গাছে বেঁধে হস্তিনী’কে বেধড়ক মার দুই মাহুতের, বুক ফাটা আকুল কান্না অবলা জীবের

গাছে বেঁধে হস্তিনী’কে বেধড়ক মার দুই মাহুতের, বুক ফাটা আকুল কান্না অবলা জীবের
২০ সেকেন্ডের ভিডিও-তে দেখা যাচ্ছে, যন্ত্রণায় বুক পাটা চিৎকার করে কাঁদছে অসহায় জীবটি । কিন্তু তাতেও মন গলেনি দুই মাহুতের ।

২০ সেকেন্ডের ভিডিও-তে দেখা যাচ্ছে, যন্ত্রণায় বুক পাটা চিৎকার করে কাঁদছে অসহায় জীবটি । কিন্তু তাতেও মন গলেনি দুই মাহুতের ।

  • Share this:

    #তামিলনাড়ু: বছর খানেক আগে কেরলের এক মা হাতির ঘটনা নাড়িয়ে দিয়ে গিয়েছিল মানুষের অন্তরাত্মাকে । গর্ভবতী’কে হাতিটিকে বারুদভর্তি তরমুজ খাইয়ে দিয়েছিল গ্রামবাসীরা । সন্তানের কষ্ট একটু লাঘব করতে মৃত্যুর আগের মুহূর্ত পর্যন্ত পুকুরের জলে পেট ডুবিয়ে বসেছিল সে । সেখানেই মৃত্যু হয় তার । মানুষের মনুষ্যত্বহীনতা, নির্মমতা, নিষ্ঠুরতা সে দিন গোটা মনুষ্যজাতির কাছে চরম লজ্জার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছিল ।

    কিন্তু এখানেই শেষ নয় । অবলা পশুদের উপর অত্যাচার আজও চলছে । এ অপরাধের বিচার হয়তো শুধু শাস্তি দিয়ে করা যায় না । মানুষের বিবেক জাগ্রত না হওয়া পর্যন্ত পৃথিবীর ‘সর্বৎকৃষ্ঠ’ এই জীবের হাত থেকে সম্ভবত মুক্তি নেই কারও ।

    এ বার একটি হস্তিনী’কে গাছের সঙ্গে বেঁধে লাঠি দিয়ে তাকে বেধড়ক মারল দুই মাহুত । হাতিটির ‘অপরাধ’ সে মাহুতের কথার অবাধ্য হয়েছিল । ঘটনাটি ঘটেছে তামিলনাড়ুর থেক্কাপপট্টির শ্রীভিল্লিপুথুরের অন্ডাল মন্দিরে । এই মন্দিরে আয়োজিত একটি শিবিরে ১৯ বছর বয়সী জয়মালথা নামের ওই হাতিটিকে আনা হয়েছিল ।


    কোনও কারণে মাহুতদের কথার অমান্য হয়েছিল হস্তিনীটি । সেই অপরাধে প্রচণ্ড মারা হল তাকে । ২০ সেকেন্ডের ভিডিও-তে দেখা যাচ্ছে, যন্ত্রণায় বুক পাটা চিৎকার করে কাঁদছে অসহায় জীবটি । কিন্তু তাতেও মন গলেনি দুই মাহুতের । জানা গিয়েছে, ওই দুইমাহিলের নাম ভিনিল কুমার এবং তার সহকারী শিবপ্রসাদ । এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পর দুই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে একাধিক পশুপ্রেমী সংগঠন । বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনের আওতায় ওই দুই মাহুতকে গ্রেফতারও করা হয়েছে । দুই মাহুতকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করেছে মন্দির কর্তৃপক্ষ ।

    Published by:Simli Raha
    First published: