৩৭০ বাতিলের সিদ্ধান্ত নয়, পদ্ধতি মানতে পারছি না: মমতা

৩৭০ বাতিলের সিদ্ধান্ত নয়, পদ্ধতি মানতে পারছি না: মমতা
photo: Mamta on Kashmir
  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ৩৭০ ধারা বাতিল। জম্মু-কাশ্মীরকে ভাগ। যে পদ্ধতিতে মোদি সরকার এই সব সিদ্ধান্ত নিল তার বিরোধিতায় সরব হলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দাবি করলেন ওমর আবদুল্লা, মেহবুবা মুফতিদের মুক্তির। একই সুরে সরব রাহুল গান্ধিও।

সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করে জম্মু-কাশ্মীরের থেকে বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করে নিয়েছে মোদি সরকার। ভূস্বর্গকে দু’ভাগে ভাগও করা হচ্ছে। এতে দেশ জুড়ে তোলপাড়। যা নিয়ে মঙ্গলবার মুখ খুললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মমতা বলেন, ওঁরা সব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা করতে পারতেন। ওঁদের কাশ্মীরের লোকজনকেও ডাকা উচিত ছিল। বৈঠক ডাকতে পারতেন, আমরা যাওয়ার জন্য রাজি ছিলাম। আলোচনার মাধ্যমে সবাইকে সহমতে এনে তারপর সিদ্ধান্ত নেওয়া যেত।

সোমবার, রাজ্যসভায়, ৩৭০ ধারা রদ করে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা তুলে নেওয়ার প্রস্তাব দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এর তীব্র বিরোধিতা করেন তৃণমূল সাংসদরা। অধিবেশন থেকে ওয়াকআউটও করেন তাঁরা। কিন্তু, এ নিয়ে সোমবার কোনও মন্তব্য করেননি মমতা। মঙ্গলবার অবশ্য বুঝিয়ে দেন, যে পদ্ধতিতে প্রস্তাব পাস করানো হয়েছে তাতে তাঁর আপত্তি রয়েছে।

তিনি বলেন, গতকাল থেকে যা ঘটছে, ভারতের বাকি নাগরিকদের মতো আমিও নজর রাখছিলাম। আমি বিশ্বাস করি কাশ্মীরের বাসিন্দারাও আমাদের ভাইবোন। আমি এই সিদ্ধান্তের বিষয়বস্তুর কথা বলছি না। কিন্তু আমি পদ্ধতির সঙ্গে আমি একমত নই। আমাদের  দল কঠোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আমরা এই বিলকে সমর্থন করতে পারি না। আমরা ভোট দিইনি, কারণ তাতে সংসদে রেকর্ড হয়ে থাকবে। সাংবিধানিক, আইনিগত এবং পদ্ধতিগত ভাবে এটা প্রশংসনীয় নয়। এটা গণতান্ত্রিক ভাবেও করা হয়নি।

Loading...

মমতা আরও বলেন, জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে গত কয়েকদিন ধরেই তৎপর মোদি সরকার। তাতেই জল্পনা তৈরি হয় উপত্যকায় কী হতে চলেছে। শেষমেশ সোমবার সংসদে প্রস্তাব পেশ। জম্মু-কাশ্মীরে বাড়তি সেনা ও আধাসেনা পাঠানো হয়। প্রাক্তন দুই মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা এবং মেহবুবা মুফতিকে গ্রেফতারও করা হয়েছে। আরেক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা ন্যাশনাল কনফারেন্সের চেয়ারম্যান ফারুখ আবদুল্লার দাবি, তাঁকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে। এ সবের বিরোধিতাতেও এ দিন সরব হয়েছেন মমতা। দাবি করেছেন ওমর আবদুল্লাদের মুক্তির।

"ফারুক আবদুল্লা কোথায় আছেন, ওমর আবদুল্লার কোনও খবর নেই। সংবাদ মাধ্যমে জেনেছি ওমর আবদুল্লা, মেহবুবা মুফতিদের গ্রেফতার করা হয়েছে। সরকারের কাছে আমার আবেদন, ওঁরাও আমাদের ভাই-বোন। ওঁরা যেন নিজেদের বিচ্ছিন্ন না ভাবে। ওঁরাও ভারতীয়। ওঁরা কেউ জঙ্গি নন। গণতন্ত্রের স্বার্থেই ওঁদের মুক্তি দেওয়া উচিত।"

জম্মু-কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতাদের মুক্তির দাবিতে সরব হয়েছেন রাহুল গান্ধিও। কাশ্মীরের মূলধারার রাজনৈতিক নেতাদের গোপন এলাকায় জেলে বন্দি করে রাখা হয়েছে। এটা অসাংবিধানিক এবং অগণতান্ত্রিক। এতে অদূরদর্শিতা আর নির্বুদ্ধিতাই প্রকাশ পায়। কারণ, ভারত সরকার মূলধারার নেতাদের গ্রেফতার করায় যে শূন্যস্থান তৈরি হবে সেটা দখল করবে জঙ্গিরা। বন্দি নেতাদের মুক্তি দিতেই হবে।

First published: 02:19:29 PM Aug 07, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर