Home /News /national /
Presidential Election 2022: রাজি নন গোপালকৃষ্ণ গান্ধিও! রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে কে হবেন বিরোধীদের মুখ?

Presidential Election 2022: রাজি নন গোপালকৃষ্ণ গান্ধিও! রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে কে হবেন বিরোধীদের মুখ?

রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হতে রাজি নন গোপালকৃষ্ণ গান্ধি৷

রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হতে রাজি নন গোপালকৃষ্ণ গান্ধি৷

রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হিসেবে বিরোধীদের প্রথম পছন্দ ছিলেন শরদ পাওয়ার৷ কিন্তু তিনি প্রার্থী হতে রাজি হননি৷

  • Share this:

    #দিল্লি: শরদ পাওয়ার, ফারুক আবদুল্লাহের পর এবার গোপালকৃষ্ণ গান্ধি৷ রাষ্ট্রপতি পদে প্রার্থী হতে তিনিও রাজি নন বলে জানিয়ে দিলেন পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন রাজ্যপাল৷ ফলে, রাষ্ট্রপতি পদে বিরোধীরা ঐক্যবদ্ধ ভাবে যে তিন জনকে প্রার্থী করার কথা ভাবছিলেন, তাঁরা প্রত্যেকেই প্রস্তাব খারিজ করলেন৷ ফলে এবার নতুন করে কাউকে প্রার্থী করার কথা ভাবতে হবে বিরোধীদের৷

    বিবৃতি জারি করে গোপালকৃষ্ণ গান্ধি লিখেছেন, 'গভীর ভাবে এই প্রস্তাব নিয়ে চিন্তা করারপর আমি দেখলাম, িবরোধী ঐক্য ছাড়াও বিরোধী পক্ষের প্রার্থী এমন কারও হওয়া উচিত যিনি জাতীয় স্তরে মতৈক্য গড়ে তুলতে পারবেন৷ আমার মনে হয় এই কাজটি করার জন্য আরও ভাল কাউকে নিশ্চয়ই পাওয়া যাবে৷'

    আরও পড়ুন: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন, রাষ্ট্রপতি প্রার্থী বাছতে বিরোধীদের বৈঠকে যাবেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়

    কয়েকদিন আগেই দিল্লিতে বিরোধীদের প্রার্থী নিয়ে আলোচনার জন্য বৈঠক ডেকেছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তিনিই গোপালকৃষ্ণ গান্ধির নাম প্রস্তাব করেছিলেন৷ নিজেদের প্রার্থী ঠিক করতে দিল্লির পর মুম্বাইয়ে ফের বৈঠকে বসতে চলেছেন বিরোধী পক্ষের নেতারা৷

    আরও পড়ুন: নাড্ডার বাড়িতে আজ জরুরি বৈঠক, রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের প্রার্থীতে মহাচমক বিজেপির?

    রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী হিসেবে বিরোধীদের প্রথম পছন্দ ছিলেন শরদ পাওয়ার৷ কিন্তু তিনি প্রার্থী হতে রাজি হননি৷ কাশ্মীরের রাজনীতিতে সময় দিতে চান বলে যুক্তি দিয়ে প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লাহ৷ এবার একই পথে হেঁটে বিরোধী শিবিরের সমস্যা বাড়ালেন গোপালকৃষ্ণ গান্ধি৷

    রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনের জন্য মনোনয়নের শেষ দিন ২৯ জুন৷ শেষ পর্যন্ত যদি একাধিক প্রার্থীর নাম জমা পড়ে, সেক্ষেত্রে ১৮ জুলাই ভোট হওয়ার কথা৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    পরবর্তী খবর