• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • MAHARAJA PRADYOT KISHORE MANIKYA STRONGLY CONDEMNS THE ATTACK ON ABHISHEK CONVOY SANJ

Maharaja Pradyot Kishore Manikya : অভিষেকের কনভয়ে হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা মহারাজা প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্যের...

নিন্দায় মুখর মহারাজা

Maharaja Pradyot Kishore Manikya : ত্রিপুরার ঐতিহ্য, সংস্কৃতি নষ্ট হচ্ছে বলে ইতিমধ্যেই অভিযোগ করেছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়(Abhishek Banerjee)। সেই প্রশ্নে সহমত পোষণ করেছেন মহারাজ প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য৷

  • Share this:

#আগরতলা : ত্রিপুরায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের(Abhishek Banerjee) গাড়ির ওপরে হামলার ঘটনায় নিন্দা প্রকাশ করলেন ত্রিপুরার রাজ পরিবারের সদস্য, তিপ্রামোথার সুপ্রিমো মহারাজ প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য (Maharaja Pradyot Kishore Manikya)। ত্রিপুরার ঐতিহ্য, সংস্কৃতি নষ্ট হচ্ছে বলে ইতিমধ্যেই অভিযোগ করেছেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়(Abhishek Banerjee)। সেই প্রশ্নে সহমত পোষণ করেছেন মহারাজ৷ তাঁর কথায়, গত ৪০ বছর ধরে ত্রিপুরার গৌরব আর ঐতিহ্য নষ্ট হয়েছে। ত্রিপুরায় বিকল্প সন্ধান করছে বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি। সেখানে সাম্প্রতিক সময়ে স্বশাসিত জেলা পরিষদের ভোটে বিপুল সাফল্য এনে দিয়েছেন প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য। কারণ প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্যের গ্রেটার তিপ্র‍্যাল্যান্ড ইস্যু।

স্বশাসিত জেলার ভোটে বিজেপিকে ও তাদের জোট অংশীদার IPFT ভোটে ব্যাপক ভাবে পরাস্ত হয়েছে। সেখানে প্রদ্যোত মাণিক্য উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়(Abhishek Banerjee) ত্রিপুরায় গিয়ে জানিয়ে এসেছেন, বিজেপি বিরোধী সব শক্তিকে একজোট হতে হবে। তাহলে কী সেই জোটে হাত মেলাবে তিপ্রামোথা? প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য জানাচ্ছেন, "বামেরা ছাড়া সকলের সাথে জোট হতে পারে। কোনও ভাবেই আমরা বামেরা যেদিকে থাকবে সেদিকে যাব না।"

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় অবশ্য সরাসরি বামেদের সাথে জোট নিয়ে তাঁর আপত্তির কথাও জানিয়েছেন। তিনি আহ্বান করেছেন, বাম মনস্ক ব্যক্তিদের যারা বিজেপি বিরোধীতায় সরব। কিন্তু সাহায্য চাইলেও মেলে না পাশে দাঁড়ানোর মত কাউকে৷ ত্রিপুরা রাজ্যের আনাচে কানাচে এখন গ্রেটার তিপ্র‍্যাল্যান্ডের দাবি। বিজেপির অংশীদার ২০১৮ সালের ভোটে ই PFT ক্ষমতায় আসে তিপ্র‍্যাল্যান্ড ইস্যু নিয়ে। কিন্তু সরকারে থাকার ৩ বছর হয়ে গেলেও চুপ বিজেপি-IPFT সরকার। প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য সেটাকেই উসকে দিয়ে গ্রেটার তিপ্র‍্যাল্যান্ডের দাবি উসকে দিয়েছে।

হিসাব বলছে ত্রিপুরায় ৩১% জনজাতি ভোট। ৬৯% ভোট বাঙালি ভোট। এই জনজাতি ভোট ত্রিপুরার ২০ বিধানসভা আসনে সংরক্ষিত। যার ওপর সরকার গঠন নির্ভর করে৷ একটা সময় জনজাতিদের ভোট ছিল বামেদের দিকে। পরবর্তী সময়ে বামেদের সেই ভোট চলে যায় IPFT এর দিকে। কিন্তু সরকারে আসার পরে তিপ্র‍্যাল্যান্ডের দাবি নিয়ে চুপ বিজেপি৷ তাই দোটানায় IPFT..স্বশাসিত জেলা পরিষদের ভোটের আগে এই নিয়ে সরব হয়েছিল তারা। কিন্তু অজানা কারণে ফের সে চুপ। আর এই জনজাতি ভোটকে হাতিয়ার করেই এগোচ্ছে প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য।

কংগ্রেস বলছে প্রদ্যোত আমাদের বন্ধু। ডিসেম্বরেই আপনারা সব দেখতে পাবেন। তৃণমূল বলছে ত্রিপুরার মানুষের দাবি নিয়ে আমরা কথা বলতে চাই।বিজেপি বলছে অখণ্ড ভারত। কিছু শক্তি সক্রিয় রয়েছে অশান্তি করতে। তাদের থেকে সচেতন থাকতে হবে। সব মিলিয়ে ত্রিপুরায় ফের নজরে প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য। আর তার হাত কে ধরবেন তাই নিয়েই জোর চর্চা।

বিজেপি নেতা নব্যেন্দু ভট্টাচার্য বলছেন, আমরা মনে করি জনজাতি ভাইবোনেরা আমাদের থেকে আলাদা নয়।আমরা অখণ্ড ভারত গড়ার পক্ষে। সেখানে গ্রেটার তিপ্রাল্যান্ডের বিষয় একটা লঘু ব্যাপার। মানেই রাখে না কোনও। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের একাধিক দাবি-দর্শন আছে। কিছু রাজনৈতিক দল তাদের মতাদর্শের কথা বলতে পারে। আমরা ভারতীয়তায় বিশ্বাস করি। সমগ্র দেশে অখণ্ড ভারতে একই সংস্কৃতি এটা মনে করি। কারও নিজস্ব দাবি রাখতে পারে। আমাদের নিজস্ব মতাদর্শ আছে। এই সব ছোটখাটো বিষয় সেভাবে দেখছি না। জনজাতিদের আলাদা মনে করি না। সংস্কৃতি নষ্ট করতে কিছু শক্তি সক্রিয় আছে। তাদের থেকে সাবধান থাকতে হবে।

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ বলছেন, আমরা তো বাংলা থেকে এসে সরকার চালাব না। এখানকার মানুষ সরকার চালাবে৷ দিল্লি বা বাংলা থেকে রিমোট কন্ট্রোলে সরকার চলবে না৷ অবশ্যই আমরা তাই এখানকার মানুষ নিয়ে কথা বলব। আমাদের তরফে খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে। অন্যদিকে, পীযুষ বিশ্বাস, ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি বলছেন, ডিসেম্বর মাসেই সব পরিষ্কার হয়ে যাবে। আর যাকে নিয়ে এত চর্চা সেই  মহারাজা প্রদ্যোত কিশোর মাণিক্য তিপ্রামোথা সুপ্রিমো বলছেন, আমার সাথে সবার সম্পর্ক ভাল। কিন্ত তিপ্র‍্যাল্যান্ড নিয়ে আমি কমপ্রোমাইজ করতে পারব না। অনেকে বঞ্চনা করা হয়েছে জনজাতিদের। আর সহ্য করা হবে না।

Published by:Sanjukta Sarkar
First published: