হাজার বাধা পেরিয়ে সবার অনুপ্রেরণা বিহারের এই কৃষক-রমণী, কেন জানেন?

হাজার বাধা পেরিয়ে সবার অনুপ্রেরণা বিহারের এই কৃষক-রমণী, কেন জানেন?

মঞ্জু দেবী, হাজার বাধা পেরিয়ে আজ সবার অনুপ্রেরণা বিহারের এই কৃষক-রমণী!

কে এই মঞ্জু দেবী? কী ভাবে পৌঁছেছেন সাফল্যের দোরগোড়ায়?

  • Share this:

#মুঙ্গের: দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে মহিলা সশক্তিকরণ নিয়ে প্রায়শই চর্চা হয়। সঠিক লক্ষ্যে যে এখনও কাজ বাকি, তা নিয়েও বিস্তর সমালোচনা চলে। তবে এই সব কিছুর মাঝে একদম অন্য পথের পথিক বিহারের মঞ্জু দেবী। জীবনের নানা প্রতিবন্ধকতা জয় করে আজ তিনি অন্যদের বাঁচার অনুপ্রেরণা জোগান। সফল হওয়ার স্বপ্ন দেখান। কে এই মঞ্জু দেবী? কী ভাবে পৌঁছেছেন সাফল্যের দোরগোড়ায়? আসুন জেনে নেওয়া যাক!

বিহারের মুঙ্গের জেলার মুধেরি নামে এক প্রত্যন্ত গ্রামের বাসিন্দা মঞ্জু দেবী। ছোট থেকে শিক্ষিকা হওয়ার স্বপ্ন ছিল। কিন্তু অল্প বয়সেই বিয়ে হয়ে যায়। তাই পরিবারের চাপে পড়ে সব স্বপ্ন কোথাও যেন হারিয়ে যায়। কিন্তু নিয়তি তার পরিকল্পনা মতো পথ খুঁজে নেয়। ব্যতিক্রম হয়নি মঞ্জু দেবীর ক্ষেত্রেও। সংসার নিয়ে সুখ-দুঃখে সময় কাটছিল। এমন সময় Oxfam India ও SEWA Bharat নামে দু'টি NGO সংস্থার তরফে বেশ কয়েকজন সদস্য আসেন গ্রামে। গ্রামের মানুষজনের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে মহিলা চাষিদের একটি গ্রুপ গড়ে তোলার চেষ্টা করেন। চাষে ফলন বাড়ানোর পদ্ধতি ও নানা প্রযুক্তি নিয়েও প্রশিক্ষণ দেওয়া শুরু হয়। বিষয়টি আকৃষ্ট করে মঞ্জু দেবীকে। ২০১৬ সালে NGO-এর সঙ্গে কথা বলে ওই গ্রুপে যোগ দেন তিনি।

প্রথম বছরেই সাফল্যের স্বাদ পান মঞ্জু। চাষবাস সংক্রান্ত নানা প্রযুক্তি ও পদ্ধতি শিখে প্রথম বছর টম্যাটো চাষ করেছিলেন। সেখান থেকে ১৫,০০০ টাকা উপার্জন করেন। সাফল্যের পাশাপাশি নতুন কিছু করার ইচ্ছে ও স্বাধীনতাও উঁকি দেয় তাঁর মনে। ধীরে ধীরে পরিচিতি বাড়তে থাকে। কয়েক মাসের মধ্যে জীবিকা-বিহার রুরাল লাইভলিহুডস প্রমোশন সোসাইটির (Jeevika- Bihar Rural Livelihoods Promotion Society) কমিউনিটি মোবিলাইজার হয়ে যান তিনি। চাষবাস নিয়ে স্থানীয়দের সাহায্য করতে শুরু করেন।

একটা সময় নিজের জমিও কিনে ফেলেন মঞ্জু। বর্তমানে সেখান থেকে বার্ষিক আয় ৬০,০০০-৮০,০০০ টাকা। নিজের চাষবাসের পাশাপাশি এলাকার মহিলাদের চাষবাস নিয়েও নানা ধরনের সাহায্য করেন। তাঁদের প্রযুক্তিগত পদ্ধতিগুলি শেখাতে শুরু করেন। এমন সময় SEWA Bharat ও Oxfam India-এর তরফে কর্ণভূমি ফার্মার প্রডিউসার কোম্পানি (Karnbhoomi Farmers Producer Company) গড়ে তোলা হয়। পরে এই FPC-এর প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন মঞ্জু দেবী। এখন গ্রামের মানুষের অন্যতম ভরসার জায়গা সবার প্রিয় মঞ্জু দেবী। মঞ্জু ইচ্ছে, তাঁর মতো যেন অন্য মেয়েরাও এগিয়ে আসেন। নিজেদের পায়ের মাটি শক্ত করেন।

শোভন চন্দ

First published:

লেটেস্ট খবর