Jitin Prasada: ভোটের আগেই যোগীরাজ্যে শুরু ঘর ভাঙানোর খেলা, BJP-তে যোগ শীর্ষ কংগ্রেস নেতার

বিজেপিতে জিতিন প্রসাদ

Jitin Prasada: ২০০১ সালে জিতিন প্রসাদ কংগ্রেসে যোগ দিয়েছিলেন আর ২০০৪ সালে তিনি প্রথমবার নির্বাচনে জিতে সংসদে পৌঁছেছিলেন।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: সামনের বছর ভোট উত্তরপ্রদেশে, আর তার আগেই শুরু হয়ে গেল দলবদলের খেলা। বুধবার প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা জিতিন প্রসাদ (Jitin Prasada) যোগ দিলেন বিজেপিতে। রাজধানী দিল্লিতে, কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েলের হাত ধরে জিতিন প্রসাদ বিজেপির প্রাথমিক সদস্যপদ গ্রহণ করেন। উল্লেখ্য, মনমোহন সিং সরকারে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীও ছিলেন জিতিন প্রসাদ। ২০০১ সালে তিনি কংগ্রেসে যোগ দিয়েছিলেন আর ২০০৪ সালে তিনি প্রথমবার নির্বাচনে জিতে সংসদে পৌঁছেছিলেন।

    প্রসঙ্গত, ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনের সময়ও জিতিন প্রসাদের বিজেপিতে যোগ দেওয়ার জল্পনা তৈরি হয়েছিল। যদিও, তখন তিনি সমস্তরকম জল্পনায় জল ঢেলে জানিয়েছিলেন, তাঁর ঘর কংগ্রেসই। সেই 'ঘর' ছেড়ে দিলেন তিনি। সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গ নির্বাচনে জিতিন প্রসাদকে প্রদেশ কংগ্রেসের পর্যবেক্ষক হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছিল। কিন্তু এ রাজ্যের ভোটে একটিও আসন পায়নি কংগ্রেস।

    তবে, তাৎপর্যপূর্ণ বিষয় হল, প্রয়াত কংগ্রেস নেতা জিতেন্দ্র প্রসাদের পুত্র জিতিন। ছোটবেলা থেকেই কংগ্রেস ঘরানার রাজনীতি করেই বেড়ে উঠেছেন জিতিন। আর উত্তরপ্রদেশের রাজনীতিতে প্রভাব রয়েছে এই প্রসাদ পরিবারের। বিশেষত ব্রাহ্মণ সম্প্রদায়ের মধ্যে জিতিন প্রসাদদের জনপ্রিয়তাও রয়েছে। তাই আগামী বছর উত্তরপ্রদেশের ভোটের আগে জিতিনের দলছাড়ার ঘটনা কংগ্রেস নেতৃত্বের কাছে নিঃসন্দেহে জোর ধাক্কা।

    কংগ্রেসের মধ্যে বিক্ষুব্ধ জি-২৩ গোষ্ঠীর অন্যতম সদস্য বলেই পরিচিত ছিলেন উত্তরপ্রদেশের এই নেতা। সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশ প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি করা হয় অজয়কুমার লাল্লু। আর তার পরেই লাল্লুর সঙ্গে তীব্র সংঘাত শুরু হয় জিতিনের। সূত্রের খবর, লাল্লুর কাজকর্ম নিয়ে বারবার কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্গা গান্ধীর কাছে অভিযোগ করেছিলেন তিনি। কিন্তু তাঁর একাধিক আপত্তির কথা জানালেও, তাতে কর্ণপাত করা হয়নি বলেই ঘনিষ্ঠমহলে অভিযোগ করেছিলেন জিতিন। তাই বাধ্য হয়েই দলত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। এমনই বলছে তাঁর ঘনিষ্ঠ মহল।
    Published by:Suman Biswas
    First published: