আমেরিকার চাকরি ছেড়ে দেশে গরুর দুধের ব্যবসা শুরু IIT-র ছাত্রের, বার্ষিক আয় ৪৪ কোটি!

রমরমিয়ে দুধের ব্যবসা করছেন আইআইটির ছাত্র৷

রমরমিয়ে দুধের ব্যবসা করছেন আইআইটির ছাত্র৷

  • Share this:

    #হায়দরাবাদ: মাটির টান একেই বলে৷ বিদেশের বিপুল আয়ের চাকরি ছেড়ে দেশে ফিরে আসেন কর্ণাটকের ছেলে৷ ৬ বছর ধরে তিনি ছিলেন মার্কিন মুলুকে নামজাদা সংস্থায়৷ মোটা টাকা আয় ছিল তাঁর৷ জীবনযাপনও ছিল খুবই বিলাশবহুল৷ কিন্তু সেই সবের মায়া কাটিয়ে তিনি সব ছেড়েছুড়ে ফিরে আসেন দেশে৷ কিন্তু দেশে ফিরে এসে আর কোনও চাকুরিতে যোগ দেননি তিনি৷ শুরু করেন নিজের ব্যবসা৷ তাও আবার গরুর দুধের ব্যবসা৷ তিনি বুঝতে পারেন যে, স্থানীয়ভাবে পরিষোধিত দুধের অভাব রয়েছে৷ তাই ২০টি গরু কিনে শুরু করে দুধের ব্যবসা৷ ২০১২এ শুরু হয় এই যাত্রা৷ নিজের সমস্ত সঞ্চিত পুঁজি খরচ করতে হয় এই ব্যবসায়৷ এমনকী গরুর দুধ দোয়ানের কাজও করতেন ব্যবসায়ীর পরিবারের সকলে৷ এইভাবেই ক্রেতাদের দারজায় দরজায় প্রতিদিন পৌঁছে দিতেন দুধ৷

    এরপর কেনা হয় দুধ মজুত রাখার জন্য বিশেষ ফ্রিজ৷ যার ফলে দুধ জমিয়ে রাখতে পারতেন তাঁরা৷ ধীরে ধীরে ব্যবসার প্রসার ঘটে৷ ছেলের নাম সিদ্ধার্থ, সেই নামের সঙ্গে মিলিয়ে এই দুধের ব্যবসার নাম রাখা হয় সিডস ফার্ম৷ ২০১৮ নাগাদ তাঁদের খদ্দের ছিল ৬হাজার৷ যা মূলত হায়দরাবাদ ও তার আশপাশেই ছিল৷ এখন এই ব্যবসা ফুলে ফেপে উঠেছে৷ ১২০জন কর্মী কাজ করেন এই সংস্থায়৷ মাসের আয় প্রায় ৪০ কোটি টাকা৷ এবং খদ্দের সংখ্যা ১০হাজারেরও বেশি৷

    এখন সাফল্য এলেও, শুরুর দিনগুলো ছিল বেশ কঠিন৷ নিজেরা গিয়ে গিয়ে অন্যদের বাড়িতে দুধ দিয়ে আসতে হত তাদের৷ পরিবারের সঞ্চিত সব টাকাই ঢালতে হয়েছিল এই ব্যবসায়৷ শুরুতে ১ কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে হয়৷ পরের বছর আবার ২ কোটি বিনিয়োগ করতে হয়৷ আস্তে আস্তে লাভের মুখ দেখেন আইআইটির প্রাক্তনী৷ এরপর ২০১৮-এ নিজের ব্যবসা আরও বড় করতে ১.৩ কোটি লোন পান তিনি৷

    গরু ও মোষের দুধ দিয়ে ব্যবসা শুরু করলেও, এখন এই ব্যবসা অনেক দূর এগিয়েছে৷ নানা ধরণের দুগ্ধজাত পণ্য বিক্রি হয়৷ দুধ, ঘি, মাখন, পনির সবই মেলে এখানে৷ অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সাহায্যে কাজ হয় সিডস ফার্মে৷ যদিও কোভিড ও লকডাউন পরিস্থিতিতে কিছুটা হলেও মার খেয়েছে ব্যবসা, তবে তাতে কোনও সমস্যা হয়নি ব্যবসায়ীর৷ নিজের কাজ তিনি নিজে করে চলেছেন এবং অনেক যুবদের আদর্শ হয়ে উঠেছেন এই ব্যবসা প্রতিষ্ঠিত করে৷

    Published by:Pooja Basu
    First published: