corona virus btn
corona virus btn
Loading

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের ফেসবুক পেজে মদের বোতলের ছবি, কড়া পদক্ষেপ নিল সরকার

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের ফেসবুক পেজে মদের বোতলের ছবি, কড়া পদক্ষেপ নিল সরকার
ফেসবুক পেজের বিভ্রাটে ব্যবস্থা নিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক৷

যে অফিসাররা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের মিডিয়া ইউনিট সামলানোর দায়িত্বে ছিলেন, তাঁদের সবাইকেই সরানো হয়েছে৷

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: আমফান তাণ্ডবে বিধ্বস্ত পশ্চিমবঙ্গে কীভাবে কাজ করেছে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী? সেই সমস্ত ছবির সঙ্গেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের ফেসবুক পেজে ছড়িয়ে পড়েছিল মদের বোতলের ছবি৷ আর তার জেরেই মন্ত্রকের গোটা মিডিয়া ইউনিটকে সরিয়ে দিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক৷

যে অফিসাররা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের মিডিয়া ইউনিট সামলানোর দায়িত্বে ছিলেন, তাঁদের সবাইকেই সরানো হয়েছে৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের মুখপাত্র ডি জি বসুধা গুপ্তকে PIB-র ফ্যাক্ট চেক ইউনিটের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে৷ অন্যদিকে ডিরেক্টোরেট অফ অ্যাডভার্টাইজিং অ্যান্ড ভিজ্যুয়াল পাবলিসিটির অধীনস্ত ব্যুরো অফ কমিউনিকেশন-এর ডিরেক্টর জেনারেল নীতিন ওয়াকাঙ্কার-কে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের মিডিয়া শাখার মুখপাত্র হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে৷ এর আগে তিনি সিবিআই এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের মুখপাত্রের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে এসেছেন৷

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের ডেপুটি ডিরেক্টর বিরাট মজবুরকে অল ইন্ডিয়া রেডিও-তে বদলি করা হয়েছে৷ শেলাট হরিত কেতনকে ডিপিডি-তে পাঠানো হয়েছে৷

PIB-র ডেপুটি ডিরেক্টর প্রবীন কবিকেও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকে ফিরিয়ে আনা হয়েছে৷ এর আগে তিনি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের মিডিয়া শাখায় এ ভারত ভূষণ বাবু-র অধীনে কর্মরত ছিলেন৷

সূত্রের খবর, মিডিয়া ইউনিট-এর বারংবার ভুলে অসন্তুষ্ট ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ৷ তার পরেই গোটা মিডিয়া শাখাকে বদলে ফেলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়৷

গত ৭ মে পশ্চিমবঙ্গে আমফান পরবর্তী সময়ে এনডিআরএফ-এর উদ্ধারকার্যের ছবি পোস্ট করতে গিয়ে তার সঙ্গে মদের বোতলের ছবি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের ফেসবুক পেজে ছড়িয়ে পড়ে৷ যার ফলে বেজায় অস্বস্তিতে পড়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক৷ মন্ত্রকের আধিকারিকরা জানান, ওই ভুল অনিচ্ছাকৃত এবং সোশাল মিডিয়া পেজের দায়িত্বে থাকা আধিকারিক এর জন্য ক্ষমা চেয়েছেন৷

এখানেই শেষ নয়৷ দ্বিতীয় নরেন্দ্র মোদি সরকারের বর্ষপূর্তিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক থেকে যে প্রচার করা হয়, তাতে সরকারের সাফল্যের তালিকা থেকে বাদ যায় নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন পাশ করার বিষয়টি৷ পরে অন্য একটি পুস্তিকায় সিএএ পাশ করার বিষয়টি যুক্ত করা হয়৷ যদিও এই ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দফতর রুষ্ট হয়৷

শুধু তাই নয়, সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত বিভিন্ন খবরকে ভুয়ো বলে ক্রমাগত দাবি করছিল মন্ত্রকের মিডিয়া শাখা৷ নির্দিষ্ট পদ্ধতি মেনে লিখিতভাবে সংশোধনী প্রকাশ না করে ট্যুইটারেই সাংবাদিকদের নাম করে ভুল খবর প্রকাশ করার অভিযোগও তোলা হচ্ছিল৷ যা নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের মিডিয়া শাখার ভূমিকা নিয়েও অসন্তোষ তৈরি হচ্ছিল৷

 
Published by: Debamoy Ghosh
First published: June 5, 2020, 8:57 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर