Uttarpradesh : বাবরি মামলায় রায়দানের বিচারপতি সুরেন্দ্র যাদব এবার যোগী রাজ্যে গুরুত্বপূর্ণ পদে!

Uttarpradesh : বাবরি মামলায় রায়দানের বিচারপতি সুরেন্দ্র যাদব এবার যোগী রাজ্যে গুরুত্বপূর্ণ পদে!

সুরেন্দ্র কুমার যাদব Photo - Collected

সোমবার সেই গুরুত্বপূর্ণ পদেই শপথ নিলেন সুরেন্দ্র কুমার।

  • Share this:

    #উত্তরপ্রদেশ : সোমবার উত্তরপ্রদেশের ডেপুটি লোকায়ুক্ত পদে শপথ নিলেন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার যাদব। বিচারক সঞ্জয় মিশ্র তাঁকে ডেপুটি লোকায়ুক্ত পদে শপথ বাক্য পাঠ করান। সুরেন্দ্র যাদব ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯-এ লখনউয়ের জেলা জজের পদ থেকে অবসর গ্রহণ করেন। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ পর্যন্ত সুরেন্দ্র যাদব রাম জন্মভূমির বিতর্কিত কাঠামোর মামলায় কাজ করেন। বিতর্কিত তথা হাইভোল্টেজ এই মামলার রায় ঘোষণা করে শিরোনামে উঠে আসেন বিচারক সুরেন্দ্র কুমার যাদব।

    সুরেন্দ্র কুমার যাদব কে ৬ এপ্রিল উত্তর প্রদেশের তৃতীয় ডেপুটি লোকায়ুক্ত পদে নিযুক্ত করা হয়েছে। সোমবার সেই গুরুত্বপূর্ণ পদেই শপথ নিলেন সুরেন্দ্র কুমার। দুর্নীতির বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতেই যোগী আদিত্যনাথ সরকারের রাজ্য উত্তরপ্রদেশে গঠিত হয়েছে লোকায়ুক্ত কমিটি। এই কমিটিতে একজন লোকায়ুক্ত আর তিনজন ডেপুটি লোকায়ুক্ত থাকেন। সুরেন্দ্র যাদব ছাড়া ওই পদে শম্ভু সিং ২০১৬ সালে ৪ আগস্ট নিযুক্ত হন। একই পদে ২০২০ সালের ৬ জুন নিযুক্ত হন দীনেশ কুমার সিংহ। ডেপুটি লোকায়ুক্ত এর কার্যকাল হয় আট বছর।এই সময়কালের মধ্যে রাজ্যের যাবতীয় দুর্নীতিমূলক ইস্যুতে পদক্ষেপ নেবে এই কমিটি। যা গিয়েছে, লোকায়ুক্ত একটি অরাজনৈতিক পটভূমির অন্তর্ভুক্ত এবং এটি সরকারী দুর্নীতি, সরকারী বিশৃঙ্খলা বা ক্ষমতার অপব্যবহারের মামলা নিয়ে কাজ করে।

    প্রসঙ্গত, দীর্ঘ ২৮ বছরের পুরনো বাবরি মসজিদ ধ্বংসের মামলার রায় শুনিয়েছেন সুরেন্দ্র যাদব। ২০২০ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর লক্ষ্নৌ-এর বিশেষ আদালতে এই মামলার রায় ঘোষণা করেন বিচারক সুরেন্দ্র কুমার যাদব। রায় ঘিরে তোলপাড় হয় সারা দেশ। রায় ঘোষণা করে বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলায় লালকৃষ্ণ আদবানি সহ ৩২ অভিযুক্তকে বেকসুর খালাস ঘোষণা করেন বিচারক সুরেন্দ্র কুমার যাদব।ফৈজাবাদ আদালত থেকে অ্যাডিশনাল ডিস্ট্রিক্ট জাজ হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেছিলেন বিচারক সুরেন্দ্র কুমার যাদব। এবার বিজেপির যোগী আদিত্যনাথ তাঁকে নিজের রাজ্যে উচ্চপদে আসীন করে তাঁর বিজেপি ঘনিষ্ঠতাকেই আরও স্পষ্ট করলেন বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: