Home /News /national /
২ মাসের শিশুকে স্তন্যপান করানোর আড়ালটুকুও কেড়েছে বিধ্বংসী আগুন! হাহাকার বাগবাজারে

২ মাসের শিশুকে স্তন্যপান করানোর আড়ালটুকুও কেড়েছে বিধ্বংসী আগুন! হাহাকার বাগবাজারে

হারিয়ে যাওয়া কিছু যে আর ফেরার নয়, তা হাড়ে-হাড়ে টের পাচ্ছেন পাপিয়ারা।

  • Share this:

SHALINI DATTA

#কলকাতা: শীতের রাতে বস্তির চোখ একটু যেন তখন ঘুমে জড়িয়ে এসেছিল। ঠিক সে সময়েই বাইরে চিৎকারটা এক ঝটকায় সব কিছু ওলটপালট করে দিল। "আগুন, আগুন চিৎকার শুনে কোনও রকমে বাচ্চাগুলোকে কোলে নিয়ে দৌড়েছি। কোথায় টাকাপয়সা, কোথায় জামাকাপড়, সে সব আর কিছুই খেয়াল ছিল না তখন। মাত্র আধঘণ্টা হবে। তার মধ্যেই চোখের সামনে সবকিছু পুড়ে খাক হয়ে গেল", কোনওরকমে শাড়ির আঁচলে বাঁধ না মানা চোখের জল মুছে বললেন বছর চল্লিশের মণ্ডল বৌদি। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ফুটপাথে বসে শুধুই কেঁদে যাচ্ছেন। নিজের ঝুপড়িটা খুঁজতে একবার বস্তিতে গিয়েছিলেন। কিছুই খুঁজে পাননি। আগ্রাসী আগুন সবকিছু মুছে দিয়েছে।

পাপিয়া মণ্ডলের অবস্থা আরও অসহায়। নিজে না হয় সকাল থেকে না খেয়েই রয়েছেন। কিন্তু দু'মাসের ছেলেটাকে নিয়ে কী করবেন! খিদের জন্য কাঁদতে কাঁদতে মায়ের কাঁধে নেতিয়ে পড়েছে বাচ্চাটা। ওকে খাওয়ানোর মতো আড়ালটুকুও কেড়ে নিয়ে গিয়েছে কাল রাতের সর্বগ্রাসী আগুন। পাপিয়ারা একা নন, বাগবাজারের ফুটপাথে হাজার হাজার মানুষ সর্বস্ব হারিয়ে এই শীতের রাতে এক্কেবারে অসহায় হয়ে বসে রয়েছেন ফুটপাথে। সকাল থেকেই নেতা-মন্ত্রীরা এসেছেন। এসেছেন মেয়র, মুখ্যমন্ত্রীও। যথাসম্ভব সাহায্যের আশ্বাসও দিয়েছেন তাঁরা। কিন্তু হারিয়ে যাওয়া কিছু যে আর ফেরার নয়, তা হাড়ে-হাড়ে টের পাচ্ছেন পাপিয়ারা।

কলকাতা পুরসভার ডেপুটি মেয়র অতীন ঘোষ বলেন, "আমরা চেষ্টা করছি যত দ্রুত সম্ভব এখানকার মানুষের জন্য ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব এবং একটি স্পেশ্যাল ক্যাম্প বসবে এই মানুষগুলো যে সব নথিপত্র পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে সে গুলো আবার পুনরায় তৈরি করে দেওয়ার জন্য। তবে সরকারি টাকা খরচের একটা প্রক্রিয়া আছে, সেটা করতে একটু সময় তো লাগবেই।"

মেয়র ফিরহাদ হাকিমের কথায়, "একটি কমিটি তৈরি হয়েছে। তাঁদের যত দ্রুত সম্ভব এখানকার মানুষের কী কী নথি প্রয়োজন, তার তালিকা তৈরি করে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। রিপোর্ট পেলে আমরা ক্যাম্প করে নথি মানুষের হাতে তুলে দেব।" বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা অবশ্য প্রশ্ন তুলেছেন অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা নিয়েই। তাঁর কথায়, "কলকাতায় গত কয়েক মাসে বিভিন্ন বস্তিতে আগুন লাগতে দেখা যাচ্ছে। এই আগুনের পিছনে অন্য কোনও রহস্য রয়েছে কি না, তা তদন্ত করে দেখা দরকার। অগ্নিকাণ্ড নিয়ে কোনও রাজনীতি হোক আমরা চাই না। এখানকার বাসিন্দাদের এখানেই যেন আবার ঘর করে দেওয়া হয়। সরকার না করে দিলে আমরা ওঁদের বাড়ি করে দেব।"

Published by:Simli Raha
First published:

পরবর্তী খবর