বয়স সকলের ৮০র ঘরে ! ঠাঁই বৃদ্ধাশ্রম ! বিহু নেচে ভাইরাল হলেন চার বৃদ্ধা

photo source Facebook

"ট্যাক্সি গাড়ি লোই যাম শিলং রোড" -এই গানের সঙ্গে নেচে উঠলেন ৭০-পার করা বৃদ্ধারা।

  • Share this:

    #গুয়াহাটি: গুয়াহাটির বৃদ্ধাশ্রম। সেখানে থাকেন বেশ কিছু বৃদ্ধা এক সঙ্গে। তাদের পরিবারের মানুষের হাতে আজ আর তাদের জন্য কোনও সময় নেই। তাদের সন্তানেরা আজ কেউ আছে বিদেশে। কেউ আবার দেশেই ব্যস্ত নিজের জীবনে। বিধবা মায়ের জন্য তাদের কারও কাছেই নেই সময়। আবার অনেকের ছেলে মেয়ে মায়ের শেষ জীবনটা যাতে সমবয়সীদের সঙ্গে থেকে ভাল কাটে, সেই জন্য রেখে গিয়েছেন বৃদ্ধাশ্রমে। তবে পরিবার ছেড়ে দূরে থাকতে কোন মায়েরই বা ভাল লাগে। বৃদ্ধাশ্রমে মায়েরা সারাদিন হয়তো এটা ভেবেই কাটিয়ে দেন যে, " ছেলে আজ খেয়ে গেছে তো অফিস?" "জ্বর হয়নি তো আমার ছেলের?" বৃদ্ধাশ্রমে বসেই অধীর আগ্রহে সকলে তাকিয়ে থাকেন কখন তাদের দেখতে আসবে তাদের সন্তানেরা ! সময় যায়, দিন যায়। এভাবেই তারা একদিন মানিয়ে নেন বৃদ্ধাশ্রমে। সন্তানের সঙ্গে, পরিবারের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হয়। কাছে এসে বন্ধু হয়ে যান বৃদ্ধাশ্রমের সমবয়সী বন্ধুরা। তারা কখন একে অপরের আত্মার আত্মীয় হয়ে ওঠেন তা তারা নিজেরাও টের পান না।

    তবে গুয়াহাটির 'মাদার ওল্ড এজ হোম'-এর মায়েরা কিন্তু একেবারে অন্য রকম। তারা নিজেদের সব যন্ত্রণাকে ভাসিয়ে দিয়েছেন আকাশে। বয়সের ভারে তাদের শরীর এখন নুইয়ে এসেছে। কিন্তু তাতে কি ! তাদের মন এখনও সেই শিশু সুলভই রয়ে গিয়েছে। আর সেই জন্যই তারা অসমের অসমীয়া গানে অবলীলায় মনের আনন্দে এভাবে নেচে উঠতে পারেন। "ট্যাক্সি গাড়ি লোই যাম শিলং রোড" -এই গানের সঙ্গে নেচে উঠলেন ৭০-পার করা বৃদ্ধারা। তাদের দেখলে আরও একবার আপনিও ভাববেন, জীবনকে এভাবেও কাটানো যায়। যা আছে তাতেই খুশি হয়ে ভেসে যাওয়া যায় আনন্দ সাগরে। এই নাচের ভিডিও এখন ভাইরাল।

    First published: