corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউনের জন্য সমস্যায় পড়েছেন কৃষকরা ! পাওয়া যাচ্ছে না ফসল তোলার লোক !

লকডাউনের জন্য সমস্যায় পড়েছেন কৃষকরা ! পাওয়া যাচ্ছে না ফসল তোলার লোক !

চাষের জন্য দরকার উপযুক্ত আবহাওয়ার। সময় পেরিয়ে গেলে ফসল ফলানো মুশকিল। আর ফসল না ফললে দেশে নেমে আসতে পারে দুর্ভিক্ষের মতো মহামারী।

  • Share this:

#নয়া দিল্লি: করোনা ভাইরাস ভারতেও তার থাবা বসিয়েছে। সারা দেশে প্রতিদিন বেড়ে চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা। মৃত্যুর সংখ্যাও বাড়ছে। করোনায় সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ ইতালি ও স্পেনের মতো দেশগুলি। চিকিৎসা করার সুষোগও মিলছে না ওই দেশগুলোতে। ভারত ১৩০ কোটির দেশ। আমাদের দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থা এখনও বিদেশের থেকে অনেকটাই পিছিয়ে। তাই এই দেশে যদি করোনা ব্যপক হারে ছড়াতে শুরু করে তবে গোটা দেশে মৃত্যু মিছিল নেমে আসবে। এই কারণেই ভারত সরকার ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করে মানুষকে গৃহবন্দি করেছে। কিন্তু এই লকডাউনে সমস্যার মুখে পড়েছে দেশের কৃষি শিল্প। যদিও কৃষিকে লকডাউনের আওতায় আনা হয়নি। কারণ চাষের জন্য দরকার উপযুক্ত আবহাওয়ার। সময় পেরিয়ে গেলে ফসল ফলানো মুশকিল। আর ফসল না ফললে দেশে নেমে আসতে পারে দুর্ভিক্ষের মতো মহামারী।

তবে ২১ দিনের লকডাউনে চাষিরাও সমস্যায় পড়েছেন। এই সময়টা গম চাষের জন্য সব থেকে উপযোগী। এই সময় পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশে ব্যপকহারে গম উৎপাদন হয়। কিন্তু লকডাউনের জন্য যেসব কৃষকরা জমিতে ঠিকা চাষের কাজ করে। তারা সকলেই নিজের দেশে ফিরে গেছে। ফলে ফসল লাগানোর মতো চাষীও পাওয়া যাচ্ছে না। এখানে পূর্ব ভারতের অনেক শ্রমিক খেতে কাজ করার জন্য আসেন। তারা সকলেই নিজের বাড়িতে ফিরে গেছেন।

পাঞ্জাবের কৃষক রমনদেব সিং বলছেন, "আমরা এরকম সমস্যায় কখনও পড়িনি। এই কৃষকের পরিবার গম, চাল ও তুলো চাষ করে। তাদের জমিতে মেশিনে চাষের কাজ করার জন্য কম করে দশ জন শ্রমিক দরকার। সেখানে এখন একজনও নেই। এই সময় ক্ষেতে ফসল লাগানো ও তোলার জন্য লোক দরকার। এপ্রিলের ১৫ তারিখ পার হয়ে গেলে ফসলের জন্য খুব ক্ষতিকারক। এই সময়ের মধ্যে পরিণত ফসল তুলে ফেলতে হবে। এবং নতুন ফসল লাগাতে হবে। কারণ এর পর ঝড় বৃষ্টির সময়। তখন পাকা ফসলের ক্ষতির সম্ভাবণা প্রবল।

এছাড়াও যে সমস্ত চাষীরা ফসল তুলে ফেলছেন। তারা আবার পাঠাতে পারছেন বড় মার্কেটে। কারণ ফসল নিয়ে যেতে যে পরিমাণ ট্রাক দরকার তা পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে পাইকারি বাজারে বেঁচতে হচ্ছে। এতে চাষীদের আয় কমে যাচ্ছে। তাতে তারা নতুন করে আবার ফসল চাষ করতে পারবেন কিনা তা নিয়েও তাঁদের মনে নানা প্রশ্ন দেখা দিচ্ছে। কিছু চাষী তাদের গম মার্চের ২৪ আগে তুলে নিলেও। বেশির ভাগটাই এপ্রিলের ১৫ তারিখের আগে তোলার কথা। কিন্তু পর্ষাপ্ত চাষী না থাকায় কঠিন সমস্যার মুখে এই সমস্ত এলাকার কৃষকরা। অতএব করোনা ভাইরাস ও লকডাউনের প্রভাব পড়তে পারে কৃষিতে। এখনই এই সমস্যা নিয়ে না ভাবলে পরবর্তী কালে খাদ্যের অভাব এক বড় সঙ্কট হয়ে উঠতে পারে ভারতে।

First published: April 1, 2020, 8:11 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर