তিরিশ বছর ধরে মৃত ভাইয়ের যোগ্যতার শংসাপত্র ব্যবহার করে চাকরি করছিলেন এক ব্যক্তি; তার পর?

তিরিশ বছর ধরে মৃত ভাইয়ের যোগ্যতার শংসাপত্র ব্যবহার করে চাকরি করছিলেন এক ব্যক্তি; তার পর?

তিরিশ বছর ধরে মৃত ভাইয়ের যোগ্যতার শংসাপত্র ব্যবহার করে চাকরি করছিলেন এক ব্যক্তি; তার পর?

বিবৃতিতে জানানো হয় যে, তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারেন অভিযুক্ত ব্যক্তি নবম শ্রেণির পরীক্ষাও পাস করেননি।

  • Share this:

#জম্মু: যে পুলওয়ামা জেলা জঙ্গি হামলার জন্য সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছিল এক সময়ে, সেই পুলওয়ামা জেলা আবারও শিরোনামে এল। তবে এবারে একটি অন্য ধরনের ঘটনা সামনে এল। যা দেখে রীতিমতো হতভম্ব মানুষ। আজ থেকে প্রায় তিন দশক আগে মৃত ভাইয়ের যোগ্যতার শংসাপত্র ব্যবহার করে আইএমপিএতে (IMPA) তিরিশ বছর ধরে চাকরি করছিলেন এক ব্যক্তি। যা রবিবার জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশের অপরাধ দমন শাখার তরফে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে জানানো হয়। এমনকি ওই বিবৃতিতে জানানো হয় যে, তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারেন অভিযুক্ত ব্যক্তি নবম শ্রেণির পরীক্ষাও পাস করেননি। শক্তি বান্ধু ওরফে 'কাকা জি' যিনি আদতে পুলওয়ামার আছান গ্রামের বাসিন্দা এবং বর্তমানে জম্মুর পনি চকে বসবাস করেন, তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগটি আদালতে দায়ের করা হয়েছে বলে জম্মু অপরাধ দমন শাখা বিবৃতিতে জারি করেছে।

এতে বলা হয়, গত বছর বান্ধুর বিরুদ্ধে আইএমপিএ)-র যৌথ পরিচালকের করা একটি লিখিত অভিযোগের পরেই তদন্ত শুরু হয়। ওই অভিযোগপত্রে বলা হয় যে অভিযুক্ত ব্যক্তি তাঁর মৃত ভাই অশোক কুমারের শংসাপত্র ব্যবহার করে তাঁর নামেই প্রায় তিরিশ বছর ধরে আইএমপিএ-তে কর্মরত ছিলেন এবং তিনি নবম শ্রেণিও পাস করেননি। জানা যায়, অভিযুক্তের ভাই অশোক কুমার ১৯৭৭ সালে দক্ষিণ কাশ্মীরের কো-এডুকেশন কলেজ অনন্তনাগে বিএ-র দ্বিতীয় বর্ষে পড়ার সময়ে জলে ডুবে মারা গিয়েছিলেন। মৃত্যুর বেশ কয়েক বছর পরে অভিযুক্ত তাঁর মৃত ভাইয়ের শংসাপত্র ব্যবহার করে কিছু কর্মকর্তার সঙ্গে মিলিত হয়ে আইএমপিএ-তে চাকরি পান। এছাড়াও তদন্ত অফিসারদের ভুল তথ্য প্রদান করার জন্য জম্মু-কাশ্মীর অপরাধ শাখা অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা দায়ের করেছে, যা প্রাথমিকভাবে ভারতীয় দণ্ডবিধির বিভিন্ন ধারা অনুসারে দণ্ডনীয় অপরাধ।

অন্য দিকে, তদন্ত অনুসারে আইএমপিএ জম্মু, জম্মু কাশ্মীর বোর্ড স্কুল, সরকারি উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয় আছান এবং সরকারি অফিস থেকে প্রাসঙ্গিক রেকর্ড অনুসারে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে জম্মু পুলিশের পক্ষ থেকে অপরাধ শাখায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এছাড়াও বয়েজ প্রাথমিক বিদ্যালয় আছান-এর চৌকিদারকেও আটক করা হয়েছে বলে বিবৃতিতে জানানো হয়। এতে বলা হয় যে মামলার তদন্ত চলাকালীন সাক্ষীদের জবানবন্দিও রেকর্ড করা হয়েছে ইতিমধ্যেই। যাতে প্রমাণ হয়েছে যে বান্ধু তাঁর মৃত ভাইয়ের যোগ্যতার শংসাপত্র ব্যবহার করেছিলেন এবং আইএমপিএ-তে চাকরিও করেছিলেন।

Published by:Raima Chakraborty
First published:

লেটেস্ট খবর