ছেলে আইনজীবী ! কপালে জুটত মার, লাথি ! অবশেষে পালিয়ে প্রাণে বাঁচলেন বৃদ্ধ

গত ১৫ বছর ধরে ৮০ বছরের বৃদ্ধ রমেশ চন্দ্র গুইনকে একটি ঘরে বন্ধ করে রাখার অভিযোগও উঠেছে ভাগ্নের পরিবারের বিরূদ্ধে।

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 15, 2019 08:34 PM IST
ছেলে আইনজীবী ! কপালে জুটত মার, লাথি ! অবশেষে পালিয়ে প্রাণে বাঁচলেন বৃদ্ধ
photo source collected
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 15, 2019 08:34 PM IST

#মেদিনীপুর: আছে সবাই, কিন্তু তবুও জোটেনি আশ্রয়। কপালে জুটত ভাগ্নে ও ভাগ্নের মেয়ের হাতে মার। গত ১৫ বছর ধরে ৮০ বছরের বৃদ্ধ রমেশ চন্দ্র গুইনকে একটি ঘরে বন্ধ করে রাখার অভিযোগও উঠেছে ভাগ্নের পরিবারের বিরূদ্ধে।

কোনও ভাবে সেখান থেকে পালিয়ে বর্তমানে ৮০ বছরের বৃদ্ধ রমেশ চন্দ্র গুইনের আশ্রয় হয়েছে খোলা আকাশের তলে। গতকাল রাতে অসুস্থ অবস্থায় রাস্তার ধারে পড়ে ছিলেন এই বৃদ্ধ। পথ চলতি তিন যুবক দেখতে পায় অসুস্থ বৃদ্ধকে। ওই তিন যুবকের চেষ্টায় মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রমেশ বাবু। জানা যাচ্ছে, বৃদ্ধের বাড়ি বাঁকুড়ায়। ছেলে শুভেন্দু গুইন নাকি বাঁকুড়া আদালতের আইনজীবী। কিন্তু ছেলে বৌমার সংসারে ঠাঁই হয়নি এই বুড়ো বাপের। তাই বৃদ্ধ বয়সে মাথা গোঁজার জন্য ভরসা ছিল ভাগ্নে । তার বাড়ি মহাতাবপুরে। ভাগ্নের নাম স্বপন মল্লিক। কিন্তু সেখানেও দু মুঠো ভাতের সঙ্গে জুটত লাথি, ঘুষি ও লাঠির ঘা। তাই ভয়ে আতঙ্কে সেখান থেকে পালিয়ে জীবন বাঁচানোর কথা ভেবেছিলেন রমেশ চন্দ্র গুইন। কিন্তু এখন তিনি ছেলে বা ভাগ্নে কারও কাছেই ফিরতে চাইছেন না। আপাতত হাসপাতালেই রয়েছেন তিনি।

First published: 08:34:31 PM Sep 15, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर