• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • Ira Basu to get Pension| ১২ বছর বাদে পেনশন চালু মুখ্যমন্ত্রীর শ্যালিকা ইরা বসুর! পথের জীবনে ইতি

Ira Basu to get Pension| ১২ বছর বাদে পেনশন চালু মুখ্যমন্ত্রীর শ্যালিকা ইরা বসুর! পথের জীবনে ইতি

পথের জীবন চিরতরে শেষ হচ্ছে ইরা বসুর।

পথের জীবন চিরতরে শেষ হচ্ছে ইরা বসুর।

Ira Basu to get Pension| মাসিক পেনশান তো বটেই, বকেয়া টাকাও পাবেন ইরাদেবী।

  • Share this:

#কলকাতা: প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের শালিকা ইরা বসুর পেনশনের নির্দেশিকা জারি করে দিল রাজ্যের অর্থ দফতর (Ira Basu to get Pension)।  রাজ্যের নির্দেশ ১লা মে ২০০৯  অর্থাৎ তাঁর অবসরের সময় থেকেই নির্দেশিকা কার্যকর হবে। অর্থাৎ মাসিক পেনশান তো বটেই, বকেয়া টাকাও পাবেন ইরাদেবী।

সূত্রের খবর, খবর যাওয়ার তিনদিনের মধ্যেই রাজ্য অর্থ দপ্তরের তরফেই নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। সূত্রের খবর, বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের মেয়ে সুচেতনা ভট্টাচার্যকে নমিনি করা হয়েছে ইরাদেবীর পেনশনের।

আপাতত ১৩ হাজার ৯৮৫  টাকা করে আপাতত পেনশন পাবেন ইরা বসু। নবান্ন সূত্রে খবর, ১লা মে থেকে এই নির্দেশিকা কার্যকর করা হচ্ছে। সূত্রের খবর, ইরা বসুর ব্যাপারে গোড়া থেকেই নজর ছিল তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের। অভিষেক যে বিষয়টি তদারকি করছিলেন সে কথা নিজে মুখে জানিয়েছিলেন ইরাদেবীও।

দিন কয়েক আগেই লুম্বিনি পার্ক থেকে খড়দহে ফেরানো হয় ইরা বসুকে। তাঁর ঠাঁই হয় পানিহাটি পৌরসভা ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সিপিআইএম কাউন্সিলর সুদীপ রায়ের বাড়িতে। ইরাদেবী সংবাদমাধ্যমের সামনে বারংবারই বলেন, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাঠানো লোকের সঙ্গে তাঁর দেখা হয়েছে। পেনশন সংক্রান্ত বিষয়ে দ্রুত সমাধানের প্রতিশ্রুতিও দেওয়া হয়েছে তাঁকে। মুখে না বললেও কারও বুঝতে অসুবিধে হয়নি অভিমানী ইরাদেবী আশায় বুক বেঁধেছিলেন।

আরও পড়ুন- কংগ্রেস ছাড়লেন ফরাক্কার পাঁচ বারের বিধায়ক, ফের ধাক্কা দেবে তৃণমূল?

খড়দহের প্রিয়নাথ গার্লস স্কুলের জীবনবিজ্ঞানের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষিকা ইরাদেবী সাফল্যের সঙ্গে শিক্ষকতা করেছেন দীর্ঘকাল। কখনও নিজের আত্মীয়তা সূত্রে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর পরিবারের সঙ্গে হৃদ্যতাকে বড় করে দেখাননি। কোন অভিমানে তিনি সল্টলেকের বিরাট বাড়ি, খড়দহের আস্তানা ছেড়ে ডানলপের রাস্তার ধারে থাকতে শুরু করেন তা সকলের অজানা। ইরাদেবী কাউকে দোষারোপ না করে বারংবার বলেছেন, এ জীবন তিনি স্বেচ্ছায় বেছে নিয়েছিলেন। তবে এরই পাশাপাশি ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে আবার তিনি ফিরতে চান এ কথাও বলেছিলেন তিনি। নতুন করে আর্থিক স্বনির্ভরতা ইরাদেবীকে আরও একবার সুস্থ জীবনে ফিরিয়ে দেবে, এমনটাই আশা সকলের।

Published by:Arka Deb
First published: