• Home
  • »
  • News
  • »
  • national
  • »
  • মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস সরকারের সময় চাষিদের ঋণ মকুব হয়েছিল, এখন আবার ব্যাঙ্ক টাকা ফেরত চাইছে

মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস সরকারের সময় চাষিদের ঋণ মকুব হয়েছিল, এখন আবার ব্যাঙ্ক টাকা ফেরত চাইছে

Representative Image

Representative Image

ভোপালের উপকণ্ঠে মিসরোদ গ্রামে ভোজরাজের ১০ একর জমি আছে৷ কংগ্রেস সরকার মধ্যপ্রদেশে প্রথম পর্যায়ে যে ২২ লক্ষ কৃষকের ঋণ মকুব করেছিল, তাঁদেরই একজন ভোজরাজ৷

  • Share this:

    #ভোপাল: তিন দিন ধরে খুবই চিন্তায় রয়েছেন ভোজরাজ পাতিদার৷ মধ্যপ্রদেশে যখন কমলনাথ সরকার ছিল, তখন ৮৩ হাজার টাকার তাঁর মকুব হয়ে যায়৷ ঋণ মকুবের সেই সার্টিফিকেটও রয়েছে তাঁর কাছে৷ এখন আবার ব্যাঙ্ক তাঁকে ও তাঁর ছেলেকে সেই টাকা ফেরত দেওয়ার জন্য চাপ দিচ্ছে৷

    ভোপালের উপকণ্ঠে মিসরোদ গ্রামে ভোজরাজের ১০ একর জমি আছে৷ কংগ্রেস সরকার মধ্যপ্রদেশে প্রথম পর্যায়ে যে ২২ লক্ষ কৃষকের ঋণ মকুব করেছিল, তাঁদেরই একজন ভোজরাজ৷ কো-অপারেটিভ সোসাইটি থেকে ৩ লক্ষ টাকা ঋণ নিয়েছিলেন৷ ৮৩ হাজার টাকা ঋণ মকুব হয়ে যায় কংগ্রেস সরকারের আমলে৷ সার্টিফিকেটও পান তিনি৷

    মার্চ মাসে কংগ্রেস সরকার পড়ে যাওয়ার পরেই ঋণ মকুব প্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে গিয়েছে৷ এবার ভোজরাজের মতো কয়েক লক্ষ কৃষককে ব্যাঙ্ক ডিফল্টার বা ঋণখেলাপির তকমা দিচ্ছে৷

    আরেক কৃষক সন্তোষ পাতিদার জানাচ্ছেন, তাঁকেও একই ভাবে কংগ্রেস সরকারের আমলে মকুব হয়ে যাওয়া ঋণ ফেরত দিতে চাপ দিচ্ছে ব্যাঙ্ক৷ তাঁর কথায়, 'সরকার পরিবর্তন হলেও আমার কিছু যায় আসে না৷ আমি টাকা কেন ফেরত দেব? আমার কাছে ঋণ মকুবের সার্টিফিকেট আছে৷'

    মিসরোদের কো-অপারেটিভ সোসাইটির ম্যানেজার নাদিম খান জানাচ্ছেন, বর্তমান রাজ্য সরকার টাকা দিলেই আমরা আবার কৃষকদের ঋণ মকুব করে দেব৷

    কংগ্রেস সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, ৪৮ লক্ষ কৃষকের কৃষি ঋণ মকুব করে দেওয়া হবে৷ ২২ লক্ষ কৃষকের ঋণ মকুবও হয়ে যায়৷ কিন্তু ঋণ মকুব শুরু হওয়ার পরেই সরকারের পতন হয়৷ এখথন বিজেপি সরকার ঋণ মকুব নিয়ে কোনও কথাই বলছে না৷ ফলে ১৫ লক্ষ কৃষক অন্ধকারে৷

    Manoj Sharma

    Published by:Arindam Gupta
    First published: