রাম মন্দির নির্মাণে ১ কোটি টাকার অনুদান দিলেন বিজেপি সাংসদ গৌতম গম্ভীর

রাম মন্দির নির্মাণে ১ কোটি টাকার অনুদান দিলেন বিজেপি সাংসদ গৌতম গম্ভীর

রাম মন্দির নির্মাণে ১ কোটি টাকা দিলেন বিজেপি সাংসদ গৌতম গম্ভীর

গত ১৫ জানুয়ারি শ্রীরাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্ট ও ভিএইচপি মিলে গোটা দেশে জুড়ে রাম মন্দির নির্মাণের জন্য অর্থ সংগ্রহ অভিযান শুরু করেছে। দেশের প্রায় ১৩ কোটি পরিবারে পৌঁছে যাওয়ার লক্ষ্য রয়েছে তাদের৷ শ্রী রাম মন্দির ধন সংগ্রহ অভিযান নাম দেওয়া হয়েছে এই কর্মসূচির৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণের জন্য ১ কোটি টাকা অনুদান দিলেন বিজেপি সাংসদ ও প্রাক্তন ক্রিকেটার গৌতম গম্ভীর৷ এক বিবৃতিতে তিনি জানিয়েছেন, "একটি ঐশ্বর্যশালী রাম মন্দির সকল ভারতীয়র স্বপ্ন৷ অবশেষে দীর্ঘদিনের এই ইস্যু থেমেছে৷ এই মন্দির একতা ও প্রশান্তির পথ করে দেবে৷ এই প্রচেষ্টায় আমার এবং আমার পরিবারের তরফে একটি ছোট্ট অবদান রইল৷"

    গত ১৫ জানুয়ারি শ্রীরাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্ট ও ভিএইচপি মিলে গোটা দেশে জুড়ে রাম মন্দির নির্মাণের জন্য অর্থ সংগ্রহ অভিযান শুরু করেছে। দেশের প্রায় ১৩ কোটি পরিবারে পৌঁছে যাওয়ার লক্ষ্য রয়েছে তাদের৷ শ্রী রাম মন্দির ধন সংগ্রহ অভিযান নাম দেওয়া হয়েছে এই কর্মসূচির৷ প্রথম দিনেই রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ ৬ লক্ষ টাকার অনুদান দিয়েছেন৷ এই কর্মসূচি শুরু হওয়ার তিন দিনের মধ্যেই ১০০ কোটি টাকার অনুদান সংগ্রহ করে রেকর্ড গড়েছে রাম মন্দির ট্রাস্ট।

    দিল্লিতে বিজেপি শহর জুড়ে দরজায় মন্দির নির্মাণের অনুদান সংগ্রহ করছে৷ বিজেপি-র সাধারণ সচিব ও এই প্রচারের কনভেনর কুলজিত চাহাল বলছেন, "দরজায় দরজায় গিয়ে ১০, ১০০ এবং ১০০০ টাকার কুপোন কেটে অনুদান নেওয়া হচ্ছে৷" তিনি জানিয়েছেন, ১০০০ টাকার ওপর চাঁদা দিতে ইচ্ছুকদের চেক দিতে বলা হয়েছে৷, রাম মন্দিরের সঙ্গে বহু মানুষের আবেগ জড়িয়ে রয়েছে৷ তাঁরা এক কোটি টাকা বা তারও বেশি অনুদান দিতে চাইছেন বলেই জানান চাহাল৷

    রাজ্যসভার সাংসদ ও মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দিগ্বিজয় সিংও কিছুদিন আগে রাম মন্দির নির্মাণের জন্য ১ লক্ষ ১১ হাজার ১১১ টাকার অনুদান দিয়েছিলেন৷ তিনি বলেছিলেন, "ভগবান রাম আমার মধ্যে বিরাজ করেন৷ আমি কখনই ধর্মীয় অনুভূতির সঙ্গে রাজনীতিকে মিশিয়ে ফেলিনি৷ আমি জাতীয়তাবাদের সঙ্গে ধর্মকে জুড়তে চাই না৷"

    Published by:Subhapam Saha
    First published: