corona virus btn
corona virus btn
Loading

নোট বাতিলের মাসপূর্তি: কালো টাকা ঘরে ফেরানোর মোদি-জেটলি স্ট্রাটেজি কি ফেল !

নোট বাতিলের মাসপূর্তি: কালো টাকা ঘরে ফেরানোর মোদি-জেটলি স্ট্রাটেজি কি ফেল !

কালো টাকা সাফ হয়ে যাবে, এমনটা কখনই আশা করা হয়নি। শুধু আশা ছিল, দেশে থাকা নগদ টাকার অন্তত ৮০ শতাংশ নষ্ট করে ফেলতে বাধ্য হবে কালো টাকার মালিকরা।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: কালো টাকা সাফ হয়ে যাবে, এমনটা কখনই আশা করা হয়নি। শুধু আশা ছিল, দেশে থাকা নগদ টাকার অন্তত ৮০ শতাংশ নষ্ট করে ফেলতে বাধ্য হবে কালো টাকার মালিকরা। ৫০০ ও ১০০০ টাকার থাকা কালো টাকা থেকে মুক্তি মিলবে। ৩০ দিন পর কেন্দ্রের সেই স্বপ্ন আছড়ে বাস্তবের মাটিতে। কেন্দ্রের ঘোষণার ফাঁক গলে কয়েক লক্ষ কোটির কালো টাকা সাদা হয়ে গিয়েছে।

গত ৩০ দিনে দেশের ব্যাঙ্কগুলিতে জমা পড়েছে সাড়ে ১১ লক্ষ কোটি টাকা। যা গড়পরতা জমার তুলনায় ২৬০০ গুণ বেশি। এর মধ্যে ৮০ শতাংশ টাকাই জমা হয় ১০০০ ও ৫০০ এর নোটে। এত বিপুল টাকা জমা পড়াতেই কেন্দ্রের সব পরিকল্পনা ঘেঁটে একশেষ। কালো টাকার বড় অংশ যে ঘুরিয়ে ব্যাঙ্কেই জমা পড়েছে, তা কার্যত মানতে বাধ্য হচ্ছে কেন্দ্র। মোদি প্রশাসনের পরিকল্পনা ছিল, সাড়ে ৩ লক্ষ কোটির বেশি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে জমা পড়বে না
বাস্তবে, ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত তা ১৩ লক্ষ কোটি ছাড়িয়ে যেতে চলেছে অর্থমন্ত্রকের প্রাথমিক হিসাব ছিল, জমা পড়ার কালো টাকার পরিমাণও ৩ লক্ষ কোটি ছাড়াবে না ৷ হাজার ও পাঁচশোর নোটে কালো টাকার অন্তত ৬০ শতাংশ নষ্ট করতে বাধ্য হবেন মালিকরা ৷ বাস্তবে যা হয়েছে, তা কেন্দ্রের নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েই প্রশ্ন তুলে দিয়েছে। সঙ্গে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের অস্বস্তিও বহুগুণ বাড়িয়েছে। বিপুল পরিমাণ কালো টাকা ব্যাঙ্কে জমা পড়েছে মোট জমার মধ্যে অন্তত ৪৫ শতাংশই কালো টাকা বলে মনে করা হচ্ছে পুরনো নোটের একটি বড় অংশই এই পথে সাদা হয়ে গিয়েছে এর বিনিময়ে নতুন নোট দিতে হবে কেন্দ্রকে ঘাড়ে চাপছে বাড়তি ৩ লক্ষ কোটির বোঝা অ্যাকাউন্টে জমা টাকার ওপর নজরদারি দাবি করছে কেন্দ্র। বাস্তবে কিন্তু সে-ধরণের পরিকাঠামোই কেন্দ্র বা অর্থমন্ত্রকের নেই। তা হলে কেন বারবার একই আশ্বাস? একই তত্ত্ব খাড়া করার আপ্রাণ চেষ্টা। কালো টাকা মুছে ফেলা যায়নি। বরং তার সিংহভাগ ফেরত এসেছে অর্থনীতিতে। এমনটা হলে সেই ভার বইতে পারবে না ভারত। লাগামছাড়া হবে মুদ্রাস্ফীতি। অনেক আগেই সতর্ক করেছিলেন এক অর্থনীতিবিদ। তিনি রঘুরাম রাজন। ৩০ ডিসেম্বরের পর তাঁর আশঙ্কা সত্যি হলে মোদি-জেটলিদের মুখ আরও কালো হতে বাধ্য।
First published: December 9, 2016, 11:13 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर