'ওদেরকে ১ ঘণ্টায় ফাঁসি দেব, কিন্তু নির্ভয়ার মায়ের দিকে তাকাতে পারব না,' বললেন ফাঁসুড়ে পবন

'ওদেরকে ১ ঘণ্টায় ফাঁসি দেব, কিন্তু নির্ভয়ার মায়ের দিকে তাকাতে পারব না,' বললেন ফাঁসুড়ে পবন
পবন ফাঁসুড়ে

আশাদেবী সম্পর্ক বলতে গিয়ে চোখ ভিজে গেল পবনের৷ বললেন, 'ওই ৪ জনের ফাঁসি হলে তবেই ওই মা শান্তিতে ঘুমোতে পারবেন৷ কিন্তু এখনও অপরাধীরা শ্বাস নিচ্ছে৷'

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: এমন একজন মানুষ, যার কোনও মায়া-দয়া নেই৷ ঠান্ডা মাথায় মানুষকে মারতে পারে৷ ফাঁসুড়ে শব্দটা শুনলেই, অনেকের মনে এরকম একটি ছবি ভেসে ওঠে৷ কিন্তু নির্ভয়া গণধর্ষণ মামলায় ফাঁসুড়ের মন কেঁদে উঠেছে৷ কথা হচ্ছে পবন ফাঁসুড়ের৷ পবনই সম্ভবত ফাঁসি দেবেন নির্ভয়া গণধর্ষণে ৪ দোষীকে৷

ফাঁসির দড়িটা নিয়ে নাড়াচাড়া করতে করতে পবন রেগে গিয়ে বললেন, 'পুরোটাই তো আমার হাতে৷ ওই ৪ জনকে এক ঘণ্টার মধ্যে ফাঁসি দিয়ে দিতে পারি৷ আমার হাত কাঁপবে না৷' এরপরেই তাঁর সংযোজন, 'কিন্তু নির্ভয়ার মায়ের মুখের দিকে তাকাতে পারব না৷ সেই সাহস আমার নেই৷ অপরাধীদের ফাঁসি দিতে আমার কোনও অসুবিধা নেই৷ কিন্তু নির্ভয়ার মায়ের চোখের দিকে তাকানোর সাহস আমার নেই৷' তবে নির্ভয়ার মায়ের সঙ্গে দেখা করারও ইচ্ছে প্রকাশ করলেন পবন৷

আশাদেবী সম্পর্কে বলতে গিয়ে চোখ ভিজে গেল পবনের৷ বললেন, 'ওই ৪ জনের ফাঁসি হলে তবেই ওই মা শান্তিতে ঘুমোতে পারবেন৷ কিন্তু এখনও অপরাধীরা শ্বাস নিচ্ছে৷'

পবনদের বংশে গত তিন প্রজন্ম ফাঁসুড়ে৷ মিরাটের অলোক বিহার কলোনির বাসিন্দা পবন৷ পবনের আগে ওঁর বাবা মম্মু সিং ও দাদু কাল্লু সিংও ফাঁসুড়ে ছিলেন৷ পবন চান, এই ধারা বজায় থাকুক৷ তাঁর কথায়, 'বাবা মারা যাওয়ার পর আমি বিভিন্ন জেলে ঘুরেছি, এই কাজের জন্য৷ কিছুকাল আগে মিরাট জেল থেকে ৩ হাজার টাকা করে স্টাইপেন্ড পেতাম৷ অনেক চেষ্টার পর ৩ হাজার টাকা বেড়ে ৫ হাজার হয়েছে৷ ওই টাকায় সংসার চলে না৷ তাই ফাঁসুড়ে কাজ আমার পরের প্রজন্ম এগিয়ে নিয়ে যাবে কিনা, জানি না৷ আমি সরকারের অনুরোধ করেছি, ফাঁসুড়ের পারিশ্রমিক বাড়ানো হোক৷ দেখা যাক৷'

First published: 07:04:43 PM Jan 08, 2020
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर