কৃষক আন্দোলন : নারী দিবসে রাজধানী সীমান্তে হাজার হাজার মহিলা

মহিলা আন্দোলনকারী

উওমেন্স ডে উপলক্ষ্যে মহিলা আন্দোলনকারীদের জন্য আলাদা মঞ্চও তৈরি করা হয়েছিল এদিন। কৃষক নেতারা জানিয়েছেন, কৃষিক্ষেত্র ও জীবনে নারীর ভূমিকা তুলে ধরতেই আন্তর্জাতিক নারী দিবসের দিন এই ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি :  এতদিন জাতীয় রাজধানীর সিংঘু সীমান্ত সহ বিভিন্ন সীমান্তে শুধুমাত্র পুরুষ কৃষকরাই প্রতিবাদের মুখ্য মুখ হয়ে উঠেছিলেন। আর মহিলাদের দেখা যেত কৃষিক্ষেত্রে কাজ করতে অথবা দিল্লি বা অন্যান্য বিক্ষোভ সমাবেশের হেঁসেল সামলাতে। কিন্তু ছবিটা বদলে গেল সোমবার, আন্তর্জাতিক নারী দিবসের সকালে। নারী দিবস উপলক্ষ্যে সোমবার রাজধানী দিল্লির সীমান্তে এসে পৌঁছলেন কৃষক আন্দোলনের হাজার হাজার মহিলা সমর্থক।

    পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী এদিন পঞ্জাব, হরিয়ানা ও দেশের অন্যান্য প্রান্ত থেকে প্রায়  হাজার হাজার মহিলা প্রতিবাদকারী জড়ো হতে শুরু করেন দিল্লির অলিন্দে। এঁদের মধ্যে কেউ কেউ পঞ্জাব ও হরিয়ানার বিভিন্ন জেলা থেকে নিজেরাই ট্র‌্যাক্টর চালিয়ে দিল্লি সীমান্তে পৌঁছন। দিল্লির সীমান্তের প্রতিবাদ স্থানে জমায়েত হয়ে ধর্ণা এবং অনশনের মধ্যে দিয়েই এক অন্যরকম আন্তর্জাতিক মহিলা দিবস উদযাপন করেন তাঁরা।

    উওমেন্স ডে উপলক্ষ্যে মহিলা আন্দোলনকারীদের জন্য আলাদা মঞ্চও তৈরি করা হয়েছিল এদিন। কৃষক নেতারা জানিয়েছেন, কৃষিক্ষেত্র ও জীবনে নারীর ভূমিকা তুলে ধরতেই আন্তর্জাতিক নারী দিবসের দিন এই ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

    ভারতীয় কিষাণ সংগঠনের (‌উগ্রাহন)‌ সাধারণ সম্পাদক সুখদেব সিং কোকরিকালান বলেন, '"ভারতীয় কিষাণ ইউনিয়নের (‌উগ্রাহন)‌ পক্ষ থেকে ৫০০টি বাস, ৬০০টি মিনিবাস, ১১৫টি ট্রাকের পাশাপাশি ২০০টি ছোট গাড়ির বন্দোবস্ত করা হয়েছে মহিলা প্রতিবাদকারীদের জন্য। সোমবার আন্তর্জাতিক মহিলা দিবস উদযাপন করার পর তাঁরা পরের দিন নিজেদের গ্রামে ফিরে যাবেন।"

    "সব জায়গায় মহিলারা প্রতিবাদের নেতৃত্বে থাকেন। আজকের দিনটা তাঁদের।" নারী দিবসের প্রাক্কালে এমনটাই বললেন, স্বরাজ ইন্ডিয়ার সভাপতি যোগেন্দ্র যাদব। তিনি এও বলেন, '‌সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা' আন্দোলনের সময় সর্বদা মহিলা কৃষকদের ক্ষমতাকে গুরুত্ব দিয়ে এসেছে।  কৃষক সংগঠনের দাবি, প্রায় ৪০ হাজার মহিলা পঞ্জাব, হরিয়ানা ও উত্তরপ্রদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সিংঘু, টিকরি ও গাজিপুর সহ দিল্লির প্রতিবাদ স্থানে জমায়েত হয়েছেন। এছাড়াও প্রত্যেক কৃষক সংগঠনের মহিলা শাখা রয়েছে, যার মধ্যে সবচেয়ে বৃহৎ ভারতীয় কিষাণ ইউনিয়নের (‌উগ্রাহন)‌ মহিলা শাখাটি।

    কৃষক সংগঠনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে এই মহিলা আন্দোলনকারিরা সোমবার আন্তর্জাতিক মহিলা দিবস পালন করে আবার ফিরে যাবেন তাঁদের সন্তান, ক্ষেত ও পরিবারের বয়স্কদের দেখভালের কাজে। তবে এদিন গাজীপুর বা সিংঘু সীমান্তে যে ছোটখাট হলুদ ঝড়ের স্বাক্ষি থাকল রাজধানী তার স্মৃতি বহুদিন মনে রাখবে দিল্লি।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: