• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • প্রতিটি দেশবাসীর করোনা ভ্যাকসিন নেওয়ার প্রয়োজন নেই, মত ICMR-এর

প্রতিটি দেশবাসীর করোনা ভ্যাকসিন নেওয়ার প্রয়োজন নেই, মত ICMR-এর

ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ-এর প্রধান অধিকর্তা ডাঃ বলরাম ভার্গব-এর মতে, জনে জনে ভ্যাকসিন দেওয়ার কোনও প্রয়োজন নেই

ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ-এর প্রধান অধিকর্তা ডাঃ বলরাম ভার্গব-এর মতে, জনে জনে ভ্যাকসিন দেওয়ার কোনও প্রয়োজন নেই

ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ-এর প্রধান অধিকর্তা ডাঃ বলরাম ভার্গব-এর মতে, জনে জনে ভ্যাকসিন দেওয়ার কোনও প্রয়োজন নেই

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: গোটা বিশ্বে করোনা হাহাকার! করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচতে, ভ্যাকসিনের আশায় দিন গুনছে গোটা বিশ্ব। ইউনাইটেড কিংডম প্রথম ভ্যাকসিনের অনুমোদন দেওয়ার পর এখন অন্যান্য দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিত্বরা ভাবনায় পড়েছেন নিজেদের দেশ নিয়ে। ভ্যাকসিন দেশে এলে কীভাবে বন্টন করা হবে, তা নিয়ে ভারতবর্ষেও চলছে জল্পনা। কিন্তু প্রশ্ন হল, আদৌ কি সকলের টিকাকরণের প্রয়োজন আছে? ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ-এর প্রধান অধিকর্তা ডঃ বলরাম ভার্গব-এর মতে, জনে জনে ভ্যাকসিন দেওয়ার কোনও প্রয়োজন নেই। মোট জনসংখ্যার একটি বিশেষ অংশের মধ্যে টিকাকরণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলেই ভাইরাসের সংক্রমণের চেন ভেঙে যাবে। এক্ষেত্রে অবশ্য টিকাকরণ প্রক্রিয়া থেকে বেশ কিছু মানুষ বাদ পড়বেন। তবে মোট জনসংখ্যার একটি নির্দিষ্ট সংখ্যক মানুষকে যখনই টিকা দেওয়া হবে, তখনই সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা কমে যাবে, মানুষের শরীরে তৈরি হবে হার্ড ইমিউনিটি। মোট জনসংখ্যার একটি বড় অংশ ভ্যাকসিন নিলে, তাঁদের যৌথ প্রতিরোধ ক্ষমতা সকলকেই কোভিড থেকে বাঁচতে সাহায্য করবে, এমনকী যাঁরা ভ্যাকসিন নেননি তাঁদেরও। এর পিছনে যে বিজ্ঞান কাজ করছে, তা হার্ড ইমিউনিটি। ডঃ ভার্গব এবং স্বাস্থ্য সচিব রাজেশ ভূষণ-এর মতে, যাঁরা ভাইরাস সংক্রমিত হয়েছিলেন এবং সুস্থ হয়ে উঠেছেন, তাঁদের ভ্যাকসিন দেওয়ার প্রয়োজন আছে কি না, সে কথা ভেবে দেখতে হবে। ডঃ ভার্গব বলেন, 'আমাদের উদ্দেশ্য সংক্রমণের চেন ভেঙে দেওয়া। তাই আমরা যদি একটি নির্দিষ্ট সংখ্যক মানুষকে ভ্যাকসিন দিয়ে উদ্দেশ্য সফল করতে পারি, তবে সকলকে টিকা দেওয়ার কোনও প্রয়োজনই পড়বে না।' সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী, প্রাথমিক ভাবে ২৫-৩০ কোটি মানুষের টিকাকরণ হবে ভারতে।

    ANANYA DEY

    Published by:Rukmini Mazumder
    First published: