corona virus btn
corona virus btn
Loading

বৃহস্পতিবারই RJD ছেড়েছিলেন, প্রয়াত প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রঘুবংশ প্রসাদ সিং

বৃহস্পতিবারই RJD ছেড়েছিলেন, প্রয়াত প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রঘুবংশ প্রসাদ সিং
প্রয়াত রঘুবংশ প্রসাদ সিং৷

বরাবরই লালুপ্রসাদের বিশ্বস্ত সঙ্গী হিসেবে পরিচিত ছিলেন রঘুবংশ৷ লালুর সঙ্গেই মনমোহন সিং মন্ত্রিসভার সদস্য ছিলেন রঘুবংশ৷

  • Share this:

#দিল্লি: লালুপ্রসাদ যাদবের দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক সঙ্গী ছিলেন৷ কিন্তু গত কয়েক মাস ধরেই আরজেডি-র সঙ্গে দূরত্ব বাড়ছিল তাঁর৷ গত বৃহস্পতিবারই আরজেডি-র প্রাথমিক সদস্যপদও ছেড়ে দিয়ে দলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছিলেন৷ তার পর তিন দিনও কাটল না, দিল্লিতে প্রয়াত হলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রঘুবংশ প্রসাদ সিং৷

সপ্তাহখানেক আগে করোনা পরবর্তী শারীরিক সমস্যার জন্য তাঁকে দিল্লি এইমস-এ ভর্তি করতে হয়৷ গত বৃহস্পতিবার আরজেডি-র সদস্যপদ ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা করেন তিনি৷ বিধানসভা নির্বাচনের আগে তাঁর এই সিদ্ধান্তে রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়ায় বিহারের রাজনৈতিক মহলে৷ গত শুক্রবার রঘুবংশ প্রসাদ সিং বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারকে একটি চিঠি লেখায় তাঁর জেডিইউ-তে যোগদানের সম্ভাবনাও জোরাল হয়৷

বরাবরই লালুপ্রসাদের বিশ্বস্ত সঙ্গী হিসেবে পরিচিত ছিলেন রঘুবংশ৷ লালুর সঙ্গেই মনমোহন সিং মন্ত্রিসভার সদস্য ছিলেন রঘুবংশ৷ কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী থাকাকালীন মনরেগা প্রকল্পও তাঁরই মস্তিষ্কপ্রসূত বলে দাবি করা হয়৷ কিন্তু গত কয়েক বছরে রাজনৈতিক জীবনে কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিলেন রঘুবংশ৷ যে বৈশালী কেন্দ্র থেকে পাঁচ বারের সাংসদ ছিলেন তিনি, সেখানেই ২০১৪ এবং ২০১৯ সালের নির্বাচনে পরাজিত হন তিনি৷ তার পরেও আরজেডি-তেই ছিলেন রঘুবংশ৷ কিন্তু বৈশালীতে তাঁর প্রতিপক্ষ হিসেবে পরিচিত মাফিয়া ডন থেকে রাজনীতিতে আসা রাম সিং আরজেডি-তে যোগ দেওয়ার পর থেকেই ক্ষুব্ধ হন রঘুবংশ৷ কয়েক মাস আগে দলের জাতীয় সহ-সভাপতির পদ থেকে ইস্তফা দেন তিনি৷ দলের হয়ে দৈনিক কাজকর্মও বন্ধ করে দেন৷ লালুর ছেলে তেজস্বীর সঙ্গেও দূরত্ব তৈরি হচ্ছিল রঘুবংশের৷ শেষ পর্যন্ত বৃহস্পতিবার দলের সদস্যপদও ছেড়ে দেন তিনি৷ সেদিনই লালু প্রসাদ যাদবকেও একটি চিঠি লেখেন রঘুবংশ৷ তাতে তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দেন, এসব কিছুর পরে আর তাঁর পক্ষে দলে থাকা সম্ভব নয়৷

ওই দিনই রাঁচি থেকে পুরনো বিশ্বস্ত সঙ্গীকে নিরস্ত করতে আবেগঘন চিঠি লেখেন লালু প্রসাদ৷ যদিও সেই আবেদনে সাড়া না দিয়ে শুক্রবার নীতীশ কুমারকে চিঠি লেখেন রঘুবংশ৷ শনিবার তাঁর অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে ভেন্টিলেশনে রাখতে হয়৷ শেষ পর্যন্ত এ দিন সকালেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন প্রবীণ এই রাজনীতিবিদ৷

Published by: Debamoy Ghosh
First published: September 13, 2020, 1:11 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर