লোকসভায় পাস তিন তালাক বিল, ওয়াক আউট কংগ্রেসের

লোকসভায় পাস তিন তালাক বিল, ওয়াক আউট কংগ্রেসের

ছবিটি প্রতীকী ও সংগৃহীত

চলতি বছরের সেপ্টেম্বরেই তিন তালাক নিয়ে অর্ডিন্যান্স জারি করে কেন্দ্র। ৬ মাসের মধ্যেই সংসদে পাস না হলে, অর্ডিন্যান্সের মেয়াদ অতিক্রান্ত হবে। হিন্দি বলয়ে ভোটে ভরাডুবির পর ২০১৯ লোকসভা ভোটের আগে চাপে টিম মোদি।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: লোকসভায় পাস হয়ে গেল তিন তালাক বিল৷ বৃহস্পতিবার দীর্ঘ বিতর্কের পর ভোটাভুটিতে পাস হল এই ঐতিহাসিক বিল৷ তুমুল হইহট্টগোলের মধ্যে সংসদ থেকে ওয়াক আউট করে কংগ্রেস ও AIADMK৷ তাদের দাবি, বিলটি রাজনৈতিক ভাবে সংবেদনশীল৷ কংগ্রেসের বক্তব্য, এই বিলটি এনে ধর্মীয় ব্যাপারে নাক গলিয়েছে সরকার, যা উচিত নয়। সরকারের তরফে জানানো হয়, গত বছরই সুপ্রিম কোর্ট তিন তালাক প্রথাকে অসাংবিধানিক বলেছিল।

    লোকসভায় পাস তিন তালাক বিল লোকসভায় পাস তিন তালাক বিল

    চলতি বছরের সেপ্টেম্বরেই তিন তালাক নিয়ে অর্ডিন্যান্স জারি করে কেন্দ্র। ৬ মাসের মধ্যেই সংসদে পাস না হলে, অর্ডিন্যান্সের মেয়াদ অতিক্রান্ত হবে। হিন্দি বলয়ে ভোটে ভরাডুবির পর ২০১৯ লোকসভা ভোটের আগে চাপে টিম মোদি। এই পরিস্থিতিতেই ড্যামেজ কন্ট্রোলে মোদি সরকারের তুরুপের তাস হতে পারে তিন তালাক বিল।

    বিলটির যাতে অপব্যবহার না হয়, সেই লক্ষ্যে লোকসভায় পেশ করার জন্য বিলটিতে তিনটি সংশোধন করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। প্রথমত, স্বামীর বিরুদ্ধে একমাত্র স্ত্রী বা তাঁর ঘনিষ্ঠ আত্মীয়ই পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ জানাতে পারবেন। দ্বিতীয়ত, মামলা শুরু পর স্বামী, স্ত্রীর মধ্যে ফের সমঝোতা হয়ে গেলে স্ত্রী সেই মামলা তুলেও নিতে পারবেন। তৃতীয়ত, একমাত্র স্ত্রীর বক্তব্য শুনেই অভিযুক্ত স্বামীকে জামিন দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেবেন ম্যাজিস্ট্রেট।

    তিন তালাক বিল আইন হয়ে গেলে জামিন-অযোগ্য ফৌজদারি অপরাধের তকমা পাবে তিন তালাক প্রথা। সে ক্ষেত্রে অভিযুক্ত স্বামীর শাস্তি হবে তিন বছর পর্যন্ত জেল ও জরিমানা। আর স্ত্রী পাবেন ভরনপোষণ ও খোরপোষ৷ বিতর্ক চলাকালীন কংগ্রেস সাংসদ সুস্মিতা দেব বলেন, 'তিন তালাক বিল মুসলিম মহিলাদের শক্তিশালী করার উদ্দেশ্যে তৈরি করা হয়নি৷ আসলে মুসলিম পুরুষদের শাস্তি দেওয়াই এই বিলের উদ্দেশ্য৷'

    বিরোধী দাবিকে উড়িয়ে কাউন্টারে কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবি শংকর প্রসাদ বলেন, 'এই বিল কোনও ধর্ম বা ধর্মীয় বিশ্বাসের বিরুদ্ধে নয়৷ এই বিল মহিলাদের ন্যায় বিচার ও সমান অধিকার দানের জন্য৷ আমরা অর্ডিন্যান্স এনেছিলাম, কারণ, ভারতে এখনও বহু জায়গায় তাত্‍‌ক্ষণিক তিন তালাক প্রথা চলছে৷'

    First published: