corona virus btn
corona virus btn
Loading

কর্নেল আশুতোষের মোবাইলে জবাব জঙ্গির, বাহিনী বুঝে গেল, সব শেষ

কর্নেল আশুতোষের মোবাইলে জবাব জঙ্গির, বাহিনী বুঝে গেল, সব শেষ
শহিদ কলোনেল আশুতোষ শর্মা৷ PHOTO- ANI/TWITTER

কর্নেল এবং বাকি চারজন বাড়ির ভিতরে ঢোকার পর থেকেই জঙ্গিদের সঙ্গে গুলির লড়াই বন্ধ ছিল৷ ভিতর থেকে সাড়া পাওয়ার জন্য বাড়ির বাইরে অপেক্ষা করছিল বাহিনীর বাকি সদস্যরা৷

  • Share this:

#কাশ্মীর: পণবন্দি পরিবারকে উদ্ধার করতে কাশ্মীরের হান্ডওয়ারার একটি বাড়ির ভিতরে ঢুকেছিলেন কর্নেল আশুতোষ সহ পাঁচজন৷ ওই বাড়িতে আত্মগোপন করে থাকা দুই জঙ্গিই পণবন্দি করেছিল বাড়ির বাসিন্দাদের৷ পণবন্দি বাসিন্দাদের নিরাপদে বের করে দিয়েছিলেন তাঁরা৷ কিন্তু তার পর নিজেরা আর বেরিয়ে আসেননি৷

প্রায় চার ঘণ্টা ধরে ওই কর্নেল সহ দলের বাকি চার সদস্যের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করতে থাকেন বাড়ির বাইরে থাকা সেনা এবং পুলিশ আধিকারিকরা৷ শেষ পর্যন্ত রাত দশটা নাগাদ কর্নেলে ফোনে সাড়া মেলে ঠিকই৷ কিন্তু ফোনের ওপারে কর্নেল আশুতোষের বদলে সাড়া দেয় এক জঙ্গি৷ তাতেই পুলিশ এবং সেনার সদস্যরা বুঝে যান, এবার চূড়ান্ত অভিযানে নামতে হবে৷ তার পরেই পাল্টা হামলায় বাড়ির ভিতরে থাকা দুই জঙ্গিকে নিকেশ করে সেনা এবং পুলিশ৷ বাড়ির ভিতর থেকে উদ্ধার হয় কর্নেল আশুতোষ সহ চার সেনা কর্মী এবং এক সাব ইন্সপেক্টরের দেহ৷

শনিবার বিকেলে ২১ রাষ্ট্রীয় রাইফেলস-এর দলটি কর্নেল আশুতোষ শর্মার নেতৃত্বেই এই অভিযানে গিয়েছিল৷ ওই বাড়িটি ঘিরে ফেলার পর ৪৪ বছর বয়সি কর্নেল আশুতোষ তাঁর সঙ্গে মেজর অনুজ সুদ (৩০), নায়েক রাজেশ কুমার (২৯), ল্যান্স নায়েক দীনেশ সিং (২৪) এবং পুলিশের সাব ইন্সপেক্টর শাগির পাঠান ওরফে কাজি (৪১)-কে নিয়ে পণবন্দিদের উদ্ধারে বাড়ির ভিতরে ঢোকেন৷

জম্মু কাশ্মীর পুলিশের এক আধিকারিক একটি সর্বভারতীয় ইংরেজি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, 'বিকেল সাড়ে পাঁচটার একটু পরে বাকি চারজনকে নিয়ে ভিতরে ঢুকেছিলেন কর্নেল৷ ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত বহুবার আমরা তাঁর সঙ্গে এবং বাকি চারজনের মোবাইলে ফোন করে যোগাযোগের চেষ্টা করি৷ কিন্তু কোনও সাড়া মেলেনি৷ রাত দশটা নাগাদ শেষ পর্যন্ত কর্নেলের ফোন একজন ধরে একজন বলে 'আসসালাম ওয়ালেকুম৷'

ওই পুলিশকর্তা জানান, সঙ্গেই সঙ্গেই তাঁদের কাছে ভিতরের ছবিটা স্পষ্ট হয়ে যায়৷ কারণ কর্নেল আশুতোষ বেঁচে থাকতে যে তাঁর ফোনে জঙ্গিরা হাত দিতে পারবে না, সেটা বুঝে যান বাইরে থাকা সেনা এবং পুলিশ কর্তারা৷

কর্নেল এবং বাকি চারজন বাড়ির ভিতরে ঢোকার পর থেকেই জঙ্গিদের সঙ্গে গুলির লড়াই বন্ধ ছিল৷ ভিতর থেকে সাড়া পাওয়ার জন্য বাড়ির বাইরে অপেক্ষা করছিল বাহিনীর বাকি সদস্যরা৷ শেষ পর্যন্ত রাত দশটার পর জঙ্গিদের নিকেশ করার লক্ষ্য নিয়ে ফের শুরু হয় অভিযান৷ যা রবিবার ভোররাত পর্যন্ত চলতে থাকে৷ দুই জঙ্গিও নিকেশ হয়৷ বাড়ির ভিতর থেকেই উদ্ধার হয় কর্নেল আশুতোষ এবং বাকি চার শহিদের দেহ৷

First published: May 3, 2020, 9:48 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर