এক লাখ টাকা কেজির সবজি চাষ! মিথ্যে ছড়িয়ে সত্যি ঢাকতে পারল না সেই ঠকবাজ চাষি

ভারতে কোথাও এতদিন এই সবজি চাষ হয়নি। কিন্তু এবার বিহারে নাকি অমরেশ সিং নামের এক চাষী ওই সবজির চাষ করছেন! এমনই খবর ছড়িয়েছিল।

ভারতে কোথাও এতদিন এই সবজি চাষ হয়নি। কিন্তু এবার বিহারে নাকি অমরেশ সিং নামের এক চাষী ওই সবজির চাষ করছেন! এমনই খবর ছড়িয়েছিল।

  • Share this:

    #পাটনা: মিথ্যে কথা আর কতদিন লুকিয়ে রাখা যায়! শেষ পর্যন্ত সত্যিটা বেরিয়ে এল। বিহারে চাষ হচ্ছে এক লাখ টাকা কেজির সবজি। গোটা দেশের সংবাদমাধ্যমে কিছুদিন আগে এমনই এক খবর প্রকাশিত হয়েছিল। আসলে আইএএস অফিসার সুপ্রিয়া সাহু একটি টুইট করে জানিয়েছিলেন, বিহারের এক চাষি এই অতি দামি সবজির চাষ করছেন। হপ শট নামের সেই সবজির কেজি প্রতি দাম লাখ টাকার কাছাকাছি। ভারতে কোথাও এতদিন এই সবজি চাষ হয়নি। কিন্তু এবার বিহারে নাকি অমরেশ সিং নামের এক চাষী ওই সবজির চাষ করছেন! এমন মুখরোচক খবর দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়তে বেশি সময় লাগেনি। লোকজন ওই সবজি সম্পর্কে জ্ঞান আহরণ করতে শুরু করেন। সেই সবজি কেমন দেখতে, কেন এত বেশি দাম, সব তথ্যই মানুষের হাতে হাতে ছড়িয়ে পড়ে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জানা গেল ওই চাষি আসলে ঠকবাজ, মিথ্যেবাদী।

    সবজি চাষের মিথ্যে খবর ছড়িয়ে নাম কিনতে চেয়েছিল ওই চাষি।

    আসলে সেই আইএএস অফিসার-এর দোষ নেই। তিনিও ওই মিথ্যেবাদী চাষির কথায় বিশ্বাস করে ফেলেছিলেন। আসলে অমরেশ সিং নামের ওই চাষি এমন একটি ছবি পোস্ট করেছিলেন যা দেখে যে কেউ বিশ্বাস করতে বাধ্য হতেন। একটি সর্বভারতীয় দৈনিকের সাংবাদিকরা সেই চাষির সঙ্গে সবার প্রথমে যোগাযোগ করেন। তাঁরাই ওই চাষির দামি ফসলের ক্ষেত একবার দেখতে চান। এরপরই সাংবাদিকরা বিহারের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। তারা অমরেশ সিংকে ফোন করেন। ফোনে ওই চাষি তাঁদের জানান, তাঁর বাড়ি থেকে ১৭২ কিলোমিটার দূরে নালন্দা জেলায় ওই ফসল চাষ করছেন। ওই চাষি ঔরঙ্গাবাদ জেলার বাসিন্দা। এতদিন পর্যন্ত তিনি জানিয়েছিলেন, নিজের জেলার করমদি গ্রামেই ওই দামি ফসলের চাষ করেছেন তিনি। যাই হোক নালন্দা গিয়ে ওই ক্ষেতের কোনও হদিস পাননি সাংবাদিকরা। এর পর ফোন করতেই ওই চাষি এবার বলেন, ঔরঙ্গাবাদে চাষ করছেন তিনি। সাংবাদিকরা সেখানে গিয়েও চাষের জমি ও ফসলের কোনও খোঁজ পাননি।

    গ্রামবাসীদের অনেকেই জানিয়েছেন, পাটনা থেকেও কয়েকজন আধিকারিক এসেছিলেন। হপ শুট ফসলের খোঁজ করতে তাঁরাও ঔরঙ্গাবাদ ও নালন্দা জেলায় যান। কিন্তু ওই ফসলের কোনও খোঁজ পাননি। এমনকি চাষি অমরেশ সিংও গা ঢাকা দিয়েছেন। ওই সর্বভারতীয় দৈনিকের সাংবাদিকরা গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলে জেনেছেন, অমরেশ সিং কালো চাল ও গম চাষ করে। ওই আইএএস অফিসার-এর টুইটের ভিত্তিতে News 18 Bangla সেই ফসলে সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশ করেছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জানা গেল, বিহারের ওই চাষি মিথ্যেবাদী ও ঠকবাজ।

    Published by:Suman Majumder
    First published: