ডিজিটাল ভোটার আইডি কার্ড পেতে জানুন কি করতে হবে, রইল সব প্রয়োজনীয় তথ্য

ডিজিটাল ভোটার আইডি কার্ড পেতে জানুন কি করতে হবে, রইল সব প্রয়োজনীয় তথ্য
২৫ জানুয়ারি অর্থাৎ আগামিকাল ন্যাশনাল ভোটার্স ডে ৷ আর সেই দিনই e-EPIC (Electronic Electoral Photo Identity Card) প্রোগ্রাম লঞ্চ করতে চলেছে ভারতের নির্বাচন কমিশন ৷

২৫ জানুয়ারি অর্থাৎ আগামিকাল ন্যাশনাল ভোটার্স ডে ৷ আর সেই দিনই e-EPIC (Electronic Electoral Photo Identity Card) প্রোগ্রাম লঞ্চ করতে চলেছে ভারতের নির্বাচন কমিশন ৷

  • Share this:

    #নয়া দিল্লি: ২৫ জানুয়ারি অর্থাৎ আগামিকাল ন্যাশনাল ভোটার্স ডে ৷ আর সেই দিনই e-EPIC (Electronic Electoral Photo Identity Card) প্রোগ্রাম লঞ্চ করতে চলেছে ভারতের নির্বাচন কমিশন ৷ e-EPIC-এ সুরক্ষিত QR কোড থাকবে যার মধ্যে থাকবে ছবি, সিরিয়াল নম্বর, পার্ট নম্বর সহ একাধিক তথ্য ৷ এটি পিডিএফ ফর্ম্যাটে মিলবে ৷

    মোবাইল এবং কম্পিউটারে সহজেই ডাউনলোড করা যাবে e-EPIC ৷ এবং ডিজিটালি এটি সেভ করা যাবে ৷ e-EPIC প্রোগ্রাম দুটি পর্যায়ে ডাউলোড করা হবে ৷ প্রথম পর্যায় অর্থাৎ ২১ থেকে ৩১ জানুয়ারির মধ্যে নতুন ভোটার যারা ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করেছেন এবং মোবাইল নম্বর রেজিস্টার্ড করেছেন ফর্ম ৬-এ তারা e-EPIC মোবাইল নম্বরের মাধ্যমে ডাউনলোড করতে পারবেন ৷ মোবাইল নম্বর নতুন হতে হবে এবং নির্বাচন কমিশনের ইলেক্টোরাল রোলে রেজিস্টার্ড থাকলে হবে না ৷ দ্বিতীয় পর্যায় শুরু হবে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ৷ এটা সকলের জন্য থাকবে ৷ যাঁদের মোবাইল নম্বর রেজিস্টার্ড করা রয়েছে তাঁরা সকলে e-EPIC ডাউনলোড করতে পারবেন ৷ জেনে নিন কিভাবে আপনি এই ডিজিটাল ভোটার কার্ডের সঙ্গে যুক্ত হবেন। সহজ কয়েকটি ধাপ জেনে নিন।

    EPIC বিষয়টি কি?


    এটি সিকিওর পোর্টেবল ফর্ম্যাট। এটিকে আপনি নিজের মোবাইল বা কম্পিুটারে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন। পিডিএফ ফাইল হিসেবে যেকোনও জায়গায় এটিকে ব্যবহার করতে পারবেন।

    কিভাবে ডাউনলোড করবেন?

    আপনি মোবাইলে ভোটার হেল্পলাইন মোবাইল অ্যাপ অথবা ভোটার পোর্টাল থেকে EPIC ফর্ম ডাউনলোড করুন। NVSP থেকেও ডাউনলোড করতে পারবেন। Voter Portal: http://voterportal.eci.gov.in/ এই লিঙ্কে ক্লিক করুন। অথবা NVSP: https://nvsp.in/ এই লিঙ্কে। মোবাইলে অ্যাপ ডাউনলোড করতে

    Android https://play.google.com/store/apps/details?id=com.eci.citizen ,

    iOS https://apps.apple.com/in/app/voter-helpline/id1456535004 ক্লিক করুন।

    কারা আবেদন করতে পারবেন?

    সব ভোটারাই আবেদন করতে পারবেন। যাঁদের মোবাইল নম্বর রেজিস্টার্ড করা রয়েছে তাঁরা সকলে e-EPIC ডাউনলোড করতে পারবেন ৷

    যদি আপনার EPIC নম্বর না থাকে এবং ফর্মের রেফারেন্স নম্বর থাকে তাহলে কি পারবেন ডাউনলোড করতে?

    হ্যাঁ, পারবেন। আপনি আপনার নাম সার্চ করুন http://voterportal.eci.gov.in/ অথবা http://electoralsearch.in/ এখানে। এর পর EPIC নম্বর লিখে নিয়ে ডাউনলোড করুন।

    এই ফাইলের সাইজ কত?

    মাত্র ২৫০ কেবি

    আপনি কি এই প্রিন্ট করা EPIC নিজের পরিচয় পত্র হিসেবে ভোট কেন্দ্রে দেখাতে পারবেন?

    হ্যাঁ, পারবেন। প্রথমে ডাউনলোড করুন তারপর প্রিন্ট করে নিন। এটি দেখালেই চলবে।

    কিভাবে ডাউনলোড করবেন?

    প্রথমে http://voterportal.eci.gov.in/ অথবা https://nvsp.in/ মোবাইলে ডাউনলোড করে নিন। অথবা ভোটার হেল্পলাইন মোবাইল অ্যাপে নিচের স্টেপ গুলো ফলো করুন।১. রেজিস্ট্রার বা লগ-ইন করুন।২. মেনু তে গিয়ে নেভিগেশনে ক্লিক করে ডাউনলোড করুন e-EPIC৩. অথবা ফর্মের রেফারেন্স নম্বর ব্যবহার করুন।।৪. এবার আপনার ভেরিফাইড মোবাইল নম্বরে একটি OTP আসবে।৫. e-EPIC ক্লিক করে ডঅউনলোড করুন।৬. যদি ফোন নম্বর রেজিস্ট্রার না করা থাকে সে ক্ষেত্রে KYC পুরো করতে হবে।৭. মোবাইল নম্বর আপডেট করুন, ফেস রেকগনাইজেশন দিন. KYC করুন।৮. সর্বশেষ ডাউনলোড করুন e-EPIC

    eKYC কি ?

    প্রথমে আপনাকে নিজের মোবাইলের ক্যামেরায় ফেস চেক করা হবে সব দিক থেকে। তারপর আপনার EPIC ডেটার সঙ্গে কম্পেয়ার করে নেওয়া হবে।

    eKYC-র জন্য কি দরকার?

    স্মার্ট ফোন/ ল্যাপটপ ক্যামেরা অথবা ডেস্কটপ ক্যামেরা।

    eKYC ফেল করলে কি করবেন?

    আপনাকে তাহলে ফটো আইডি নিয়ে যেতে হবে ERO-অফিসে যেতে হবে।

    যদি আপনার মোবাইল নম্বর ERoll- রেজিস্ট্রার করা না থাকে সেক্ষেত্রে কি করবেন?

    ফর্ম ডাউনলোডের আগে eKYC ডাউনলোড করুন।

    স্মার্ট ফোনে কি ডাউনলোড করতে পারবেন?

    হ্যাঁ, পারবেন। Voter Helpline Mobile App ব্যবহার করুন।

    যদি এক ফোন নাম্বারে পরিবারের বাকিদের ভোটার লিঙ্ক করা থাকে সেক্ষেত্রে কি করবেন?

    আপনাকে তখন প্রত্যেকের নামে আলাদা মোবাইল নম্বর অ্যাড করে আলাদা করে eKYC করাতে হবে। তারপরেই পারবেন।

    Published by:Piya Banerjee
    First published:

    লেটেস্ট খবর