পাড়ে দাঁড়িয়ে প্লাস্টিক ফেলা আটকাচ্ছেন তিনি!‌ গোদাবরী তীরের পরিবেশ যোদ্ধা ভাইরাল

সারা পৃথিবী জুড়েই জলভাগে পড়ে থাকা প্লাস্টিক দূষণ নিয়ে বারবার সরব হন পরিবেশবিদরা। কীভাবে নদীর নাব্যতা কমে যাচ্ছে এই প্লাস্টিকের প্রভাবে, কীভাবে জলের প্রাণীদের জীবন ঝুঁকির মুখে পড়ছে, তা বারবার তুলে ধরেছেন তাঁরা।

সারা পৃথিবী জুড়েই জলভাগে পড়ে থাকা প্লাস্টিক দূষণ নিয়ে বারবার সরব হন পরিবেশবিদরা। কীভাবে নদীর নাব্যতা কমে যাচ্ছে এই প্লাস্টিকের প্রভাবে, কীভাবে জলের প্রাণীদের জীবন ঝুঁকির মুখে পড়ছে, তা বারবার তুলে ধরেছেন তাঁরা।

  • Share this:

    দেশে চলছে উৎসবের মরশুম। আর সেই মরশুমেই সারা দেশে বাড়ে দূষণ। বায়ু দূষণ থেকে সমস্ত রকম দূষণই পরিবেশকে বিষিয়ে তোলে। দূষণের সেই বিভিন্ন দিকের মধ্যে অন্যতম হল নদী দূষণ। সারা পৃথিবী জুড়েই জলভাগে পড়ে থাকা প্লাস্টিক দূষণ নিয়ে বারবার সরব হন পরিবেশবিদরা। কীভাবে নদীর নাব্যতা কমে যাচ্ছে এই প্লাস্টিকের প্রভাবে, কীভাবে জলের প্রাণীদের জীবন ঝুঁকির মুখে পড়ছে, তা বারবার তুলে ধরেছেন তাঁরা। তবু মানুষের হুঁশ ফেরেনি। প্লাস্টিক দূষণের মাত্রা কমেনি বিন্দুমাত্র। আর সেখানেই, সেই লড়াইয়েই উল্টো সুর গাইছেন নাসিকের এক ব্যক্তি।

    ওই ব্যক্তির একটি ছবি ট্যুইট করেছেন একজন। সেই ছবিতে দেখা যাচ্ছে, ওই লোকটি গোদাবরী নদীর তীরে দাঁড়িয়ে আছেন। যেন ঢাল হয়ে রক্ষা করছেন নদীকে। আর কেউ প্লাস্টিক বর্জ্য নদীতে ফেলতে এলেই তাঁকে আটকাচ্ছেন। এভাবেই প্লাস্টিক দূষণের চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছে যাওয়া জলভাগকে রক্ষা করতে করতে গোদাবরীর পাড়ে তিনি জমিয়ে ফেলেছেন প্লাস্টিকের স্তুপ। আসলে সেই প্লাস্টিকগুলি নদীতে ফেলতে এসেছিলেন সাধারণ মানুষ। তাঁদেরকেই আটকেছেন এই মানুষটি। একেবারে নদীকে রক্ষা করার মতো করে। বাঁচিয়েছেন গোদাবরীকে।

    এই ব্যক্তির নাম চন্দ্রকিশোর পাতিল। তিনি এই প্রথম এমন করছেন, এমন কিন্তু নয়। তিনি একটি জাতীয় সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে জানিয়েছেন, শেষ পাঁচ বছর ধরে এই তকাজ করে চলেছেন। যাঁরা এই নদীর আশেপাশে থাকেন, তাঁরা শেষ কয়েকবছর ধরে দেখছেন পাতিলকে। তাঁরা জানেন, উৎসবের মরশুমে সাধারণত নদী প্রবল দূষণের মুখে পড়ে। আর সেই দূষণের মুখ থেকে রক্ষা করে চলেন পাতিল। পাঁচ বছর আগে তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, আজও সেই সিদ্ধান্তে অটুট আছেন। তিনি জানিয়েছেন, সকাল ১১টা থেকে তিনি নদীর পাশে দাঁড়িয়ে থাকেন। সঙ্গে থাকে একটি বাঁশি। তিনি বাঁশি বাজিয়ে বাজিয়ে বারবার সাধারণ মানুষকে সতর্ক করেন, যাতে তাঁরা নদীতে ময়লা না ফেলেন। অনেকে হয়ত তাঁর সঙ্গে খারাপ ব্যবহারও করে, তবু নিজের দায়িত্ব থেকে সরে জাননি তিনি।

    Published by:Uddalak Bhattacharya
    First published: