• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • নতুন কৃষি আইন বাতিলের দাবি, সুপ্রিম কোর্টে দায়ের হল মামলা

নতুন কৃষি আইন বাতিলের দাবি, সুপ্রিম কোর্টে দায়ের হল মামলা

দিল্লিতে ইন্ডিয়া গেটের সামনে ট্র্যাক্টর পুড়িয়ে কৃষকদের বিক্ষোভ৷ Photo-PTI

দিল্লিতে ইন্ডিয়া গেটের সামনে ট্র্যাক্টর পুড়িয়ে কৃষকদের বিক্ষোভ৷ Photo-PTI

অন্যদিকে পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং জানিয়েছেন, তাঁর সরকারও নতুন এই তিনটি কৃষি আইনের বিরুদ্ধে শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হবে৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: নতুন তিনটি কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে এবার মামলা দায়ের হল সুপ্রিম কোর্টে৷ কেরলের কংগ্রেস সাংসদ টি এন প্রথাপন এই আইনগুলিকে সংবিধান বিরোধী বলে অভিযোগ করে শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন৷ পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিংও জানিয়েছেন, তাঁর সরকারও নতুন কৃষি আইনের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হবেন৷

    রবিবারই সদ্য সংসদে পাশ হওয়া দ্য ফার্মার্স (এমপাওয়ারমেন্ট অ্যান্ড প্রোটেকশন) এগ্রিমেন্ট অফ প্রাইস অ্যাসিওরেন্স অ্যান্ড ফার্ম সার্ভিসেস বিল ২০২০-তে সই করেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ৷ এই আইন কার্যকর হলে উৎপাদিত কৃষিপণ্য মার্কেটিং কমিটির অবলুপ্তি ঘটবে৷ ব্যবসায়ীরা যাতে কোনও ভাবে কৃষকদের না ঠকাতে পারেন এবং বাজারে উৎপাদিত পণ্যের দামও যাতে লাগামহীন ভাবে না বাড়ে, সেই দায়িত্ব থাকে এই কমিটির উপরেই৷

    সুপ্রিম কোর্টে দায়ের করা আবেদনে কংগ্রেস সাংসদ দাবি করেছেন, নতুন এই কৃষি আইন কার্যকর হলে কৃষকদের জীবনে বিপর্যয় নেমে আসবে৷ কারণ এর ফলে সমান্তরাল বাজারের সৃষ্টি হবে যা নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা থাকবে শুধুমাত্র কয়েকজন পুঁজিপতি এবং কর্পোরেটদের হাতে৷ আরও অভিযোগ করা হয়েছে, নতুন এই বিল সংবিধানেরও পরিপন্থী৷ কারণ এই আইনের প্রস্তাব অনুযায়ী কোনও বিবাদ সৃষ্টি হলে তার নিষ্পত্তির জন্য আদালত নয়, সাব ডিভিশনাল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছেই আবেদন জানাতে পারবেন কৃষকরা৷

    কংগ্রেস সাংসদ আরও অভিযোগ করেছেন, নতুন আইনে মজুতদারির ঊর্ধ্বসীমা উঠে যাওয়ায় কৃত্রিম চাহিদা তৈরি করা হবে৷ রপ্তানিকারী এবং ব্যবসায়ীরাই মজুত করে রাখা ফসলের দাম নির্ধারণ করবেন৷ যার ফলে বাজারে লাগামহীন ভাবে বাড়বে সব্জি বা খাদ্যশস্যের দাম৷ উৎপাদিত কৃষিপণ্য মার্কেটিং কমিটির অবলুপ্তি না ঘটিয়ে বরং কৃষকদের স্বার্থে তার হাতে আরও ক্ষমতা দেওয়ার দাবি জানানো হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে দায়ের হওয়ার মামলার আবেদনে৷

    অন্যদিকে পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং জানিয়েছেন, তাঁর সরকারও নতুন এই তিনটি কৃষি আইনের বিরুদ্ধে শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হবে৷ তিনি আরও আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন, দেশজুড়ে কৃষকদের বিক্ষোভকে কাজে লাগিয়ে তা উস্কে দিতে পারে পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই৷ পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, নতুন এই আইন পঞ্জাবে সীমান্তের নিরাপত্তাকেও ঝুঁকির মুখে ফেলে দিয়েছে৷ কারণ আইএসআই সবসময় এমন সুযোগের অপেক্ষাতেই থাকে৷ পঞ্জাব সহ গোটা দেশে যেভাবে কৃষকরা আন্দোলনে নেমেছেন, তাকেই এবার আইএসআই কাজে লাগাতে পারে মনে করছেন পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: