Home /News /national /
এত অতিরিক্ত সময় কেন! বিশ্বকাপে বাড়ছে বিতর্ক, ফিফার নিয়ম কী বলছে জেনে নিন

এত অতিরিক্ত সময় কেন! বিশ্বকাপে বাড়ছে বিতর্ক, ফিফার নিয়ম কী বলছে জেনে নিন

Extra time rules by fifa: কাতারে বল গড়াতেই বিতর্ক। বিতর্ক গড়ানো বল না থামানো নিয়েও।

  • Share this:

#দোহা: কাতারে বল গড়াতেই বিতর্ক। বিতর্ক গড়ানো বল না থামানো নিয়েও। প্রায় প্রত্যেকটি ম্যাচেই দুই হাফ মিলিয়ে ১০-১৫ অতিরিক্ত খেলা হচ্ছে। প্রশ্ন উঠছে, কেন রেফারি এত বেশি বেশি সময় ধরে খেলাচ্ছেন? ফিফার নতুন নিয়মে কী রয়েছে!

আসলে কাতার বিশ্বকাপ প্রযুক্তির বিশ্বকাপ। চাইলেই সময় নষ্ট করার আর উপায় নেই। ফিফা রেফারি কমিটির চেয়ারম্যান পিয়ের লুইঘি কলিনা বলেছেন, নব্বই মিনিটই যেন খেলা হয়!

আরও পড়ুন- ফুটবলার নেইমার ব্যক্তিগত জীবনে প্লে-বয়! ব্রাজিল তারকার হট বান্ধবীদের দেখলে তাক লাগবে

কিন্তু চোট আঘাত, রেফারির সিদ্ধান্তে অসন্তোষ, গোলের পরে উচ্ছ্বাস, খোলেয়াড় পরিবর্তনে কিছু সময় তো নষ্ট হয়ই। তার উপর আবার ‘ভার’ প্রযুক্তির ব্যবহার। যে প্রযুক্তি নিখুঁত সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য তো করছে কিন্তু সময় নষ্ট করে ফেলছে অনেকটা।

বিশ্বকাপের আগেই আভাস মিলেছিল হয়তো প্রায় সব ম্যাচেই বাড়তি সাত আট মিনিট খেলাতে হতে পারে। কিন্তু বাস্তবে কখনও কখনও অতিরিক্ত সময় বেড়ে দাঁড়াচ্ছে প্রায় ২৪ মিনিট। এবারের বিশ্বকাপের প্রথম ছটি ম্যাচে কতটা মিনিট অতিরিক্ত সময় খেলা হয়েছে একবার দেখুন।

প্রথম ম্যাচ কাতার বনাম ইকুয়েডর। প্রথমার্ধে ৫ মিনিট ও দ্বিতীয়ার্ধে ৫ মিনিট। মোট ১০ মিনিট অতিরিক্ত সময়। ইংল্যান্ড বনাম ইরান। প্রথমার্ধে ইরানের গোলকিপার আহত হয়ে মাঠ ছাড়ায় ১৪ মিনিট অতিরিক্ত সময় দেওয়া হয়। দ্বিতীয়ার্ধে ১০ মিনিট। মোট ২৪ মিনিট অতিরিক্ত সময়।

নেদারল্যান্ডস বনাম সেনেগাল ম্যাচের প্রথমার্ধে ২ মিনিট ও দ্বিতীয়ার্ধে ৮ মিনিট। মোট ১০ মিনিট অতিরিক্ত সময়। আমেরিকা বনাম ওয়েলস। প্রথমার্ধে ৪ মিনিট ও দ্বিতীয়ার্ধে ৯ মিনিট। মোট ১৩ মিনিট অতিরিক্ত সময়। আর্জেন্টিনা বনাম সৌদি আরব। প্রথমার্ধে ৫ মিনিট ও দ্বিতীয়ার্ধে ৮ মিনিট। মোট ১৩ মিনিট অতিরিক্ত সময়।

পোল্যান্ড বনাম মেক্সিকো ম্যাচে অন্য মাচের তুলনায় কম সময় নষ্ট হয়েছে। প্রথমার্ধে ২ মিনিট ও দ্বিতীয়ার্ধে ৭ মিনিট। তাই মোট ৯ মিনিট অতিরিক্ত সময় খেলানো হয়েছে। শুধু তাই নয় অতিরিক্ত সময়ের খেলা বন্ধ থাকলে সে সময়ও বাড়তি খেলানো হচ্ছে। তাই অতিরিক্ত সময়ে ছাপিয়েও খেলা হচ্ছে।

কমপক্ষে নব্বই মিনিট যেন খেলা হয়, তা নিশ্চিত করতে ফিফার নতুন সিদ্ধান্তে একেকটা খেলা গড়িয়ে যাচ্ছে একশ মিনিটের বেশি। তবে এ সবই দর্শকের কথা ভেবে।

ফিফা চায়, আপনি যাতে নব্বই মিনিটের ফুটবলে এক মিনিটও কম না পান। আর আপনি ভাবছেন, নিশ্চয়ই রেফারির পক্ষপাতিত্বে বেশিক্ষণ খেলা গড়াচ্ছে! আর কোনও না কোনও দল বাড়তি সুবিধা পেয়ে যাচ্ছে! আসলে সবটাই হচ্ছে ফুটবলের স্বার্থে।

Published by:Suman Majumder
First published: