Home /News /national /
Fire in Telangana: মাঝরাতে হঠাৎ আগুন গোডাউনে, 'বাঁচাও-বাঁচাও' আর্তিতে জ্বলে-পুড়ে ছাই ১১ শ্রমিক!

Fire in Telangana: মাঝরাতে হঠাৎ আগুন গোডাউনে, 'বাঁচাও-বাঁচাও' আর্তিতে জ্বলে-পুড়ে ছাই ১১ শ্রমিক!

ভয়াবহ আগুন

ভয়াবহ আগুন

Fire in Telangana: গোডাউনটি সেকেন্দ্রাবাদের ভৈগুড়ার একটি ঘিঞ্জি এলাকায় অবস্থিত হওয়ায় দ্রুত গতিতে আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

  • Share this:

    #সেকেন্দ্রাবাদ: তেলেঙ্গানার সেকেন্দ্রাবাদে একটি গোডাউনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে (Fire in Telangana)। দমকলের বেশ কয়েকটি ইঞ্জিন ঘটনাস্থলে উপস্থিত রয়েছে এবং আগুন নেভানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। পুলিশ জানিয়েছে, বিহারের ১২ জন পরিযায়ী শ্রমিক ওই গোডাউনে আটকে পড়েছিলেন। এক শ্রমিক দোতলা ভবনের প্রথম তলা থেকে লাফ দিয়ে আগুন থেকে রক্ষা পেলেও ১১ জন শ্রমিক প্রাণ হারান। গোডাউনটি সেকেন্দ্রাবাদের ভৈগুড়ার একটি ঘিঞ্জি এলাকায় অবস্থিত হওয়ায় দ্রুত গতিতে আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

    প্রাথমিক ভাবে অনুমান, গোডাউনে শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগেছে। ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে পুলিশ। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। রাতের অন্ধকারে এতজন শ্রমিকের বেঘোরে মৃত্যু হওয়ায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে গোটা এলাকায়।

    আরও পড়ুন: উত্তর প্রদেশ পুলিশের কাছে এল ভয়ংকর ইমেল, গোটা দিল্লিজুড়ে জারি হাই অ্যালার্ট!

    প্রসঙ্গত, গত বছরের অগস্ট মাসেই তেলেঙ্গানার শ্রীসাইলম পাওয়ার স্টেশনে আগুন লেগে মৃত্যু হয়েছিল নয় জনের। যারা মারা গিয়েছিলেন, তাঁদের মধ্যে সাতজন ছিলেন তেলেঙ্গানা রাজ্য বিদ্যুৎকেন্দ্রের কর্মী। কৃষ্ণ নদীর ওপর স্থিত জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র শ্রীসাইলম পাওয়ার স্টেশন। রিজার্ভার সংলগ্ন দুই কিলোমিটার টানেলের মধ্যে বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি। ইলেকট্রিক প্যানেল থেকে সেই আগুন ছড়িয়ে পড়েছিল।

    আরও পড়ুন: গরম থেকে রেহাই দিতে আসছে বৃষ্টি? বাংলার জন্য জরুরি পূর্বাভাস! কতটা বদলাবে পরিস্থিতি?

    ওই ঘটনাতেও শর্ট সার্কিট থেকে ইলেকট্রিক প্যানেলে আগুন ধরে গিয়েছিল। এরপর সেটি পুরো কেন্দ্রে ছড়িয়ে যায়। বিদ্যুৎ ছিন্ন করার চেষ্টা করা হলেও তা সম্ভব হয়নি। আগুনের তেজ এমন ছিল যে অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থাও কিছু করতে পারেনি। মৃতদের মধ্যে ছিলেন তেলেঙ্গানা রাজ্য বিদ্যুৎ সংস্থার ডেপুটি ইঞ্জিনিয়ার সহ আরও সাতজন। এছাড়াও অ্যামারন ব্যাটিরজের দুইজন মারা গিয়েছিলেন।

    Published by:Suman Biswas
    First published:

    Tags: Fire, Migrant workers

    পরবর্তী খবর