পাকিস্তানে গিয়ে বিরিয়ানি কে খেয়েছিলেন? নাম না করে মোদিকে আক্রমণ শানালেন প্রিয়াঙ্কা

পাকিস্তানে গিয়ে বিরিয়ানি কে খেয়েছিলেন? নাম না করে মোদিকে আক্রমণ শানালেন প্রিয়াঙ্কা
  • Share this:

#ফৈজাবাদ: কথায় কথায় বিরোধীদের পাকিস্তান-দরদী হিসেবে তুলে ধরতে চান নরেন্দ্র মোদি। চান, দেশবিরোধী তকমা সেঁটে দিতে। মোদির গড় উত্তরপ্রদেশে গিয়েই এর পালটা দিলেন প্রিয়ঙ্কা গান্ধি। তাঁর কটাক্ষ, পাকিস্তানে গিয়ে বিরিয়ানি কে খেয়েছিলেন! নরেন্দ্র মোদি-যোগী আদিত্যনাথের খাসতালুকে দাঁড়িয়ে তাঁর লড়াই। প্রথম ভোটের লড়াই একেবারে বাঘের গুহায় ঢুকে। বাঘের গুহায় ঢুকেই তিনি পালটা হুঙ্কার ছাড়লেন। ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী হন নরেন্দ্র মোদি। পরের বছরই আফগানিস্তান সফর শেষ করে হঠাই লাহোরে গিয়ে হাজির হন তিনি। চলে যান পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের নাতনির বিয়ের অনুষ্ঠানেও। নাম না করলেও, মোদির সেই পাক সফর নিয়েই যে প্রিয়ঙ্কা এ দিন কটাক্ষ ছুড়ে দিয়েছেন তা স্পষ্ট বলেই মত পর্যবেক্ষকদের একাংশের। শুধু কটাক্ষই নয়, রীতিমতো চ্যালেঞ্জও ছুড়ে দিয়েছেন প্রিয়ঙ্কা গান্ধি বঢরা।

শুক্রবার, ফৈজাবাদ-অযোধ্যা সফরের আগে, মা সনিয়া গান্ধির লোকসভা কেন্দ্র রায়বরেলি এবং দাদা রাহুলের কেন্দ্র অমেঠিতে গিয়ে প্রচার করেন প্রিয়ঙ্কা। তা হলে কি এবারের ভোটে প্রার্থী হতে চলেছেন প্রিয়ঙ্কা গান্ধি? বারাণসীতে বিজেপির ব্রহ্মাস্ত্র নরেন্দ্র মোদির বিপরীতেই কি কংগ্রেসের ডার্ক হর্স প্রিয়ঙ্কা গান্ধি বঢরা?
এ দিন জল্পনা আরও উস্কে দিলেন প্রিয়ঙ্কা। মোদির খাসতালুক উত্তরপ্রদেশে গিয়ে ছাপান্ন ইঞ্চির ছাতি নিয়েও কটাক্ষ করতে ছাড়লেন না। এদিন প্রিয়ঙ্কা বলেন, ‘‘আমি শুনে অবাক হয়ে গেলাম গত পাঁচ বছরে বারাণসীর একটি গ্রামেও আসেননি নরেন্দ্র মোদি। কেন্দ্রের একটি পরিবারের সঙ্গেও কথা বলেননি ৷’’ প্রিয়ঙ্কার এই অভিযোগের জবাব না দিলেও তাঁর অযোধ্যা সফর নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি বিজেপি। অরুণ জেটলি বলেন, ‘‘ভোটের আগে অনেকেই অযোধ্যায় যান। অযোধ্যায় সবারই যাওয়া উচিত। মানা উচিত যে অযোধ্যাই রামের জন্মভূমি ৷’’ পর্যবেক্ষকদের একাংশের মতে, এমনিতেই প্রিয়ঙ্কা ভোটের মায়দানে নামায় গেরুয়া শিবিরের উপর চাপ বেড়েছে। এই পরিস্থিতিতে রাহুল গান্ধি যদি প্রিয়ঙ্কাকে বারাণসীতে মোদির বিরুদ্ধে প্রার্থী হিসেবে দাঁড় করান, সেক্ষেত্রে উত্তরপ্রদেশে কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধ আরও জমে যাবে।

First published: March 29, 2019, 10:41 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर