দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

আজ শুভ জন্মদিন! ৮৭ বছরে চোখ রাখা যাক অমর্ত্য সেনের সেরা পাঁচ গ্রন্থতালিকায়!

আজ শুভ জন্মদিন! ৮৭ বছরে চোখ রাখা যাক অমর্ত্য সেনের সেরা পাঁচ গ্রন্থতালিকায়!
  • Share this:

হয় এ নিছকই সমাপতন! নয় তো ব্যাপারটাকে ব্যাখ্যা করতে হয় জ্ঞান এবং সংস্কৃতির উত্তরাধিকারের সূত্রে! কেন না, আজ ৮৭ বছরে পা রাখলেন অর্থনীতিতে দেশের নোবেলজয়ী সন্তান অমর্ত্য সেন। এই শুভ জন্মদিনে দেশের সাহিত্যক্ষেত্রে নোবেলজয়ী রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সঙ্গে তাঁর প্রত্যক্ষ যোগসূত্রটির কথা উল্লেখ না করলেই নয়!

১৯৩৩ সালের ৩ নভেম্বর শান্তিনিকেতনের পর্ণকুটির নামের গৃহে জন্মগ্রহণ করেছিলেন অমর্ত্য সেন। বাড়িটি তাঁর মাতামহ ক্ষিতিমোহন সেন শাস্ত্রীর। সংস্কৃত শাস্ত্রে সুপণ্ডিত এবং বিখ্যাত লেখক এই ক্ষিতিমোহন ছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর প্রতিষ্ঠিত বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় উপাচার্য। প্রথমজন রবীন্দ্রনাথ স্বয়ং! সেই সূত্রে ঠাকুর পরিবারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল শাস্ত্রী পরিবারের। অমর্ত্যর মা অমিতা সেন ছিলেন এক সময়ের বিখ্যাত রবীন্দ্রসঙ্গীত গায়িকা। এই সব যোগসূত্রে রবীন্দ্রনাথ নামকরণ করেন নবজাতকের।

সেই ইতিহাস পিছনে ফেলে রেখে অমর্ত্য সেন যখন ১৯৯৮ সালে দুর্ভিক্ষ, মানব উন্নয়ন তত্ত্ব, জনকল্যাণ অর্থনীতি এবং গণদারিদ্র্যের পারস্পরিক সূত্র বিশ্লেষণের কারণে অর্থনীতির নোবেল পুরস্কার পেলেন, বাঙালি ভুরু কুঁচকোয়নি। অত্যন্ত কৃতী এই বঙ্গসন্তানের বিশ্বজয়ের ইতিহাস এতটাই যুক্তিসঙ্গত আমাদের কাছে। আজ জন্মদিনে তাঁর লেখা কিছু বইয়ের কথা একবার নতুন করে মনে করিয়ে দেওয়া যাক পাঠককে।

১. কালেক্টিভ চয়েস অ্যান্ড সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার ১৯৭০ সালের এই বইতে অমর্ত্য সেন বিশ্লেষণ করে দেখিয়েছিলেন যে কোনও গোষ্ঠীর নেওয়া কোনও সিদ্ধান্ত কোনও নির্দিষ্ট পরিস্থিতিতে কতটা ফলপ্রসূ হতে পারে।

২. পভার্টি অ্যান্ড ফেমাইন্স: অ্যান এসে অন এনটাইটলমেন্ট অ্যান্ড ডিপ্রাইভেশন ১৯৮১ সালে প্রকাশিত এই বইটিতেই অমর্ত্য সেনের নোবেলজয়ী গবেষণার সূত্রটি নিহিত আছে।

৩. র‍্যাশন্যালিটি অ্যান্ড ফ্রিডম ২০০২ সালে প্রকাশিত এই বইয়ের মাধ্যমে অমর্ত্য সেন স্পষ্ট করে দিয়েছেন র‍্যাশন্যালিটি, ফ্রিডম আর জাস্টিসের পারস্পরিক সম্পর্ক।

৪. দ্য আর্গুমেনটেটিভ ইন্ডিয়ান ২০০৫ সালে প্রকাশিত এই বই শুধুই অর্থনীতি নয়, একই সঙ্গে ইতিহাসেরও আকর। প্রাচীন ভারত এবং আধুনিক ভারতের তুলনামূলক বিশ্লেষণে স্পষ্ট করে দিয়েছেন অমর্ত্য সেন যে কী ভাবে ভারতীয়দের তর্কপ্রিয়তা এই দেশের অর্থনীতি তথা সংস্কৃতিতে প্রভাব ফেলেছে!

৫. আইডেনটিটি অ্যান্ড ভায়োলেন্স: দ্য ইলিউশন অফ ডেসটিনি ২০০৬ সালে প্রকাশিত এই বইয়ে অমর্ত্য সেন যতটা না অর্থনীতিবিদ, তার চেয়ে ঢের বেশি করে দার্শনিকের ভূমিকা পালন করেছেন। হিংসাকবলিত পৃথিবী কী করে আসতে পারে শান্তির আশ্রয়ে, তারই বিন্যাস ফুটে উঠেছে এই বইয়ের প্রতি ছত্রে।

Published by: Elina Datta
First published: November 3, 2020, 10:32 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर