ভিস্টাডোম কোচে এবার হিমালয় দেখার সুযোগ, বড়দিনেই চালু হচ্ছে হিম দর্শন এক্সপ্রেস

ভিস্টাডোম কোচে এবার হিমালয় দেখার সুযোগ, বড়দিনেই চালু হচ্ছে হিম দর্শন এক্সপ্রেস

এবার এই ব্যবস্থা শিলিগুড়ি থেকে দার্জিলিং পর্যন্ত চালু হবে বলেও আশাবাদী রেল

  • Share this:

Abir ghoshal

#নয়াদিল্লি: দার্জিলিংয়ের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবার দেখা যাবে ভিসটাডোম কোচে। খুব শীঘ্রই ভারতীয় রেল এই ব্যবস্থা চালু করে ফেলবে বলে রেল বোর্ড সূত্রে খবর। তবে পাহাড় প্রেমীদের জন্য বড়দিনেই চালু হয়ে যাচ্ছে হিম দর্শন এক্সপ্রেস। তবে এই কোচে হিমালয় দেখা যাবে কালকা-সিমলা-কালকা রুটে। নতুন ট্রেনের পরিচয় হচ্ছে ৫২৪৫৯/৫২৪৬০ নম্বর নিয়েই। আগামী এক বছর পর্যটকরা এই ট্রেন চাপতে পারবেন। ভিসটাডোম কোচে বসে দেখতে পাবেন হিমালয়ের অপার সৌন্দর্য শিমলা থেকে।

উত্তর রেল সূত্রে জানানো হয়েছে, আমবালা ডিভিশন ছ’টি করে কোচ নিয়ে এই স্পেশাল ট্রেন চালু করতে চলেছে। বিশ্বের অন্যতম বিখ্যাত এই হেরিটেজ রুটে প্রথম শ্রেণীর এই ভিসটাডোম কোচ চলবে। কালকা স্টেশন থেকে ট্রেন ছাড়বে সকাল ৭ টার সময়ে। শিমলা পৌঁছবে দুপুর ১২:৫৫ মিনিট নাগাদ। ফিরতি পথে শিমলা থেকে ট্রেন ছাড়বে বিকেল ৩:৫০ মিনিট নাগাদ। কালকা এসে পৌঁছবে রাত ৯:১৫ মিনিট নাগাদ। আসা আর যাওয়ার পথে ট্রেন থামবে বারোগ স্টেশনে। মোট ৭টি কোচ থাকবে এই ট্রেনে। তার মধ্যে ছ’টি প্রথম শ্রেণীর এসি ভিসটাডোম কোচ এবং একটি প্রথম শ্রেণীর কোচ। এমনটাই জানাচ্ছেন উত্তর রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক দীপক কুমার।

প্রতি কোচে থাকছে ১৫টি করে আসন। ট্রেনের প্রতি কোচে থাকছে দুটি আলাদা করে এয়ার কন্ডিশন ব্যবস্থা। যা গরমের সময় কাজে লাগানো হবে।

ভিসটাডোম কোচের ভিতর থেকে পর্যটকরা বাইরের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের সবটাই দেখতে পারবেন। কোচের একদিকের যাত্রীরা আগে অন্যদিকের সৌন্দর্য দেখতে পারতেন না। সেই অসুবিধার অবসান হতে চলেছে এবার। সম্পূর্ণ কাঁচের দেওয়াল। এমনকী ছাদও কাঁচের। ফলে ৩৬০ ডিগ্রি পর্যন্ত ঘুরেই দেখা যাবে প্রকৃতিকে। বরফে মোড়া শিমলাকে এই আরামদায়ক কোচে বসে এবার প্রাণভরে উপভোগ করতে পারবেন সমস্ত পর্যটকরা। সমস্ত ধরণের স্বাচ্ছন্দ্য থাকছে এই কোচে। গ্লাস রুফের সঙ্গে ব্যবহারের উপযোগী রিভলভিং সিট, বায়োভ্যাকুয়াম টয়লেট, ব্যবহার্য আধুনিক সরঞ্জাম, অটো স্লাইডিং ডোর, টিভি স্ক্রিন। চেয়ারগুলি পুশব্যাক হওয়ায় অতি আরামদায়ক। এছাড়া নিজের ইচ্ছে মতোই চেয়ার ঘোরানো যাবে। দীপক কুমার জানাচ্ছেন, যাত্রী টানতে ট্রেনের ভাড়া অনেক কম রাখা হচ্ছে। মাত্র ৬৩০ টাকা দিলেই পাওয়া যাবে এই ট্রেনের টিকিট। সমস্ত বয়সের যাত্রীদের জন্যই এই এক ভাড়া রাখা হচ্ছে। তবে খাবারের জন্য এখনও কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে এই ট্রেন যেহেতু বিশেষ ট্রেন হিসাবে চলবে তাই ভাড়ায় কোনও ছাড দেওয়া হবে না। যেকোনও পি আর এস থেকেই এই ট্রেনের টিকিট কাটা যাবে। তবে প্রথম শ্রেণীর জন্য টিকিট পাওয়া যাবে কালকা বা শিমলা স্টেশনের বুকিং সেন্টার থেকে।

এবার এই ব্যবস্থা শিলিগুড়ি থেকে দার্জিলিং পর্যন্ত চালু হবে বলেও  আশাবাদী রেল। ইতিমধ্যেই এই বিষয়ে আগ্রহ দেখিয়েছে আই আর সি টি সি। গ্রুপ জেনারেল ম্যানেজার দেবাশিষ চন্দ্র জানাচ্ছেন, আমরা প্রস্তুত। কোচ খুব তাড়াতাড়ি চলে আসবে। উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেলওয়ের সঙ্গেও কথা চলছে। পর্যটকরা এবার কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখতে পারবেন খুব শীঘ্রই। তবে এমনই আরও একটি ভিসটাডোম কোচ দেওয়া হয়েছে মুম্বই-গোয়া রুটের জনশতাব্দী এক্সপ্রেসে। যা পর্যটন মন্ত্রকের দায়িত্বে দেওয়া হয়। গত বছর বিশাখাপত্তনম-আরাকুভ্যালির মতো রুটে ভিসটাডোম কোচ চালানো হয়েছিল। ফলে পর্যটন প্রসারের লক্ষ্যে ধীরে ধীরে ভিসটাডোমের চাহিদা বেড়েই চলেছে।

First published: 11:29:36 PM Dec 22, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर