দেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

নয়া কৃষি আইন নিয়ে কৃষক আন্দোলন পুরোটাই রাজনৈতিক, অর্থনীতির কোনও যোগ নেই, মন্তব্য IMF এক্সজিকিউটিভ ডিরেক্টর সুরজিৎ ভল্লার

নয়া কৃষি আইন নিয়ে কৃষক আন্দোলন পুরোটাই রাজনৈতিক, অর্থনীতির কোনও যোগ নেই, মন্তব্য IMF এক্সজিকিউটিভ ডিরেক্টর সুরজিৎ ভল্লার
সুরজিৎ ভাল্লা।

CNN-News18-কে এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারে সুরজিৎ ভল্লা বলেন, ‘এই আন্দোলন সংগঠিত করেছেন কিছু ধনী, সুবিধেবাদী রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত কৃষকেরা, যারা বিশেষত পঞ্জাব ও হরিয়ানা রাজ্যের বাসিন্দা ৷’

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: দিল্লিতে কৃষক আন্দোলনের সঙ্গে অর্থনীতির কোনও যোগ নেই ৷ পুরোটাই ঘটছে রাজনৈতিক কারণে ৷ নয়া কৃষি আইনের প্রতিবাদে কৃষক আন্দোলন নিয়ে এমন মন্তব্যই করলেন অর্থনীতিবিদ এবং IMF এক্সজিকিউটিভ ডিরেক্টর সুরজ ভল্লা ৷ CNN-News18-এর সঙ্গে কৃষক আন্দোলন নিয়ে এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারে সুরজিৎ ভল্লা জানান, আসলে সমস্ত ভারতীয় কৃষকরাই এই আইনের বিরুদ্ধে তা নয়, কৃষকদের একটা ক্ষুদ্র অংশই এই প্রতিবাদ বিক্ষোভে সামিল ৷

কেন্দ্রীয় সরকারের কৃষি আইনের প্রতিবাদে পথে নেমেছেন লক্ষ লক্ষ কৃষক। রাজধানীর সীমানায় দিল্লির শৈত্যপ্রবাহ-করোনা সংক্রমণের আশঙ্কার পরোয়া না করে ধর্ণায় ভারতের সেই অন্নদাতারা ৷ এই বিক্ষোভ আন্দোলনের ১৭ তম দিনে CNN-News18-কে এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারে সুরজিৎ ভল্লা বলেন, ‘এই আন্দোলন সংগঠিত করেছেন কিছু ধনী, সুবিধেবাদী রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত কৃষকেরা, যারা বিশেষত পঞ্জাব ও হরিয়ানা রাজ্যের বাসিন্দা ৷’ IMF এক্সজিকিউটিভ ডিরেক্টরের মতে, ‘এই আন্দোলনের সঙ্গে অর্থনীতির কোনও যোগ নেই বা এর উদ্দেশ্য কোনও অর্থনৈতিক কারণও নয় ৷ পুরোটাই রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত ৷ ’

নয়া কৃষি আইনের প্রতিবাদে সামিল কৃষকদের মূল দাবিই হল, এই নতুন আইন মান্ডি ব্যবস্থা এবং নূন্যতম সহায়ক মূল্যের উপর প্রভাব ফেলবে ৷ আন্দোলনকারীদের এই দাবিকে উড়িয়ে দিয়ে CNN-News18-এর জাক্কা জ্যাকবকে ভল্লা বলেন, ‘ভারতে হাজার মিলিয়ন কৃষক আছেন ৷ তাদের কতজন MSP, APMC -এর সুবিধা পান? বাকি পৃথিবীর তুলনায় গমের দাম ভারতে ৪০-৫০ শতাংশ বেশি ৷ আসলে আন্দোলনকারীরা MSP এবং ন্যূনতম শ্রম মূল্যের ধারণাকেই গুলিয়ে দিচ্ছে ৷ এই দুটো টার্মের মধ্যে কোনও তুলনাই হতে পারে না ৷’

এখানেই প্রশ্ন ওঠে সুবিধা পাচ্ছে কারা? IMF এক্সজিকিউটিভ ডিরেক্টর বলেন, ‘৯০ থেকে ৯৫ মিলিয়ন কৃষকেরা ফসল ফলান কিন্তু তাদের বাজারের সঙ্গে কোনও যোগ থাকে না ৷ বাকি অংশই এই ধনী কৃষকেরা যারা সমস্ত সুযোগ সুবিধা পান ৷ PDS সিস্টেম যখন এসেছিল সেই ১৯৮০ থেকেই এই সমস্যা চলছে ৷ আসলে প্রথমে এই আন্দোলন শুরু করেন একদল ধনী, সুবিধেবাদী কৃষক, নতুন আইনের ফলে যাদের সিস্টেম থেকে সুবিধা নেওয়ার পথ বন্ধ হয়ে গিয়েছে ৷ পরে হুইস্পারিং ক্যাম্পেনের ফলে বাকি মানুষেরাও এই আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত হয় ৷ এতেই বিপুল সংখ্যক মানুষের সমাগম ধর্ণায় ৷ ’

‘টম্যাটো, ডাল, পেঁয়াজ, জোয়ারের মতো খাদ্য দ্রব্যের দাম আকাশ ছুঁয়েছে ৷ সেখানে শুধুমাত্র কৃষকদের একটা ক্ষুদ্র গোষ্ঠীকে শান্ত করতে তাদের কথা মেনে নেওয়ার যুক্তি কী? পঞ্জাবের সব কৃষকদের ধরলে সংখ্যাটা ১ মিলিয়ন দাঁড়াবে ৷ শুধু মাত্র ভারতের মতো এত বড় দেশের মাত্র দুটো অঞ্চলের কৃষকদের আপত্তির কথা শোনা হবে কেন? ’ কৃষক আন্দোলনের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সুরজিৎ ভল্লা ৷ তাঁর আপত্তির কথা শুনে যখন প্রশ্ন করা হয়, তাহলে মন্টেক সিং আলুওয়ালি, রঘুরাম রাজন এবং কৌশিক বসুর মতো জনপ্রিয় অর্থনীতিবিদরা কেন এই নতুন কৃষি আইনকে সমর্থন করছেন না? উত্তরে IMF এক্সজিকিউটিভ ডিরেক্টর সুরজিৎ ভল্লা বলেন, ‘ওদের সম্ভবত নিজেদের কোনও রাজনৈতিক উদ্দেশ্য আছে ৷ নইলে অনেক অর্থনীতি বিশেষজ্ঞরাই এই নতুন কৃষি আইনকে সমর্থন ও স্বাগত জানিয়েছেন ৷’

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে গঠিত ক্যাবিনেটের নিয়োগ কমিটি প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ সুরজিৎ ভল্লাকে IMF-এ নিযুক্ত করে ৷ ভারতের পাশাপাশি ভল্লা বাংলাদেশ, ভুটান এবং শ্রীলঙ্কারও প্রতিনিধিত্ব করেন IMF-এর দরবারে ৷

Published by: Elina Datta
First published: December 13, 2020, 3:38 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर