দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

ভারতের এস-৪০০ নিয়ে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা ! সিদ্ধান্তে অবিচল নয়াদিল্লি

ভারতের এস-৪০০ নিয়ে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা ! সিদ্ধান্তে অবিচল নয়াদিল্লি
photo source/firstpost

মার্কিন প্রশাসন কিছুতেই ভারতের রাশিয়া থেকে কেনা এস ফোর হান্ড্রেড মিসাইল ডিফেন্স সিস্টেম মেনে নিতে পারছিল না। এমনকি সদ্য আমেরিকায় কয়েকজন বিশেষজ্ঞ জানিয়েছেন এর ফলে মার্কিন নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়তে হতে পারে ভারতকে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ডোনাল্ড ট্রাম্প মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি থাকাকালীন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দারুণ সম্পর্ক গড়ে ওঠে দুই রাষ্ট্রনেতার। দুই দেশ কূটনৈতিক এবং সামরিক ক্ষেত্রে বহু নতুন সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারপর থেকে। করোনা ভাইরাসের কঠিন সময় ভারত হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন পাঠিয়ে সাহায্য করেছিল আমেরিকাকে। পাশাপাশি আমেরিকান রাইফেল, অ্যাপাচি, রোমিও এবং চিনুক হেলিকপ্টার যুক্ত হয়েছে ভারতীয় সামরিক বাহিনীতে। কিন্তু মার্কিন প্রশাসন কিছুতেই ভারতের রাশিয়া থেকে কেনা এস ফোর হান্ড্রেড মিসাইল ডিফেন্স সিস্টেম মেনে নিতে পারছিল না। এমনকি সদ্য আমেরিকায় কয়েকজন বিশেষজ্ঞ জানিয়েছেন এর ফলে মার্কিন নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়তে হতে পারে ভারতকে।

যদিও মার্কিন কংগ্রেস এ বিষয়ে কোনও মন্তব্য করেনি, তবুও ভারতের এই সিদ্ধান্তে বিচলিত আমেরিকা। ভারত আগেই নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করে দিয়েছে। আমেরিকার সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখা নিয়ে দায়বদ্ধ মোদি সরকার। কিন্তু দেশের সুরক্ষার স্বার্থে কোনও চাপের কাছে মাথা নত করতে রাজি নয় প্রশাসন। দেশের হিতে যা সিদ্ধান্ত নিতে হয় তাই নেবে ভারত। অর্থাৎ ঘুরিয়ে আমেরিকাকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে এই ব্যাপারে মার্কিন চাপ পাত্তা দিতে রাজি নয় ভারত।উল্লেখ্য প্রাক্তন বায়ুসেনা প্রধান, বি এস ধানোয়া এস-৪০০-কে ‘গেমচেঞ্জার’ আখ্যা দিয়েছিলেন। এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরোধ ব্যবস্থা হামলাকারী যুদ্ধবিমান, ক্ষেপণাস্ত্র বা ড্রোন চিহ্নিত করে তাকে পালটা ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে গুঁড়িয়ে দিতে সক্ষম। এর পাল্লা ৪০০ কিলোমিটার।

 যার অর্থ ৪০০ কিলোমিটার দূরের লক্ষ্য বস্তুতে আঘাত আনতে সক্ষম। যার অর্থ হল, পাকিস্তানের প্রায় সবকটি বায়ুসেনা ঘাঁটি, চিনের বেশ কয়েকটি বায়ুসেনা ঘাঁটি ভারতের নাগালের মধ্যে চলে আসবে। পাকিস্তান আর চিনের সম্পর্ক যে ভাবে সীমান্তে ভারতের চাপ বাড়াচ্ছে, সে ক্ষেত্রে এস-৪০০ যে প্রতিরক্ষায় অনেকটাই শক্তি বাড়াবে, তাতে কোনও সন্দেহ নেই।গত মাসে ভারতে নিযুক্ত রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত জানিয়েছিলেন ভারতের হাতে নতুন বছরের প্রথম দিকেই দুটি ইউনিট চলে আসবে। বাকি তিনটি ইউনিট কয়েক মাসের ব্যবধানে তুলে দেওয়া হবে নয়াদিল্লির হাতে। মার্কিন নিষেধাজ্ঞা নিয়ে ভারত এবং রাশিয়ার সম্পর্কে কোনও প্রভাব পড়বে না বলে জানিয়েছিলেন তিনি।

Published by: Rohan Chowdhury
First published: January 5, 2021, 3:43 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर