corona virus btn
corona virus btn
Loading

গৃহপ্রবেশে বাড়ি ফেরা হয়নি! ছেলেকেও সেনাবাহিনীতে পাঠানোর স্বপ্ন দেখতেন লাদাখের শহিদ জওয়ান

গৃহপ্রবেশে বাড়ি ফেরা হয়নি! ছেলেকেও সেনাবাহিনীতে পাঠানোর স্বপ্ন দেখতেন লাদাখের শহিদ জওয়ান
শহিদ সেনা জওয়ান কে পাঝানি৷

দু' দশক ধরে ছেলের জন্য দুশ্চিন্তায় দিন কাটত পাঝানির বৃদ্ধ বাবা মায়ের৷ অনেকবারই তাঁর বাবা অবসর নিয়ে গ্রামে ফিরে আসার জন্য ছেলেকে পরামর্শও দিয়েছিলেন৷

  • Share this:

#তামিলনাড়ু: নতুন বাড়িতে গৃহপ্রবেশ, সঙ্গে জন্মদিন উদযাপন৷ দুটোর কোনওটাই করা হলো না লাদাখে শহিদ সেনা জওয়ান কে পাঝানির৷ সবকিছু ঠিকঠাক চললে হয়তো এই জুন মাসেই ছুটি নিয়ে তামিলনাড়ুর বাড়িতে ফিরতেন তিনি৷ কিন্তু তার বদলে এখন পাঝানির কফিন বন্দি দেহের অপেক্ষায় তাঁর পরিবার৷

সোমবার লাদাখে চিনা সেনার সঙ্গে সংঘর্ষে প্রাণ হারান হাবিলদার পদে কর্মরত ছিলেন পাঝানি৷ শেষবার জানুয়ারি মাসে তামিলনাড়ুর রামনাথপুরমের বাড়িতে ছুটি কাটাতে এসেছিলেন তিনি৷ তখনই বলেছিলেন, আবার জুন মাস নাগাদ ছুটি নিয়ে বাড়ি ফিরবেন৷ এ বার ফিরে নতুন বাড়ির গৃহপ্রবেশ অনুষ্ঠান সারার পরিকল্পনাও ছিল৷ একই সঙ্গে তাঁর জন্মদিন উদযাপনের পরিকল্পনাও করেছিলেন পরিবারের সদস্যরা৷কিন্তু জুন মাসের শুরুতেই ফোনে ওই সেনা জওয়ান  ফোনে পরিবারকে জানান, কিছু সমস্যার জন্য তিনি ফিরতে পারছেন না৷ যদিও গোপনীয়তা বজায় রাখার স্বার্থেই বিশদে পরিবারকে কিছু জানাননি তিনি৷

শহিদ জওয়ানের স্ত্রী ভানাথি দেবী জানান, তাঁর স্বামী তাঁকে শুধু জানিয়েছিলেন, নতুন একটি দায়িত্ব পাওয়ায় খুব তাড়াতাড়ি ছুটি পাবেন না তিনি৷ স্ত্রী জোরাজুরি করায় শুধু বলেছিলেন, লাদাখে সমস্যা বাড়ছে৷

মঙ্গলবার যখন পাঝানির বাড়িতে সংবাদমাধ্যম এবং প্রতিবেশী ও আত্মীয়দের ভিড়, তখনও তাঁর দশ বছরের ছেলে এবং ৮ বছরের মেয়ে খেলা করছিল৷ তাদের জীবনে কত বড় বিপর্যয় ঘটে গিয়েছে, তা বুঝে পারেনি ওই সেনা জওয়ানের দুই শিশু সন্তান৷ পাঝানির ভাইও সেনাবাহিনীতেই কর্মরত রয়েছেন৷ তিনিই পরিবারের বাকি সদস্যদের এই দুঃসংবাদ জানান৷

পেশায় একজন কৃষকের সন্তান পাঝানি ২১ বছর ধরে সেনাবাহিনীতে ছিলেন৷ মাত্র ১৮ বছর বয়সে চাকরিতে যোগ দেন তিনি৷ পাঝানি আসতে পারবেন না বুঝে এ মাসের ৩ তারিখ গৃহপ্রবেশের অনুষ্ঠান সেরে নেয় তাঁর পরিবার৷

দু' দশক ধরে ছেলের জন্য দুশ্চিন্তায় দিন কাটত পাঝানির বৃদ্ধ বাবা মায়ের৷ অনেকবারই তাঁর বাবা অবসর নিয়ে গ্রামে ফিরে আসার জন্য ছেলেকে পরামর্শও দিয়েছিলেন৷ কিন্তু পাঝানি তা শোনেননি৷ বরং কথা দিয়েছিলেন, এ বছর গৃহপ্রবেশের অনুষ্ঠানে আসতে না পারলেও আগামী বছর ছুটি নিয়ে বাড়ি ফিরবেনই তিনি৷

পাঝানি স্বপ্ন দেখতেন, তাঁর ছেলে প্রসন্নও সেনাবাহিনীতে যোগ দেবে৷ তবে তাঁর থেকে আরও উঁচু কোনও পদে৷ সেই স্বপ্নপূরণও অধরাই রয়ে গেল তাঁর কাছে৷ বুধবার পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় নিজের গ্রামেই তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে৷

Inputs: Veerakumaran P

 
Published by: Debamoy Ghosh
First published: June 17, 2020, 1:00 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर