দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

বিহার ভোটে এখন আর হয় না হেমা মালিনীর চর্চা! তবে লালু-নীতীশের সঙ্গে অভিনেত্রীর যোগ জানুন...

বিহার ভোটে এখন আর হয় না হেমা মালিনীর চর্চা! তবে লালু-নীতীশের সঙ্গে অভিনেত্রীর যোগ জানুন...
Hema Malini Lalu Yadav

হেমা মালিনীর গালের মতো বিহারের রাস্তাগুলি তৈরির কথা বলা লালু হেমা মালিনীকে জানান যে, ধর্মেন্দ্রকে তিনি বড় ভাই হিসেবে মানেন, এবং সেই সূত্রে হেমাও তাঁর বৌদি হলেন।

  • Share this:

#পটনা: বিহার নির্বাচনে নীতীশ-লালুকে নিয়ে আলোচনা হবে এবং হেমা মালিনীকে নিয়ে কোনও কথা হবে না, সেটা তো সম্ভব নয়। ১৯৯৫ থেকে যে কোনও বিহার নির্বাচনে অভিনেত্রী হেমা মালিনী কোনও না কোনওভাবে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন৷ আসলে, এর যোগ রয়েছে লালু এবং নীতীশের সাথে সঙ্গেই৷ সালটা ১৯৯৫৷ বিধানসভা নির্বাচনে লালু প্রসাদ যাদব মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন এবং জনসাধারণের কাছে গিয়ে নিজের জন্য ভোট চাইছিলেন। বিহারের রাস্তার পরিস্থিতি তখন খুব খারাপ ছিল। গর্তে ভরা রাস্তা খুবই দুরূহ ছিল৷ সেই সময়ই নিজের প্রচারে হেমা মালিনীকে শামিল করেন লালু যাদব।

বিহারের রাস্তা এবং লালু যাদব সম্পর্কে একটি উপাখ্যান খুব বিখ্যাত। লালু একবার এক বক্তৃতায় বলেছিলেন যে আমরা বিহারের রাস্তাগুলি হেমার জির গালের মতো মসৃণ করব। একই কথা বলে লালু যাদব ফের বলেন যে আমি বিহারের রাস্তাগুলি হেমা মালিনীর গালের মতো নরম ও মসৃণ করে তুলব। পাটনার সভায় লালুর এই ভাষণ খুবই বিখ্যাত ছিল এবং পরবর্তীতে সব দৈনিকে বড় করে ছাপাও হয়েছিল৷

যদিও লালুর বক্তব্য নিয়ে বিতর্ক বাড়তে থাকায় এবং এক মহিলাকে অপমান করে উগ্র রাজনীতির অভিযোগ ওঠে লালুর বিরুদ্ধে৷ তখন আরজেডি নেতা অবশ্য এই অভিযোগ অস্বীকার করেন৷ তবে হেমা মালিনী খুবই সুন্দরী,সে কথা বারবার বলেন তিনি। এর পরে, বিহার সরকারের শিল্প ও সংস্কৃতি বিভাগের কর্মসূচিতে অংশ নিতে এসেছিলেন হিমা মালিনীর নাচের টিম। এই অনুষ্ঠানে লালু প্রসাদ যাদব মঞ্চে দাঁড়িয়েই হেমার খুব প্রশংসা করেন।

হেমা মালিনীর গালের মতো বিহারের রাস্তাগুলি তৈরির কথা বলা লালু হেমা মালিনীকে জানান যে, ধর্মেন্দ্রকে তিনি বড় ভাই হিসেবে মানেন, এবং সেই সূত্রে হেমাও তাঁর বৌদি হলেন। একই সঙ্গে লালু হেমাকে বলেছিলেন যে, হেমাকে এতটাই পছন্দ করেন তিনি ও তাঁর পরিবার যে তাঁদের মেয়ের নাম রেখেছেন হেমা! লালু হেমা মালিনীর কত বড় ভক্ত? একবার এক সাংবাদিকের প্রশ্নে লালু উত্তর দেন যে তিনি ফ্যান নন হেমার এয়ার কন্ডিশন!

তবে বিহার বদলেছে এবং এখন রাস্তায় গর্ত দেখা যায় না। মুখ্যমন্ত্রী নীতীশের আমলে রাস্তাঘাটের উন্নয়নে অনেক কাজ হয়েছে। গাড়ির করে ছয় ঘন্টার মধ্যে বিহারের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত পৌঁছতে পারবেন। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে লালু এই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তবে নীতীশ সরকার রাস্তায় লালুর প্রতিশ্রুতি পূরণ করেছে। এটা পরিষ্কার যে খারাপ রাস্তার সমস্যা মিটেছে এবং এখন উন্নয়নের নতুন মানের কথা উঠে আসছে। তবে লালু যাদবের সময়ের রাস্তায় সমস্যা ও হেমাকে নিয়ে লালু প্রসাদ যাদবের গল্পগুলি অমর হয়ে রয়েছে।

Published by: Pooja Basu
First published: November 10, 2020, 11:50 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर