Home /News /national /
Indian Railways: আয় বাড়াতে ভরসা সেই পণ্যবাহী ট্রেন, উৎপাদন বাড়ছে আধুনিক শক্তিশালী ইঞ্জিনের

Indian Railways: আয় বাড়াতে ভরসা সেই পণ্যবাহী ট্রেন, উৎপাদন বাড়ছে আধুনিক শক্তিশালী ইঞ্জিনের

Representative Image

Representative Image

Freight Trains are good income source of Indian Railways: ময়নাগুড়ির দুর্ঘটনা থেকে শিক্ষা, ১০০ ইঞ্জিন তৈরি হচ্ছে যাত্রীবাহী ট্রেনের। 

  • Share this:

আবীর ঘোষাল, কলকাতা: রেল বোর্ডের তরফে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে আগামী দুই আর্থিক বর্ষে ২৩৮০টি ইঞ্জিন তৈরি করা হবে দেশের চার লোকোমোটিভ ওয়ার্কসে। ভারতীয় রেলওয়ে বোর্ডের পক্ষ থেকে একটি নোটিফিকেশন জারি করা হয়েছে। ডিরেক্টর, মেক্যানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং কুমার সম্ভব জানিয়েছেন, WAP 7 ও WAG 9H ইঞ্জিন উৎপাদন করা হবে। এর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে চিত্তরঞ্জন লোকোমোটিভ ওয়ার্কস, ডানকুনি, বারাণসী ও পাতিয়ালা লোকোমোটিভকে (Freight Trains are good income source of Indian Railways)।

আরও পড়ুন-রাজ্যের এই অঞ্চলে আজও বৃষ্টির পূর্বাভাস, জেনে নিন আবহাওয়ার আপডেট

এর মধ্যে যাত্রীবাহী ট্রেন চালানোর জন্যে উৎপাদন করা হবে ১০০ টি ইঞ্জিন। আর বাকি ২২৮০ ইঞ্জিন উৎপাদন করা হবে পণ্যবাহী ট্রেনের জন্যে। রেল বোর্ড সূত্রে খবর, করোনাকালে রেলের ভাঁড়ার শূন্য হয়েছে। যাত্রীবাহী ট্রেন চালিয়ে সে অর্থে লাভ নেই রেলের ৷ ভারতীয় রেল তাই চাইছে পণ্যবাহী ট্রেন চালিয়ে রেলের ভাঁড়ারে আয় বাড়াতে। তা ছাড়া আগামী কয়েক বছরে ডেডিকেটেড ফ্রেট টার্মিনালের সংখ্যা বাড়ছে। একাধিক নতুন জায়গায় রেলের লাইন পাতা হচ্ছে।

এ ছাড়া একাধিক বেসরকারি সংস্থা পণ্য সরবরাহ করার জন্য রেল ভাড়া নিচ্ছে। তাই চাহিদার কথা মাথায় রেখেই ইঞ্জিন উৎপাদনের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। রেল বোর্ড সূত্রে খবর, চিত্তরঞ্জন লোকোমোটিভ আগামী দুই বছর ৪৫০ করে মোট ৯০০টি পণ্যবাহী ট্রেনের ইঞ্জিন উৎপাদন করবে ৷ ডানকুনি করবে দুই বছরে ৯০টি করে ১৮০টি। বারাণসী লোকোমোটিভ করতে চলেছে দুই বছরে ৪৫০টি করে ৯০০টি। আর পাতিয়ালা লোকোমোটিভ করতে চলেছে ১৫০টি করে মোটি ৩০০টি পণ্যবাহী ট্রেনের ইঞ্জিন WAG 9H উৎপাদন।

অন্যদিকে যাত্রীবাহী ট্রেন চালানোর জন্যে মোট ১০০টি ইঞ্জিন উৎপাদন করা হবে। পাতিয়ালা লোকোমোটিভ ওয়ার্কস ৫০টি করে এই WAP 7 উৎপাদন করা হবে। ময়নাগুড়ি ট্রেন দুর্ঘটনার তদন্ত রিপোর্টে উঠে আসে ইঞ্জিনের গাফিলতির বিষয়। কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটি তার তদন্তে উল্লেখ করেন, যাত্রীবাহী ট্রেন চালানোর জন্যে যে ইঞ্জিন ব্যবহার হয় তার যথাযথ পরীক্ষা করা ও নজরদারিতে যেন কোনও ফাঁক না থাকে। তবে রেল আধিকারিকদের একাংশের বক্তব্য, দেশে যত সংখ্যক ট্রেন চলাচল করে, সেই সংখ্যক ট্রেন চালানোর জন্যে পর্যাপ্ত সংখ্যক ইঞ্জিন নেই।

আরও পড়ুন-কী কাণ্ড! স্কুলের চাকরি ছেড়ে শিক্ষিকা শুরু করলেন এই কাজ, মাসে আয় করছেন ২৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত !

তাই দীর্ঘদিন ধরে একই ইঞ্জিনকে বহুবার ব্যবহার করতে হয়। ময়নাগুড়ির রিপোর্ট সামনে আসার পরে রেল ইঞ্জিন নিয়ে সাবধানী ভারতীয় রেল। রেল আধিকারিকরা জানিয়েছেন,  একটি ইঞ্জিনের কোডাল লাইফ সাধারণত ২০ বছর থাকে। তাই ধাপে ধাপে যাত্রীবাহী ট্রেনের ইঞ্জিনের সংখ্যাও বাড়ানো হচ্ছে।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published:

Tags: Indian Railways

পরবর্তী খবর