India's first toy cluster: দেশের খেলনা শিল্পে নতুন অক্সিজেন কর্ণাটকে

India's first toy cluster: দেশের খেলনা শিল্পে নতুন অক্সিজেন কর্ণাটকে

আইকাস প্রাইভেট লিমিটেড সংস্থার তরফ থেকে চেয়ারম্যান অরবিন্দ মেলেগিরি জানিয়েছেন তাঁরা পাঁচশো মিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করে এই ক্লাস্টার তৈরি করছেন।

আইকাস প্রাইভেট লিমিটেড সংস্থার তরফ থেকে চেয়ারম্যান অরবিন্দ মেলেগিরি জানিয়েছেন তাঁরা পাঁচশো মিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করে এই ক্লাস্টার তৈরি করছেন।

  • Share this:

    #বেঙ্গালুরু: আত্মনির্ভরতার পথে ভারতের বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করার প্রচেষ্টা জারি আছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশকে আত্মনির্ভর করার যে স্বপ্ন দেখিয়েছেন তা বাস্তব রূপ পেতে হলে এক বা দুই নয়, একাধিক ক্ষেত্রে এগিয়ে যেতে হবে। খেলনা শিল্প এর বাইরে নয়। গতবছর প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছিলেন খেলনা শিল্পে ভারতের বিশ্ব বাজারে বড় হয়ে ওঠার বিরাট সম্ভাবনা রয়েছে। ভোকাল ফর লোকাল মাথায় রেখেই দেশের বিভিন্ন কারখানায় তৈরি খেলনা কেনার ব্যাপারে আবেদন করেছিলেন তিনি। এবার কর্ণাটকের কোপ্পালে একটি চারশো একর খেলনা উৎপাদনের ক্লাস্টার তৈরি হচ্ছে।

    আইকাস প্রাইভেট লিমিটেড সংস্থার তরফ থেকে চেয়ারম্যান অরবিন্দ মেলেগিরি জানিয়েছেন তাঁরা পাঁচশো মিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করে এই ক্লাস্টার তৈরি করছেন। দেশি এবং বিদেশি মিলিয়ে মোট ছয়টি নামি খেলনা প্রস্তুতকারক সংস্থা এখানে আসতে আগ্রহী। যদিও নাম প্রকাশ করতে রাজি হননি তিনি। খেলনা শিল্প বিশ্বব্যাপী নব্বই বিলিয়ন ডলার বাজার দখল করে রেখেছে। এর কুড়ি বিলিয়ন ডলার চিনের দখলে। ভারতে বার্ষিক দুই শতাংশের মত এই শিল্পের লেনদেন হয়। প্রায় সত্তর শতাংশ খেলনা ভারত চিন থেকে আমদানি করে।

    ক্লাস্টার তৈরি হলে এই ছবি কিছুটা বদলাবে। ভারতের কারখানায় দেশীয় কাঁচামাল এবং নির্দিষ্ট পদ্ধতি ব্যবহার করে বিভিন্ন খেলনা উৎপাদন করা সম্ভব হবে। ইতিমধ্যেই আই কাস জানিয়েছে তাঁদের দুটি ইউনিট বেলাগাভি এসইজেডে পরিচালনা করছে এবং ভাল পরিমাণে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প বিদ্যমান রয়েছে ওখানে। ভবিষ্যতে যা কাঁচামালের প্রয়োজনীয়তাকে সমর্থন করবে। প্রধানমন্ত্রী সাতাশে ফেব্রুয়ারি 'দ্যা ইন্ডিয়া টয় ফেয়ার' উদ্বোধন করবেন।

    একমাত্র লক্ষ্য শিল্পের সার্বিক উন্নয়ন এবং ব্যবসায়িক স্বার্থে যোগসূত্র বাড়ানো। ক্রেতা, বিক্রেতা এবং ডিজাইনারদের সঙ্গে নিয়ে ভার্চুয়াল সভা করবেন তিনি। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে এই শিল্পের উন্নতিতে সবরকম সাহায্য করা হবে ইতিমধ্যে জানিয়েছেন তিনি। তিনি আশাবাদী এই ক্লাস্টার পূর্ণতা পেলে ওই জায়গায় প্রচুর মানুষের রোজগারের সুযোগ হবে।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published:

    লেটেস্ট খবর