corona virus btn
corona virus btn
Loading

জীবনদায়ী ওষুধ নিয়ে আকাশপথে উড়ছে একের পর এক বিমান!

জীবনদায়ী ওষুধ নিয়ে আকাশপথে উড়ছে একের পর এক বিমান!

এখনও পর্যন্ত ওই সব উড়ান সারা দেশে প্রায় প্রায় ১৮৪ টন ওষুধ সরবরাহ করেছে। এই ওষুধ নিয়ে যাওয়া হয়েছে 'উড়ান' প্রকল্পের অধীনে।

  • Share this:

#কলকাতা: করোনা আতঙ্কে আকাশপথ এখন বন্ধ। লকডাউনের যাঁতাকলে আকাশপথে যাত্রী পরিবহণ পুরোপুরি থমকে গিয়েছে। তাই বলে কি বিমান উড়ছে না? অবশ্যই উড়ছে। এবং তা উড়ছে দেশের মানুষের অতি প্রয়োজনীয় ওষুধ পৌঁছে দেওয়ার জন্য। কেন্দ্রীয় বিমান পরিবহণ মন্ত্রকের তত্ত্বাবধানে এই পুরো কাজটি সংগঠিত হয়েছে।

গত ২৫ মার্চ থেকে সারা দেশে বিমান পরিবহণ বন্ধ হয়। তার পর থেকে সারা দেশে কিন্তু ১৩২ বার বিমান উড়েছে শুধুমাত্র জীবনদায়ী ওষুধ সরবরাহের জন্য। এখনও পর্যন্ত ওই সব উড়ান সারা দেশে প্রায় প্রায় ১৮৪ টন ওষুধ সরবরাহ করেছে। এই ওষুধ নিয়ে যাওয়া হয়েছে 'উড়ান' প্রকল্পের অধীনে। এয়ার ইন্ডিয়া আর বায়ুসেনার বিশেষ বিমান তো আছেই। সঙ্গে রয়েছে বেসরকারি বিমান সংস্থার বিমানও।

বেসরকারি বিমান সংস্থার মধ্যে যেমন ইন্ডিগো বা স্পাইসজেট যেমন আছে, তেমনই রয়েছে ব্লু-ডার্টের মতো কারগো সংস্থাও। গত কয়েকদিনে এরা প্রায় দু'হাজার টন ওষুধ সরবরাহ করেছে। এ জন্য ২৩৪ বার কারগো বিমান উড়েছে আকাশে। তবে এই সব সংস্থা ওষুধ সরবরাহ করেছে বাণিজ্যিক ভাবে।

দেশের বিভিন্ন দুর্গম স্থান যেমন, লাদাখ, কারগিল, ডিমাপুর ইম্ফল, গুয়াহাটি, লে, শ্রীনগর, পোর্ট ব্লেয়ারে ওষুধ পৌঁছে দেওয়ার কাজ করেছে ওই কারগো বিমানগুলি। এমনকী, করোনা-সহ নানা চিকিৎসায় ব্যবহারের জন্য বিভিন্ন যন্ত্রপাতিও আনা হয়েছে চিন থেকে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের এক কর্তার কথায়, "সারা দেশে এই পরিস্থিতিতে ওষুধ পর্যাপ্ত পরিমাণে মজুত রাখা এবং তা সরবরাহ করা ভীষণ জরুরি। সে কারণেই দেশের বিভিন্ন দুর্গম এলাকায় আমরা বিমানের মাধ্যমে ওষুধ পৌঁছে তা বজায় রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।"

First published: April 6, 2020, 10:58 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर