভারত-চিন সীমান্ত সংঘর্ষের পর থেকেই চিনা অ্যাপ ও চিনা দ্রব্য বর্জনের বিষয়টি মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। সেই সূত্র ধরে তথ্য লেনদেন, তথ্য ফাঁস ও তথ্য চুরির যোগে একের পর এক অ্যাপ ব্যান করতে থাকে ভারত সরকার। সরকারের তরফে জানানো হয়, ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যাক্টের ৬৯ A ধারার অধীনে অ্যাপগুলি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এদিকে PUBG, Tik-Tok থেকে শুরু করে একাধিক অ্যাপ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় হতাশ হয়ে যায় দেশের নেটিজেনদের একাংশ। তবে এই সুযোগে বাজারে বাড়াতে শুরু করে দেশের অ্যাপগুলি। Mitron, Moj, FAUG থেকে শুরু করে নানা অ্যাপ চিনা অ্যাপগুলির বিকল্প হয়ে দাঁড়ায়। কিন্তু কোন পথে দেশি অ্যাপের ভবিষ্যৎ? বিশদে জেনে নেওয়া যাক!

বলা বাহুল্য, দেশের প্রতিটি জায়গায় এমনকি প্রত্যন্ত এলাকাতেও বেশ জনপ্রিয় অ্যাপ ছিল Tik-Tok। প্রথমে ১৫ সেকেন্ড, পরে ব্যবহারকারীদের জনপ্রিয়তার কথা মাথায় রেখে ৬০ সেকেন্ডের ভিডিও বানানোর ফিচার আসে এই অ্যাপে। শুধুমাত্র দেশের বাজারেই এই অ্যাপের ১১৯ মিলিয়ন ব্যবহারকারী ছিল। কিন্তু এই জনপ্রিয় অ্যাপ বন্ধ হওয়ার পর একাধিক অ্যাপ-প্রস্তুতকারী সংস্থা কোমর বেঁধে নেমে পড়ে। শূন্যস্থান পূরণ করার জন্য Josh, Mitron, Moj, MX Taka Tak-সহ নানা স্থানীয় অ্যাপ বাজার বাড়াতে শুরু করে। এমন সময়ে Instagram-এ ভিডিও রিল ফিচার আপডেট হয়। এর জেরে অনেক Tiktoker-ই Instagram-এ চলে যান।

জানুয়ারি মাসে Moj-এর তরফে জানানো হয়, Google Play Store-এ মাত্র ছয় মাসের মধ্যেই ১০০ মিলিয়ন ডাউনলোড পেরিয়ে যায় অ্যাপটির। সংস্থার দাবি, ডাউনলোডের নিরিখে শর্ট ভিডিও প্ল্যাটফর্মে রেকর্ড গড়েছে এই অ্যাপ। ব্যবহারকারীদের একাংশের বক্তব্যেও একই বিষয় স্পষ্ট। তাঁদের কথায়, অ্যাপের ক্রিয়েশন টুল, এডিটিং টুল, মিউজিক লাইব্রেরি, ক্যামেরা ফিল্টার ও স্পেশ্যাল এফেক্টস বেশ আকর্ষণীয়।


প্রসঙ্গত দিনকয়েক আগেই ২৬ জানুয়ারি লঞ্চ করল FAUG। PUBG ব্যান হওয়ার পর থেকেই দেশের তৈরি এই গেম নিয়ে জল্পনা শুরু হয়। গেমের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর অক্ষয় কুমার (Akshay Kumar) FAUG নিয়ে বেশ প্রচারও চালান। সূত্রে খবর, লঞ্চ হওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই তিন লক্ষ ডাউনলোড পেরিয়ে যায় গেমটির। তবে PUBG-র মতো রয়্যাল ব্যাটেল গেমকে টেক্কা দিতে পারেনি FAUG। টেক-এক্সপার্টদের কথায়, গেমটিতে গ্রাফিক্স-সহ একাধিক ত্রুটি রয়েছে।

অন্য দিকে, WhatsApp-এর নতুন পলিসি নিয়েও টানাপোড়েন জারি। এক্ষেত্রে Sandes নামে একটি অ্যাপ নিয়ে এসেছে ভারত সরকার। ইতিমধ্যেই এই গভর্নমেন্ট ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং সিস্টেম (GIMS) অ্যাপটি ব্যবহার করছেন সরকারের উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা। iOS ও অ্যান্ড্রয়েড দু'টি প্ল্যাটফর্মেই চলতে পারে এই Sandes অ্যাপ। অন্যান্য চ্যাটিং অ্যাপগুলির মতো এখানেও ভয়েস ও ডেটা মেসেজ সিস্টেম রয়েছে। অ্যাপটির নেপথ্যে রয়েছে তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রকের ন্যাশনাল ইনফরমেটিকস সেন্টার (NIC)।

সব মিলিয়ে স্থানীয় ও দেশের তৈরি অ্যাপগুলি ধীরে ধীরে বাজার বাড়াচ্ছে। এখন দেখার হাড্ডাহাড্ডি প্রতিযোগিতায় কতদূর যেতে পারে এই দেশি অ্যাপগুলি!

Published by:Rukmini Mazumder
First published:

লেটেস্ট খবর