দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

চাল থেকে ওষুধ- দেশের নামী সংস্থার গোপন খবর, চোখ কপালে তুলে দেবে!

চাল থেকে ওষুধ- দেশের নামী সংস্থার গোপন খবর, চোখ কপালে তুলে দেবে!

অবশ্যই আপনার চোখ রাখা উচিত । কারণ তথ্যগুলো কিন্তু সুবিধের নয়!

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: আমরা নই, এ খবরের সবক'টা দিকই সম্প্রতি তাদের প্রতিবেদনে জাহির করেছে মানি কন্ট্রোল! আর তথ্যগুলো কিন্তু সুবিধের নয়!

১. শাহ কা রুতবা এই তো গত মাসের ঘটনা, মিউচুয়াল ফান্ড ইন্ডাস্ট্রিতে এই নিয়ে দ্বিতীয় বার সিইও-র কুর্সিটা দখল করেছিলেন এই ভদ্রলোক! কিন্তু গোপন খবর বলছে যে এর মধ্যেই তাঁর সঙ্গে না কি সংস্থার দারুণ খিটিমিটি বেঁধে গিয়েছে। আর তার জেরে উনিও না কি আপাতত পিছিয়ে এসেছেন কয়েক কদম! কিন্তু কুর্সি কি আর খালি থাকে? তাই খবর বলছে যে সংস্থা ইতিমধ্যেই না কি এক যোগ্য প্রতিদ্বন্দ্বী খুঁজে নিয়েছে! এ বার শুধু দেখার শেষ পর্যন্ত কী হয়!

২. বয়স বাড়লে ক্ষমতা কমে তা তো বটেই! তবে বাজারের গোপন খবর এ কথা শারীরিক কর্মক্ষমতার প্রসঙ্গে বলছে না। বলছে যে এক ব্যাঙ্ক না কি তার সিইও খোঁজার তালিকায় প্রথমে বয়সসীমা ৫৮ বললেও পরে তা বদলে ৬৩ করে দিয়েছে। এ দিকে বর্তমান সিইও, যাঁর বয়স ৬১-র কাছাকাছি এবং ব্যাঙ্কের সঙ্গে যাঁর সম্পর্ক মোটে মধুর নয়, তিনি পড়েছেন ফাঁপরে! আপনার কি মনে হচ্ছে ওঁকে তাড়ানোর জন্যই সংস্থা এমনটা করল?

৩. নেটওয়ার্কে বদল কে না জানেন, গুডস অ্যান্ড সার্ভিস ট্যাক্স নেটওয়ার্ক ওরফে GSTN এক স্বয়ংশাসিত সংস্থা। তো, খবর বলছে যে তার এক কর্তাব্যক্তি না কি ডেলয়েটে কাজ খুঁজে নিয়েছেন। ওই শূন্যস্থানে এখন এসে বসেছেন সরকারের অর্থমন্ত্রকের এক কর্তা। তা হলে এ বার GSTN ভুল করলে সরকার দোষ দেবে কাকে?

৪. কিসসা কুর্সি কা জোর খবর- উত্তুরে হাওয়া বইতে শুরু করল কি না করল, দেশের দক্ষিণ থেকেও ভেসে এল বদলি হাওয়া! শোনা যাচ্ছে ওখানকার এক দাপুটে সংস্থা, যার মূল বর্মায় এবং যার অধীনে রয়েছে আরও বেশ কিছু সংস্থা, তার কর্ণধার না কি অবসর নিতে চলেছেন। প্রশ্ন হল, এ বার তাঁর কুর্সিটা দখল করবেন কে? শিগগিরি জানাব আমরা, ততক্ষণ সবুর করুন!

৫. আখেরে নাস্তি কিছু দিন আগেই এক জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ ছেয়ে গিয়েছিল প্রচারে- দেশের এই সব চেয়ে বড় ইনিশিয়াল পাবলিক অফারিং সংস্থা না কি শেয়ার বেচে দিতে চলেছে! শেষ পর্যন্ত তার আর কোনও লক্ষণ দেখা গেল না ঠিকই, তবে এমন গুজব রটাল কে? না কি খবরটা সত্যিই ছিল, কোনও কারণে সংস্থাই পিছিয়ে গেল শেষ পর্যন্ত?

৬. কার ঘরে হাসিমুখ? দিন কয়েক আগেই জানা গিয়েছিল যে এক আন্তর্জাতিক ইক্যুইটি ফার্ম হাউজ ফিনান্সিংয়ের ক্ষেত্রে কোনও রকম ডিপোজিট ছাড়াই দারুণ এক স্কিম নিয়ে আসছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত দেশের সংস্থাই বাজিমাত করল এক স্কিম দিয়ে। শোনা যাচ্ছে যে তারা না কি আগামী বছরের জানুয়ারিতে এই স্কিম চালুও করে দেবে! খবর ছড়িয়ে পড়ার এই এক বিপদ- কে কখন ক্রেডিট নিয়ে নেয়, বলা মুশকিল!

৭. কত ধানে কত চাল সে কথা এ বার দেশের এক বাসমতী প্যাকেজিং সংস্থা অন্যদের বুঝিয়ে দিয়েছে। খবর বলছে যে করোনাকালে প্যাকেজড খাদ্যশস্যের চাহিদা বেড়েছে বলে এই সংস্থা তার বেশ কিছু চালের প্যাকেটে প্রতিযোগীদের মুখ চুন করে দেওয়ার মতো পরিবর্তন আনছে। ব্যাপারটা কী? প্যাকেটে চাল বাড়ছে না দাম কমছে? দেখা যাক!

৮. ওযুধ নিয়ে কারচুপি খবরে প্রকাশ, দেশের এক বিখ্যাক ওষুধপ্রস্তুতকারী সংস্থার গোপন তথ্য না কি কিছু দিন আগেই হ্যাকারের পাল্লায় পড়েছিল। হ্যাকার বলেছিল, টাকা না দিলে তারা মুখ খুলবে, ফাঁস করে দেবে সংস্থার সব কারচুপি! ভেজাল ওষুধ বিক্রি হচ্ছিল না কি?

৯. আ ফ্রেন্ড ইন নিড খবর মোতাবেকে, এক মাল্টিন্যাশনাল সংস্থার অ্যাডভাইজরি বোর্ডে না কি এক ভারতীয়কে বহাল করা হয়েছিল। ওই ভারতীয়র আবার আইনগত ক্ষেত্রে বেশ দাপট আছে। তার পর? জানা গিয়েছে যে ওই ব্যক্তির ট্রাইব্যুনালে এক কেস ওঠায় তিনি রায় দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট সংস্থার ক্ষেত্রে! এটা তো হওয়ারই ছিল, তাই না?

১০. লাল বাতি জ্বলল বলে খবরটা খারাপই- দেশের এই অ্যাপ-বেসড লেন্ডিং সংস্থা না কি কিছুতেই আর লাভের মুখ দেখছে না। লোকসান টানতে না পেরে তারা এ বার মালিকানা তুলে দিচ্ছে অন্যের হাতে, হয় কোনও ব্যাঙ্ক, নয় তো প্রাইভেট ইক্যুইটি ফান্ড এ বার দায়িত্ব নেবে! দেখা যাক, কে কেনে এই সংস্থা!

Published by: Simli Raha
First published: November 9, 2020, 12:40 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर