• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • INDIAN RAILWAYS WILL NEVER BE PRIVATISED SAYS RAIL MINISTER SMJ

রেল কি বেসরকারি সংস্থার হাতে চলে যাচ্ছে? জবাব দিলেন রেলমন্ত্রী

বেসরকারি বিনিয়োগের প্রসঙ্গ ওঠায় কিছুটা কড়া সুরেই জবাব দিলেন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল।

বেসরকারি বিনিয়োগের প্রসঙ্গ ওঠায় কিছুটা কড়া সুরেই জবাব দিলেন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল।

  • Share this:
    #নয়াদিল্লি: রেল কি বেসরকারি হাতে চলে যাচ্ছে! ক্ষমতায় আসার পর থেকেই মোদি সরকার ও রেলমন্ত্রীকে এই প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছে। বারবার বিভিন্নভাবে রেলে বেসরকারি সংস্থার বিনিয়োগ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। তবে কেন্দ্র ও রেল মন্ত্রকের তরফে বারবার দাবি করা হয়েছে, যাত্রী পরিষেবা ও রাষ্ট্রের আয় বাড়ানোর জন্যই বেসরকারি সংস্থাগুলিকে স্বাগত জানিয়েছে রেল। কিন্তু কোনভাবেই রেলের অংশিদারিত্ব বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়া হবে না। এদিন বেসরকারি বিনিয়োগের প্রসঙ্গ ওঠায় কিছুটা কড়া সুরেই জবাব দিলেন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল। কার্যত ঝাঁঝিয়ে উঠে তিনি বললেন, ''সরকারি রাস্তায় বেসরকারি গাড়ি চললে কেউ প্রশ্ন করে না। তখন কারও মনে হয় না, কেন রাস্তায় শুধু সরকারি গাড়ি চলবে না! আসলে মানুষকে ভাল পরিষেবা দেওয়ার জন্য সরকারি ও বেসরকারি, দু'পক্ষই সমানভাবে জরুরি।'' ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে রেলের জন্য বাজেট বরাদ্দ ছিল দেড় লক্ষ কোটি টাকা। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ২০২১-২২ অর্থবর্ষে রেলের জন্য বরাদ্দ বাড়িয়ে করেছেন ২.১৫ লক্ষ কোটি টাকা। এদিন তার উল্লেখ করেন রেলমন্ত্রী। তিনি বলেন, ''গত দু'বছরে দেশের কোথাও রেল দুর্ঘটনা ঘটেনি। একজন যাত্রীও রেল দুর্ঘটনায় প্রাণ হারাননি। আমরা সবসময় যাত্রী সুরক্ষার দিকে নজর দিয়ে এসেছি। সেইসঙ্গে পরিষেবা উন্নত করার লক্ষ্যে কাজ করেছি। বেসরকারি বিনিয়োগ মানেই ভারতীয় রেল বেসরকারি হাতে চলে যাচ্ছে, এটা একেবারে ভুল ধারণা। সরকারের সঙ্গে বেসরকারি ক্ষেত্র মিলেমিশে কাজ করলে দেশের উন্নতি হবে। সেইসঙ্গে কর্মসংস্থান বাড়বে।'' উল্লেখ্য ২০১৯ সালের মার্চ মাসের পর আর কোনও রেল দুর্ঘটনা এদেশে ঘটেনি। এদিন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল দাবি করেছেন, দেশের এক হাজার স্টেশন ও ৪০০ রেলভবনে সৌর প্যানেল বসানো হয়েছে। যার ফলে ২০২০ সালের মধ্যে ভারতীয় রেল 'জিরো কার্বন এমিশন রেলওয়ে' তকমা অর্জন করবে। যা বিশ্বে এখনো কোনো দেশের নেই। লকডাউনের সময় পরিযায়ী শ্রমিকদের বাড়ি না ফেরানোর অভিযোগ উঠেছিল রেলের বিরুদ্ধে। এদিন তারও জবাব দেন রেলমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, ''সেই সময় রেল পরিষেবা পুরোপুরি চালু রাখলে দেশে করোনা সংক্রমণ আরো বাড়তে পারত। আমরা পরিযায়ী শ্রমিকদের বাড়ি ফেরার জন্য ৪৬০০ ট্রেন চালিয়েছি। এমনকী দু'কোটি খাবারের প্যাকেট ও জলের বোতল পরিযায়ী শ্রমিকদের সরবরাহ করা হয়েছে রেলের তরফে।''
    Published by:Suman Majumder
    First published: