দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

ভারতের কতটা বন্ধু হবেন বাইডেন, নজরে থাকবে 'চিন' নীতি

ভারতের কতটা বন্ধু হবেন বাইডেন, নজরে থাকবে 'চিন' নীতি
নজরে বাইডেনের ভারত নীতি৷ Photo-File

প্রতিরক্ষা, কৌশলগত এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়গুলিতে ২০০০ সাল থেকেই ভারতের প্রতি আমেরিকার নীতি খুব একটা বদলায়নি৷

  • Share this:

#ওয়াশিংটন: বারাক ওবামার আট বছর প্রেসিডেন্ট থাকাকালীন তিনি ছিলেন ভাইস প্রেসিডেন্ট৷ ফলে ভারতের কাছে জো বাইডেন পরিচিত মুখই৷ আশা করা হচ্ছে, প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পরে কয়েকটি ক্ষেত্রে তিনি ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেখানো পথেই হাঁটবেন, আবার কিছু ক্ষেত্রে তা বদলাতে পারে৷

প্রতিরক্ষা, কৌশলগত এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়গুলিতে ২০০০ সাল থেকেই ভারতের প্রতি আমেরিকার নীতি খুব একটা বদলায়নি৷ আশা করা হচ্ছে জো বাইডেনও সেই পথেই হাঁটবেন৷ তবে চিনের প্রতি বাইডেন প্রশাসনের মনোভাব কী হয়, সেদিকে তাকিয়ে থাকবে ভারত৷ কারণ, তার প্রভাব ভারতের উপরে পড়তে বাধ্য৷ তবে বাইডেনের আমলেও ভারত এবং আমেরিকার মধ্যে ঝুলে বাণিজ্যিক সমস্যাগুলির খুব বেশি সমাধান হবে বলে মনে করা হচ্ছে না৷ একনজরে দেখে নেওয়া যাক, জো বাইডেনের আমলে কোন পথে এগোতে পারে ভারত- মার্কিন সম্পর্ক-

বাইডেন- হ্যারিস যুগলবন্দি

জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে ভাইস প্রেসিডেন্ট হবেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত কমলা হ্যারিস৷ বাইডেন প্রশাসনের নীতি নির্ধারণে তিনি বড় ভূমিকা নিতে পারেন বলেই মনে করা হচ্ছে৷ বাইডেন ইতিমধ্যেই ইঙ্গিত দিয়েছেন, প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচিত হলেও একবারের জন্যই মেয়াদে থাকবেন তিনি৷ ফলে ২০২৪-এর নির্বাচনে কমলা হ্যারিসই প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হবেন বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷ সেক্ষেত্রে ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক সহ বিভিন্ন বিষয়ে কী নীতি নেন, সেদিকে নজর রাখতেই হবে৷

বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন সমস্যার মোকাবিলা প্রচারে ভারতীয়-মার্কিন ভোটারদের কাছেও সমর্থনের আবেদন করেছিলেন বাইডেন৷ ভারতের প্রতি তাঁর মনোভাব আপাতদৃষ্টিতে ইতিবাচক বলেই মনে করা হয়৷ ভারত- মার্কিন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক এখন যে জায়গায় পৌঁছেছে, তাকে সম্পূর্ণ অস্বীকার করা বাইডেনের পক্ষেও সম্ভব নয়৷ বাইডেনের হয়ে কৌশল নির্ধারণের দায়িত্বে থাকা অ্যান্টনি ব্লিনকেনের মতে, ভারতকে বাদ দিয়ে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে থাকা বিভিন্ন চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করা সম্ভব নয়৷ তাঁর দাবি, বাইডেনের আমলে ভারতের সঙ্গে সম্পর্ককে আরও মজবুত এবং উন্নত করা অন্যতম অগ্রাধিকারের বিষয় হতে চলেছে৷

প্রতিরক্ষা এবং নিরাপত্তা ২০০০ সাল থেকেই প্রতিরক্ষা এবং কৌশলগত ভাবে আমেরিকার ভারত নীতিতে বিশেষ বদল আসেনি৷ বাইডেনের আমলেও তাতে পরিবর্তনের সম্ভাবনা কম৷

চিনের সঙ্গে সম্পর্ক চিনের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে বাইডেন পন্থীরা দু' ভাগ৷ এর প্রভাব আমেরিকা- ভারত এবং ভারত- চিন সম্পর্কের উপরে পড়তে বাধ্য৷ বাইডেনের পরামর্শদাতাদের একাংশ ট্রাম্পের মতোই তীব্র চিন বিরোধী৷ আবার একাংশের মতে, আমেরিকা এবং চিনের অর্থনীতিকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন করা অসম্ভব৷ ফলে খুব বেশি হলে জাতীয় নিরাপত্তার সঙ্গে জড়িত ক্ষেত্রগুলিতে চিনের সঙ্গে সম্পর্ক পুরোপুরি ছিন্ন করার দিকেই হাঁটতে পারে বাইডেন প্রশাসন৷

বাণিজ্যিক সম্পর্ক ক্ষমতায় যেই থাকুন না কেন, ভারত এবং আমেরিকার মধ্যে বাণিজ্যিক সমস্যা মেটা মুশকিল৷ এমন কি বারাক ওবামার আমলেও দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যিক সম্পর্ক নিয়ে বিবাদ ছিলই৷ ফলে বাইডেনের আমলে আমেরিকা ভারতের জন্য দ্বার উন্মুক্ত করে দেবে, এমনটা হওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ৷ তাছাড়া, প্রচার পর্বেই বাইডেন ফের আমেরিকার অর্থনীতিকে শক্তিশালী করার ডাক দিয়েছেন৷ বাইডেনের অন্যতম শীর্ষ পরামর্শদাতা বিল বার্নসও জানিয়েছেন, আমেরিকার বিদেশ নীতি এমন হওয়া উচিত যাতে দেশীয় উৎপাদন এবং ব্যবসা চাঙ্গা হয়৷'

মানবাধিকারে নজর তবে ভারতে যে ভাবে হিন্দুত্ববাদীদের দাপট বাড়ছে এবং বহু ক্ষেত্রে মানবাধিকার ভঙ্গের অভিযোগ উঠছে, তার বিরুদ্ধে তৎপর হতে পারে বাইডেন প্রশাসন৷ জম্মু কাশ্মীরের বিভিন্ন ঘটনাও নজরে রাখতে পারে তারা৷ বিশেষ মার্কিন কংগ্রেসে ডেমোক্র্যাটরা সংখ্যাগরিষ্ঠ হওয়ার পর ভারতে মানবাধিকার রক্ষার বিষয়টি বিশেষ গুরুত্ব পেতে পারে৷

এইচ ওয়ান বি ভিসা H-1B ভিসা ফের আগের অবস্থায় ফিরবে, এমন সম্ভাবনাও ক্ষীণ৷ বিশেষত করোনা অতিমারির পর রিমোট ওয়ার্কিং-এর প্রবণতা বৃদ্ধির পর এইচ ওয়ান বি ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে বাইডেন প্রশাসন উদার মনোভাব নেবে, সেই প্রত্যাশা না করাই ভাল৷

Published by: Debamoy Ghosh
First published: November 7, 2020, 3:19 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर